ঢাকা     মঙ্গলবার   ১১ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৭ ১৪২৭ ||  ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ঈদে জঙ্গি হামলার শঙ্কা, নিরাপত্তা জোরদার

মাকসুদুর রহমান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:১৯, ৩১ জুলাই ২০২০  
ঈদে জঙ্গি হামলার শঙ্কা, নিরাপত্তা জোরদার

ফাইল ফটো

আগামীকাল শনিবার (১ আগস্ট) ঈদুল আজহা। এ উৎসবকে ঘিরে জঙ্গি হামলার আশঙ্কা করা হচ্ছে। যেকোনো ধরনের হামলা মোকাবিলায় দেশব্যাপী নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে। সজাগ আছেন সাদা পোশাকের গোয়েন্দারা। প্রস্তুত রাখা হয়েছে বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ও সোয়াটের মতো প্রশিক্ষিত দলকে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম রাইজিংবিডিকে বলেছেন, ‘করোনা পরিস্থিতি ও ঈদের কারণে রাজধানী প্রায় ফাঁকা। এখানকার প্রধান সড়ক থেকে অলিগলি পর্যন্ত নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। মানুষ না ফেরা পর্যন্ত এ নিরাপত্তা ব‌্যবস্থা অব্যাহত থাকবে।’

পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত ২৫ জুলাই গুলিস্তানে বোমা সদৃশ বস্তু জব্দ এবং পল্লবী থানায় বোমার বিস্ফোরণের ঘটনা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের ভাবিয়ে তুলেছে। মানুষ যেন শান্তিতে ঈদ উদযাপন করতে পারে, সেজন্য বিশেষ নিরাপত্তার ব‌্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশের সবগুলো ইউনিটের সঙ্গে ডিবি, এসবি, এনএসআই সমন্বয় করে কাজ করছে। ঈদগাহ, জনবহুল এলাকা, গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও স্থাপনায় পুলিশ মোতায়ের করা হয়েছে। বসানো হয়েছে চেকপোস্ট।

জঙ্গি হামলার আশঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও মিয়ানমারের দূতাবাসসহ কূটনৈতিক এলাকা, বিমানবন্দর, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ও তাদের বাসা এবং শিয়া, আহমাদিয়া সম্প্রদায়ের মসজিদ, মাজার, মাজারকেন্দ্রিক মসজিদ, মন্দির, চার্চ ও প্যাগোডায় পুলিশ-র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে।

গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য আছে, জঙ্গি সংগঠন ইসলামিক স্টেট (আইএস) দেশে অরাজকতা সৃষ্টির পরিকল্পনা করছে। নব্য জেএমবির সদস্যরা হত্যাকাণ্ড, নাশকতা ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড করতে পারে। তাদের প্রতিরোধে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট গোয়েন্দা তৎপরতা বাড়িয়েছে।

ডিএমপির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ঈদের ছুটিতে অনেকেই গ্রামে যাওয়ায় ফাঁকা ঢাকায় অপরাধ সংঘটিত হয়। বিশেষ করে, আবাসিক ও বাণিজ্যিক এলাকায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, মলম পার্টি ও অজ্ঞান পার্টির তৎপরতা বেড়ে যায়। এসব অপতৎপরতা রোধে নজরদারি বাড়ানোসহ নানা পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

ঈদের দিনে নিরাপত্তা রক্ষায় র‌্যাবের সবগুলো ব্যাটালিয়ন কাজ করছে। পোশাক পরিহিত ও সাদা পোশাকের গোয়েন্দারা পুলিশের সঙ্গে সমন্বয় করে কাজ করছে। জঙ্গি তৎপরতা রোধ করা র‌্যাবের অন্যতম লক্ষ্য বলে বাহিনীটির মুখপাত্র লেফটেন‌্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ রাইজিংবিডিকে জানিয়েছেন।

ঢাকা/মাকসুদ/রফিক

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়