Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ২৫ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ৯ ১৪২৮ ||  ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

টিকা মজুতে ৬ দেশের নতুন প্ল্যাটফর্ম, বৈঠক মঙ্গলবার

হাসান মাহামুদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪৮, ২৬ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ১২:২৫, ২৬ এপ্রিল ২০২১
টিকা মজুতে ৬ দেশের নতুন প্ল্যাটফর্ম, বৈঠক মঙ্গলবার

কোভিড-১৯ দীর্ঘমেয়াদে থাকতে পারে এই বিবেচনায় টিকা সংগ্রহের প্রতি গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার।  এই অবস্থায় চীনের একটি উদ্যোগে যুক্ত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এই উদ্যোগে টিকা সংগ্রহের প্রক্রিয়া কী হবে, স্টোরেজে কোন দেশে উৎপাদিত টিকা থাকবে প্রভৃতি বিষয় নিয়ে আলোচনা বসতে যাচ্ছে নতুন এই প্ল্যাটফর্মে যুক্ত হওয়া ৬ দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা।

মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) ভার্চুয়ালি এই বৈঠক হবে।  করোনা টিকাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করতে বাংলাদেশ, চীন, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা, নেপাল ও আফগানিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। বাংলাদেশের পক্ষে এতে অংশ নেবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চীনের উদ্যোগে চালু হতে যাওয়া এই প্ল্যাটফর্মের নাম ‘ইমার্জেন্সি ভ্যাকসিন স্টোরেজ ফ্যাসিলিটি ফর কোভিড ফর সাউথ এশিয়া’। মূলত দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের দেশগুলোতে করোনাভাইরাসের টিকা দ্রুত সরবরাহ করার লক্ষ্য নিয়ে একটি সংরক্ষণাগার গড়ে তোলার প্রস্তাব দিয়েছে চীন। এরই মধ্যে বাংলাদেশ এই কাঠামোতে যোগ দিতে ‘নীতিগতভাবে সম্মতি’ জানিয়েছে।

এই জোটের বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী গণমাধ্যমকে বলেন, অনেক সময় বিভিন্ন দেশে হঠাৎ হঠাৎ ভ্যাকসিনের ঘাটতি দেখা যায়। তখন তাদের জন্য জরুরি ভিত্তিতে টিকার দরকার হতে পারে।  এজন্য চীন এমন একটি স্টোরেজ ফ্যাসিলিটি তৈরি করতে চায়, যাতে জরুরি সময়ে এই স্টোরেজ থেকে টিকা সরবরাহ করে প্রয়োজন মেটানো যায়।

আপাতত ভারতকে বাদ দিয়ে ইমার্জেন্সি কোভিড ভ্যাকসিন স্টোরেজ ফ্যাসিলিটি তৈরি করার এই উদ্যোগ নিয়ে এখনও আলোচনা চলছে। এই উদ্যোগ থেকে ভারত শেষ পর্যন্ত বাদ থাকবে কি-না, বিষয়টা এখনো পরিস্কার করে জানা যায়নি। তবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমরা এখনও জানি না, কারণ প্রস্তাবটি এসেছে চীনে পক্ষ থেকে এবং তারাই এ বিষয়ে বলতে পারবে।

গত ১৫ এপ্রিল চীনের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ সরকারের কাছে এই সংক্রান্ত প্রস্তাব আসে। ২২ এপ্রিল পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে চীনের ভাইস মিনিস্টারের বৈঠক হয়। এ সংক্রান্ত মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মঙ্গলবার।

জানা গেছে, দক্ষিণ এশিয়ার কোনো দেশে যদি কোভিড ১৯-এর টিকা জরুরি ভিত্তিতে দরকার হয়, তাহলে যেন তা দ্রুততার সঙ্গে সরবরাহ করা যায়, সেই লক্ষ্যেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।  যেকোনো দেশেরই জরুরি প্রয়োজন হতে পারে। তখন যদি এখানে এক জায়গায় ভ্যাকসিনটা থাকে।  তাহলে সংগ্রহ করা সুবিধা হবে। আমলাতান্ত্রিক জটিলতা থাকবে না।  তবে এই স্টোরেজ সুবিধা কোন দেশে তৈরি হবে, সেটা এখনও নির্ধারণ হয়নি। বিষয়টি নিয়ে চীনা সরকারের কাছে বাংলাদেশ বিস্তারিত জানতে চেয়েছে।  আশা করা হচ্ছে- মঙ্গলবারের বৈঠকে এই বিষয়ে আলোচনা হতে পারে।

এদিকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, টিকা সংগ্রহ, কেনা কিংবা প্রয়োজনসাপেক্ষে টিকা উৎপাদনে চুক্তি করাসহ প্রায় সব বিষয়েই কাজ করা হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে।  ভারতে উৎপাদিত অক্সফোর্ড-আস্ট্রাজেনেকার টিকার নতুন চালান অনিশ্চয়তায় পড়ায় বিকল্প উৎসর খোঁজে অগ্রসর হয়েছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি ভারতকে দ্রুত টিকা পাঠানোর অনুরোধও জানিয়ে আসছিল সরকার।  এরই মধ্যে রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক  (ডিজি) অধ্যাপক আবুল বাশার খুরশীদ আলম জানিয়েছেন, মে মাসের প্রথম সপ্তাহে বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের প্রায় ২১ লাখ টিকা পাচ্ছে।  এর মধ্যে বেক্সিমকো আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে অক্সফোর্ড–অ্যাস্ট্রাজেনেকার ২০ লাখ টিকা দিচ্ছে। এ ছাড়া কোভ্যাক্স থেকে ফাইজারের উৎপাদিত ১ লাখ টিকা পাওয়া যাবে।

চীন ও রাশিয়া থেকেও করোনাভাইরাসের টিকা কেনা হবে বলে জানা গেছে। চীন বাংলাদেশকে ৬ লাখ টিকা উপহার হিসেবে দেবে।  বাকিটা কিনে আনার পরিকল্পনা করছে সরকার।  রাশিয়ার তৈরি স্পুৎনিক-ভি টিকা যৌথ উৎপাদনে যাওয়ার আগে সেই টিকা কিনে আনারও পরিকল্পনা করা হচ্ছে।  রাশিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, বাংলাদেশের টিকার প্রয়োজন মেটানোর মতো উৎপাদন সক্ষমতা তাদের নেই।  এজন্য যৌথ উৎপাদনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।  ইতোমধ্যে রাশিয়ার সঙ্গে গোপনীয়তার চুক্তি সই হয়ে গেছে।  বাকি কাজে এগিয়ে নিচ্ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশে টিকা উৎপাদনের সক্ষমতা আছে, এমন ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানির তালিকা এরই মধ্যে রাশিয়াকে দেওয়া হয়েছে।  তারা এক বা একাধিক কোম্পানিকে কাজটা করার জন্য দিতে পারে। যৌথ উৎপাদনের এসব টিকা বাংলাদেশ অন্য দেশে রপ্তানি করতে পারবে।

জানা গেছে, এর আগে রাশিয়া ও চীন থেকে টিকা আনার চেষ্টা করা হলেও সেগুলোর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিডএইচও) অনুমোদন না থাকায় পিছিয়ে এসেছিল সরকার। বর্তমানে সে অবস্থান পাল্টেছে।

পড়ুন:

টিকা রাজনীতিতে চীনের সঙ্গে পাল্লা দিচ্ছে ভারত

করোনার টিকা উৎপাদনে রাশিয়ার সঙ্গে বাংলাদেশের চুক্তি স্বাক্ষর

চীনের করোনার টিকা নিরাপদ প্রমাণিত

মঙ্গলবার ঢাকায় আসছেন চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী

বাংলাদেশ আপাতত আর টিকা পাচ্ছে না, কূটনৈতিক নোটে জানিয়ে দিলো ভারত

হাসান/সাইফ

সর্বশেষ