Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ১২ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ২৯ ১৪২৭ ||  ২৮ শা'বান ১৪৪২

খাদ্যপণ্য কেনার দরপত্রের সময় কমছে

কেএমএ হাসনাত || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৪৬, ১ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৫:৫৪, ১ মার্চ ২০২১
খাদ্যপণ্য কেনার দরপত্রের সময় কমছে

খাদ্যপণ্য কেনার দরপত্র আহ্বানের সময়সীমা কমছে। আগের ৪২ দিনের পরিবর্তে  ১০ দিন সময়সীমা নির্ধারণে প্রস্তাব দিতে যাচ্ছে খাদ্য মন্ত্রণালয়। এই সংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে।
 
খাদ‌্য মন্ত্রণালয়-সূত্রে জানা গেছে, গত বোরো মৌসুমে লক্ষ্যমাত্রার মাত্র ৫৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ  লক্ষ‌্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। আর চলতি আমন মৌসুমে ২ দশমিক ০৭ লাখ মেট্রিক টন ধান ও ৬ দশমিক ৫০ লাখ মেট্রিক টন চাল সংগ্রহ লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে চলতি বছরের ১৮  ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত মাত্র ৬১ হাজার ৬৭ মেট্রিক টন চাল ৯ হাজার ৮৯৬ মেট্রিক টন ধান সংগ্রহ করা হয়েছে। এ ছাড়া ঘন ঘন বন্যা, অতি বৃষ্টি, ঘূর্ণিঝড় আমফানসহ করোনার  কারণে উৎপাদন কিছুটা ব্যাহত হওয়ায় বাজারে ধান ও চালের দামের ঊর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে সরকারি বিতরণ ব্যবস্থা সচল রাখতে  চাল ও গম আমদানির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, চলতি (২০২০-২১) অর্থবছরের বাজেটে খাদ্যশস্যের মোট চাহিদা ধরা হয়েছিল ৩১ লাখ ৩৬ হাজার ৪০০ মেট্রিক টন। যার মধ্যে ২৪ লাখ ৪১ হাজার ৯০০ মেট্রিক টন চাল এবং ৬ লাখ ৯৪ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন গম। কিন্তু লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে ব‌্যর্থ হওয়া ছাড়াও সরকারি গুদামে পর্যাপ্ত মজুদ না থাকায় টেস্ট রিলিফ (টিআর), কাজের বিনিময়ে খাদ‌্য (কাবিখা) কর্মসূরি খাদ্যশস্য টাকায় রূপান্তর করা হয়েছে। এরই পরিপ্রেক্ষিতে খাদ্যশস্যের সংশোধিত চাহিদা ধরা হয়েছে ২৪ লাখ ৫৫ হাজার ৭ মেট্রিক টন। এরমধ্যে চাল ১৮ লাখ ৬৪ হাজার ৮২৯ মেট্রিক টন এবং গম ৫ লাখ ৯০ হাজার ১৭৮ মেট্রিক টন।

সূত্র জানায়, চলতি অর্থবছরে ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১০ লাখ ৬৯ হাজার ৭৪৪  মেট্রিক টন চাল এবং ৩ লাখ ৩২ হাজার ১১০ মেট্টিক টন গম বিতরণ করা হয়েছে।  ৩০  জুন পর্যন্ত আরও ৭ লাখ ৯৫ হাজার ৮৫ মেট্রিক টন চাল এবং ২ লাখ ৫৮ হাজার ৬৮ মেট্রিক টন গম বিতরণ করতে হবে। এছাড়া, চলতি অর্থবছর শেষে ৮ লাখ মেট্রিক টন চাল এবং ২ লাখ মেট্রিক টন গম নিরাপত্তা মজুদ রাখতে হবে। বর্তমানে  ১৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত  ৫ লাখ ৩৭ হাজার ১৬০ মেট্রিক টন চাল এবং  ১ লাখ ১৭ হাজার ৫৩৩ মেট্রিক টন গম মজুদ রয়েছে। এ অর্থ বছরে আরও ১০ লাখ ৫৭ হাজার ৯২৫ মেট্রিক টন চাল এবং ৩ লাখ ৪০ হাজার ৫৩৫ মেট্রিক টন গমের নিট চাহিদা রয়েছে। ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক দরপত্র এবং জি টু জি পদ্ধতির আওতায় ৫ লাখ মেট্রিক টন চাল এবং ২ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন গম কেনার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। আরও ৫ লাখ ৫৭ হাজার ৯২৫ মেট্রিক টন চাল চলতি অর্থ বছরে জরুরি ভিত্তিতে সংগ্রহ করতে হবে।

সরকারি খাদ্য বিতরণ ব্যবস্থা সচল রাখা, চালের বাজার দাম ভোক্তা সাধারণের জন্য সহনীয় ও স্থিতিশীল রাখা এবং সর্বপোরি জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার স্বার্থে অতি জরুরি ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ৫ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন খাদ্যশস্য সংগ্রহ করতে হবে। 

এ অবস্থায় খাদ‌্যপণ‌্য কেনার প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশের ৪২ দিনের পরিবর্তে ১০ দিন করার জন্য প্রস্তাব অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির নীতিগত অনুমোদনের জন্য পরবর্তী সভায় তোলা হবে।

/হাসনাত/এনই

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়