RisingBD Online Bangla News Portal

ঢাকা     শনিবার   ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||  ফাল্গুন ১৪ ১৪২৭ ||  ১৪ রজব ১৪৪২

গ্যাস সংকট, ভোগান্তিতে নগরবাসী

মেসবাহ য়াযাদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৪৯, ২৬ জানুয়ারি ২০২১  
গ্যাস সংকট, ভোগান্তিতে নগরবাসী

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় গ্যাস সংকট শুরু হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে এ সমস্যা চরমে ভোগান্তিতে পড়েছেন নগরবাসী।

জানা গেছে, রাজধানীর হাতিরপুল, সেন্ট্রাল রোড, কাঁঠালবাগান, জিগাতলা, মোহাম্মদপুর, আদাবর, কাটাসুর, মিরপুরের কিছু এলাকা, মগবাজার, মধুবাগ, যাত্রাবাড়ী, আজিমপুর, উত্তরা সেক্টর ৩, ১০ ও ১৩ নম্বরে গ্যাস সংকট সবচেয়ে বেশি।  শীতে প্রতি বছর এসব এলাকায় এ সমস্যা হলেও অন্য বছরের তুলনায় এবার সমস্যা অসহনীয় পর্যায়ে গেছে বলে জানিয়েছেন বাসিন্দারা। 

তারা বলেন, সকাল ৭টার দিকে গ্যাস সরবরাহ কমতে থাকে। এক পর্যায়ে ১০-১১ টায় একদম কমে যায়। সন্ধ্যা ৭টার দিকে একটু একটু করে সরবরাহ স্বাভাবিক হয়। 

গ্যাস সংকটের কারণে রান্না, খাবার, সবকিছুর সময় বদলে গেছে বলে জানিয়েছেন খিলগাঁওয়ের রীনা মাহমুদ। তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, গ্যাসের অভাবে বাধ্য হয়ে গ্যাস সিলিন্ডার কিনেছি। অথচ মাস শেষে গ্যাসের নির্ধারিত টাকা ঠিকই পরিশোধ করতে হবে।

গত তিন বছর থেকে প্রতি শীতেই গ্যাসের একই অবস্থা হয় বলে জানান সেন্ট্রাল রোডের গৃহিনী রেহানা আক্তার। তিনি রাইজিংবিডিকে বলেন, খুব ভোরে উঠে বা মধ্যরাতে রান্না করে রাখতে হয়। তারপর সে খাবার মাইক্রোওভেনে গরম করে খেতে হয়। গত এক সপ্তাহ থেকে গ্যাস সিলিন্ডার কিনে রান্না করতে হচ্ছে। 

মোহাম্মদপুর মনসুরাবাদ হাউজিংয়ের বাসিন্দা মানিক বাহার রাইজিংবিডিকে বলেন, গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে সকাল ৭টার পরে আর গ্যাস থাকে না। প্রতিদিন হোটেলে নাস্তা খেয়ে অফিসে যাই।  জানি না কবে এ সমস্যা কাটবে।

উত্তরা-১৩ নম্বর সেক্টরের বাসিন্দা ফজলুল করিম রাইজিংবিডিকে বলেন, গ্যাসের যন্ত্রণা আর ভালো লাগছে না। বাইরে থেকে সিলিন্ডার কিনে গত দুই মাস ধরে চালাচ্ছি। মাসে ৩-৪টা সিলিন্ডার কিনতে হচ্ছে। মাস শেষে গ্যাস বিল ৯৭৫ টাকা করেও দিতে হচ্ছে।

শীত এলেই গ্যাসের এমন সংকটের কারণ হিসাবে তিতাস গ্যাসের লালমাটিয়া অফিসের একজন প্রকৌশলী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, শীতে গ্যাস লাইনে একধরনের আর্দ্রতা জমে। ফলে গ্যাসের চাপ অন্য সময়ের তুলনায় কমে যায়। সারা দেশে দিনে গ্যাসের চাহিদা প্রায় ৩ হাজার ৭০০ মিলিয়ন ঘনফুট। এর বেশি অংশেরই যোগান হয় উৎপাদিত প্রাকৃতিক গ্যাস থেকে। অবশিষ্ট অংশের জোগান হয় আমদানি করা তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের মাধ্যমে। এলএনজির সরবরাহের সমস্যার কারণেও গ্যাস সংকট হচ্ছে। তবে দ্রুত এই সমস্যা কেটে যাবে।  

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান রাইজিংবিডিকে বলেন, শীতে জাতীয় গ্রিডে গ্যাসের সরবরাহ কমে যাওয়ায় রাজধানীর বেশকিছু এলাকায় প্রতি বছরই গ্যাস সরবরাহ সমস্যা হয়। খুব দ্রুত এলএনজির সরবরাহের সমস্যা কেটে যাবে। সমস্যা কেটে গেলেই সংকট থাকবে না।

মেসবাহ/সাইফ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়