Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৬ মে ২০২১ ||  বৈশাখ ২৩ ১৪২৮ ||  ২৩ রমজান ১৪৪২

লকডাউনে মানুষের আস্থা ওয়ালটন ফ্রিজে

|| রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৪৭, ২০ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১৬:৪৮, ২০ এপ্রিল ২০২১
লকডাউনে মানুষের আস্থা ওয়ালটন ফ্রিজে

লকডাউনে থমকে গেছে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। সবাইকে ঘরে থাকতে বলা হচ্ছে। করোনার সংক্রমণ থেকে বাঁচতে জনসমাগম এড়িয়ে চলতে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। তাই প্রতিদিন বাজারে যাওয়ার ঝামেলা এড়াতে একসঙ্গে পুরো সপ্তাহের বাজার করছেন অনেকেই। এজন্য ঘরে থাকতে হবে একটি ভালো মানের ফ্রিজ। বিশেষ করে, শাক-সবজি, মাছ- মাংস ভালোভাবে সংরক্ষণের জন‌্য ফ্রিজ বিশেষ প্রয়োজন।

তাই অনেকেই এ লকডাউনের মধ্যেও ফ্রিজ কিনছেন। আর বাংলাদেশের মানুষের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে আছে ওয়ালটন ফ্রিজ। ওয়ালটন ফ্রিজ ঘরের সৌন্দর্যও বাড়ায়। ওয়ালটনের ফ্রিজ মানেই নান্দনিক ও অপূর্ব কারুকার্যের মিশ্রণ। বাজারে ওয়ালটনের আছে দেড় শতাধিক মডেলের ফ্রস্ট, নন-ফ্রস্ট, ডিপ ফ্রিজ ও বেভারেজ কুলার। দামও সহনীয় পর্যায়ে। মানও ভালো। সে কারণে সাধারণ মানুষ কিনতে পারেন অনায়াসে।

মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) দুপুরে তারা মিয়ার ভ্যান ছুটছে রাজধানীর সায়েদাবাদ থেকে কাজলার দিকে। ভ্যানের ওপর শক্ত করে বাঁধা ওয়ালটন ফ্রিজ। ফাঁকা রাস্তায় ছুটছে ভ‌্যান, আর ওয়ালটন লেখাটি নজর কাড়ছে পথচারীদের। 

তারা মিয়ার ভ্যানটি এসে দাঁড়ালো কাজলা বিশ্বরোডের মসজিদ গলিতে। এ প্রতিবেদক তারা মিয়ার কাছে জানতে চান, ‘চাচা, কই যাবেন?’ তারা মিয়া বলেন, ‘এই তো বাবা, সামনে।’ কথায় কথায় তারা মিয়া জানান, সায়েদাবাদ থেকে ফ্রিজটি নিয়ে এসেছেন তিনি। ফ্রিজের মালিক পেছনে আছে।

তিনি আরও জানান, করোনাকালেও ভালোই বিক্রি হচ্ছে ওয়ালটন ফ্রিজ।

তারা মিয়ার সঙ্গে কথা বলার মাঝেই ফ্রিজের মালিক মাহিদুল ইসলাম সেখানে হাজির হন। ওয়ালটন ফ্রিজ কেনার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘ওয়ালট ফ্রিজ ভালো। সায়েদাবাদে একটা মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করি। কয়েকজন শিক্ষক ওয়ালটন ফ্রিজ কিনেছেন। তারা বলেছেন, ওয়ালটন ফ্রিজ অনেক ভালো। তাই, আমিও ওয়ালটনে আস্থা রাখলাম। আমার আরও কয়েকজন সহকর্মী ওয়ালটন ফ্রিজ কিনবেন বলে জানিয়েছেন।’

মাহিদুল ইসলাম আরও বলেন, ‘ওয়ালটন ফ্রিজের দাম কম। মানও ভালো। দেখতেও সুন্দর। সহজেই পাওয়া যায়। এখন তো লকডাউনের কারণে সব সময় বাজারে যাওয়া যায় না। তাই খাবার সংরক্ষণের জন‌্য ফ্রিজ কিনলাম। এক সপ্তাহের বাজার করে ফ্রিজে রেখে দেবো। ফ্রিজটি আমার ছেলের পছন্দ। আশা করি, গিন্নিও পছন্দ করবে।’

ঢাকা/মামুন/রফিক

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়