RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ২৮ নভেম্বর ২০২০ ||  অগ্রাহায়ণ ১৪ ১৪২৭ ||  ১১ রবিউস সানি ১৪৪২

সরকারি মাধ‌্যমিক বিদ‌্যালয়ে ভর্তি-পরীক্ষার পক্ষে শিক্ষকরা

আবু বকর ইয়ামিন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:০৫, ২৭ অক্টোবর ২০২০   আপডেট: ২১:১২, ২৭ অক্টোবর ২০২০
সরকারি মাধ‌্যমিক বিদ‌্যালয়ে ভর্তি-পরীক্ষার পক্ষে শিক্ষকরা

ফাইল ফটো

আগামী বছর পরীক্ষার মাধ‌্যমে নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি করতে চান রাজধানীর সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়গুলোর প্রধান শিক্ষকরা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে তিনটি ক্লাস্টারে নয়টি ধাপে পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। যদি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হয়, তাহলে লটারির মাধ্যমে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণিতে শিক্ষার্থী ভর্তির প্রস্তাব দিয়েছেন তারা।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে কীভাবে মাধ্যমিক স্কুলে শিক্ষার্থী ভর্তি করা যায়, সে বিষয়ে মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা (মাউশি) অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম ফারুকের সভাপত্বিতে রাজধানীর সরকারি মাধ্যমিক বিদ‌্যালয়ের প্রধানদের ভার্চুয়াল সভা হয়েছে। এ সভায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানরা নানা প্রস্তাব দিয়েছেন।

মাউশি থেকে জানা গেছে, গত বছরের মতো এবারও পরীক্ষার মাধ‌্যমে ভর্তির প্রতি জোর দিয়েছেন রাজধানীর সরকারি মাধ্যমিকের প্রধান শিক্ষকরা। রাজধানীর ৪১টি সরকারি বিদ্যালয়ে তিনটি ক্লাস্টারে তিন দিন পরীক্ষা নেওয়া হলেও এবার প্রতিটি ক্লাস্টারে তিনটি ভাগে তিন দিন করে মোট নয় দিন পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন তারা। অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন করা হলে তাতে সবার পক্ষে অংশ নেওয়া সম্ভব হবে না বলে মনে করছেন শিক্ষকরা। এ কারণে পর্যায়ক্রমে সশরীরে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন তারা।

সভা সূত্রে জানা গেছে, কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত লটারির মাধ্যমে শিক্ষার্থী ভর্তির প্রস্তাব দিয়েছে। মাউশির মহাপরিচালক মনে করছেন, লটারিতে অনেক মেধাবী শিক্ষার্থী সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ থেকে বঞ্চিত হবে। সরাসরি ভর্তি-পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হলে তখন লটারির মাধ্যমে ভর্তি করতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আজিমপুর গভর্নমেন্ট গার্লস স্কুল অ‌্যান্ড কলেজের সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবু বকর সিদ্দীক রাইজিংবিডিকে বলেছেন, ‘করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার প্রতি মত দিয়েছেন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর প্রধানরা। স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে।’

কম সময়ের মধ্যে ভর্তি পরীক্ষা শেষ করতে কেউ কেউ এমসিকিউ পদ্ধতি অবলম্বনের প্রস্তাব দিয়েছেন। তবে অনেকে লিখিত পরীক্ষার পক্ষে মত দিয়েছেন।

মাউশির সহকারী পরিচালক (বিদ্যালয়-১) মো. আমিনুল ইসলাম টুকু জানিয়েছেন, চলতি মাসে সরকারি বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি নীতিমালা জারি করা হয়েছে। তবে কোন পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে, সে বিষয়ে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি। তাই আজ প্রধান শিক্ষকদের নিয়ে বৈঠক করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘প্রতিবছর রাজধানীর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম থেকে অষ্টম শ্রেণিতে ১০ হাজারের বেশি আসনে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়। এসব আসনে ভর্তির জন্য ১ লাখের মতো আবেদন জমা পড়ে। এ কারণে ভর্তি পরীক্ষার সময় শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের ভিড় হয়। এবার করোনা পরিস্থিতির কারণে ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সবার মতামতের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

ভর্তি নীতিমালায় দেখা গেছে, এবারও আগের মতো রাজধানীর ৪১টি সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে তিনটি ক্লাস্টারে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। আগে প্রতিটি ক্লাস্টারে একটি বিদ্যালয়ে আবেদন করার সুযোগ দেওয়া হলেও এবার প্রতিটিতে ৫টি করে মোট ১৫টি বিদ্যালয়ে অনলাইনের মাধ্যমে ভর্তির আবেদন করার সুযোগ তৈরি করা হয়েছে। সব বিদ্যালয়ে ৫ শতাংশ আসন খালি রেখে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে। এসব আসনে বদলি হয়ে আসা সরকারি কর্মকর্তাদের সন্তানদের ভর্তি করা হবে।

আগে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তির জন‌্য লটারি করা হলেও দ্বিতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত ৫০ নম্বরের পরীক্ষা নেওয়া হতো। ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণির ভর্তি-পরীক্ষা হতো ১০০ নম্বরের।

মাউশির পরিচালক (বিদ্যালয়) অধ্যাপক বেলাল হোসাইন বলেছেন, ‘আগামী বছর কীভাবে শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে, সে বিষয়ে প্রস্তুতি সভা হয়েছে। এতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধানদের মত চাওয়া হয়েছে। তারা নানা মতামত দিয়েছেন। বাস্তবসম্মত মতামতগুলো সমন্বয় করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। সেখানে থেকে যেটি চূড়ান্ত হবে, সেটি বাস্তবায়ন করা হবে।’

ইয়ামিন/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়