Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ১৬ জুন ২০২১ ||  আষাঢ় ২ ১৪২৮ ||  ০৩ জিলক্বদ ১৪৪২

হেফাজতের কমিটিতে রাজনৈতিক নেতা, নানা অভিযোগ

মোহাম্মদ নঈমুদ্দীন || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২০:৫২, ৭ জুন ২০২১   আপডেট: ২০:৫৪, ৭ জুন ২০২১
হেফাজতের কমিটিতে রাজনৈতিক নেতা, নানা অভিযোগ

মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরীকে আমির এবং মাওলানা নুরুল ইসলাম জিহাদীকে মহাসচিব করে ৩৩ সদস্যের নতুন কমিটি ঘোষণা করেছে কওমি সমর্থিত অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। নতুন কমিটিতে মামুনুল হকসহ ২০ দলীয় জোটের শরিক দলগুলোর নেতাদের বাদ দেওয়া হয়েছে। বাদ দেওয়া হয়েছে হেফাজতের প্রতিষ্ঠাতা আমির আল্লামা আহমদ শফীর ছেলে আনাস মাদানী ও তার অনুসারীদেরও।

নতুন কমিটি ঘোষণার পর থেকে কওমি ঘরানার আলেম-ওলামাদের মধ্যে শুরু হয়েছে কানাঘুষা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও চলছে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা। 

বিতর্ক এড়াতে রাজনৈতিক নেতাদের বাদ দিয়ে অরাজনৈতিক আলেম-ওলামাদের নিয়ে রাজনীতিমুক্ত হেফাজত ইসলামের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে দাবি করা হলেও নতুন কমিটির শীর্ষ পদে ঠাঁই পেয়েছেন রাজনৈতিক দলের কয়েকজন নেতা। নতুন কমিটিতে পদ দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ উঠেছে। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িত এবং কারাগারে আটক যেসব হেফাজত নেতাকে রাজনীতির দোহাই দিয়ে বাদ দেওয়া হয়েছে, তাদেরই আত্মীয়-স্বজনকে দেওয়া হয়েছে নতুন কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদ। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর বৃহত্তম বোর্ড বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশসহ (বেফাক) কওমি মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ডের দায়িত্বশীল আলেম-ওলামাদেরও রাখা হয়েছে নতুন কমিটিতে।

বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে মাওলানা মামুনুল হকসহ রাজনৈতিক নেতাদের নতুন কমিটিতে রাখা না হলেও নতুন কমিটির মহাসচিব জানিয়েছেন, মামুনুলদের মুক্তির জন্য তারা সবকিছুই করবেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, হেফাজতের ৩৩ সদস্যের নতুন কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে রাখা হয়েছে মাওলানা আতাউল্লাহ হাফেজ্জিকে। তিনি নতুন কমিটির নায়েবে আমির। আতাউল্লাহ হাফেজ্জি দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিক দল খেলাফত আন্দোলনের আমিরের দায়িত্ব পালন করছেন। নতুন কমিটির যুগ্ম মহাসচিব হয়েছেন মাওলানা আনোয়ারুল করীম (যশোর)। তিনি জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের একাংশের সহ-সভাপতি। সাংগঠনিক সম্পাদক হয়েছেন মাওলানা মীর ইদ্রিস (চট্টগ্রাম)। তিনি খেলাফত আন্দোলনের সক্রিয় নেতা। দাওয়াবিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন মাওলানা আবদুল কাইয়ুম সোবহানী (উত্তরা, ঢাকা)। তিনি খেলাফত মজলিসের ড. আহমদ আব্দুল কাদেরের নেতৃত্বাধীন অংশের সক্রিয় নেতা। ড. আহমদ আব্দুল কাদের আগের কমিটির নায়েবে আমির ছিলেন। সম্প্রতি হেফাজতের তাণ্ডবে জড়িত থাকার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়। বর্তমানে তিনি কারাগারে আছেন। নতুন কমিটিতে আহমদ আব্দুল কাদেরকে পদ দেওয়া হয়নি।

কওমি মাদ্রাসার এক শিক্ষক বলেন, ‘হেফাজতের নতুন কমিটি গঠনের নামে হাস্যকর দৃশ্যের অবতারণা করা হয়েছে। রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বাদ দেওয়া হয়েছে বলা হলেও এ কমিটির একাধিক ব্যক্তি সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। আবার এই কমিটিতেই বেফাকুল মাদারিস, আজাদ দ্বীনী এদারা, তানজীমুল মাদারিসসহ কওমি ধারার সর্বোচ্চ শিক্ষা কর্তৃপক্ষ হাইয়াতুল উলইয়া সংশ্লিষ্টরা আছেন। এসব কমিটি কমিটি খেলা বাদ দিয়ে নেতাদের উচিত আটককৃতদের আইনের মাধ্যমে মুক্তির পথ তরান্বিত করা এবং কওমি মাদ্রাসা খোলার ব্যবস্থা করা।’

কওমি ঘরানার আলেমরা অভিযোগ করছেন, বেফাকুল মাদারিসসহ কওমি শিক্ষা বোর্ডে যেসব আলেম-ওলামা দায়িত্বে আছেন, তাদের কেউ রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকতে পারবেন না। এমনকি হেফাজতের কমিটিতে থাকার কথাও নয়। কিন্তু বেফাকসহ কওমি শিক্ষা বোর্ড ও গুরুত্বপূর্ণ সংস্থায় দায়িত্ব পালন করছেন এমন অনেক গুরুত্বপূর্ণ আলেম-ওলামা হেফাজতের নতুন কমিটির শীর্ষ পদে ঠাঁই পেয়েছেন।

হেফাজতের নতুন কমিটির আমির মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী বেফাকের আমেলা সদস্য। মহাসচিব নুরুল ইসলাম জিহাদী বেফাকের নায়েবে আমিরের মতো গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করছেন। নতুন মহাসচিব আল হাইআতুল উলয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশের স্থায়ী কমিটি সদস্যও। তারপরও তাদের দুজনকে হেফাজতের কমিটির শীর্ষ দুটি পদে রাখা হয়েছে। একইভাবে নতুন কমিটির আমির আতাউল্লাহ হাফেজ্জি বেফাকের নায়েবে আমির এবং হাইয়ার স্থায়ী কমিটি সদস্য। কমিটির নায়েবে আমির সালাউদ্দিন নানুপুরী বেফাকের আমেলা সদস্য। নতুন কমিটির যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা সাজেদুর রহমান (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) বেফাকের নায়েবে আমির এবং হাইয়্যার স্থায়ী কমিটির সদস্য। হেফাজতের নায়েবে আমির মাওলানা মুহিব্বুল হক সিলেটের আজাদ দ্বীনি বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের দায়িত্ব পালন করছেন। মাওলানা মুফতি জসিমুদ্দীন বেফাকের সদস্য এবং স্থায়ী কমিটি সদস্য। মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস (ফরিদাবাদ মাদ্রাসা) নতুন কমিটির নায়েবে আমিরের দায়িত্ব পেয়েছেন। তিনি বেফাকের নায়েবে আমির ও স্থায়ী কমিটির সদস্য।

নতুন কমিটির নায়েবে আমির মাওলানা আব্দুল হক বেফাকের নায়েবে আমির ও হাইয়্যার স্থায়ী কমিটি সদস্য। নতুন কমিটির যুগ্ম মহাসচিব আনোয়ারুল করিম বেফাকের নায়েবে আমির। তাছাড়া, নতুন কমিটিতে জামায়াত সমর্থিত আলেমদেরও রাখা হয়েছে। নতুন কমিটির প্রচার সম্পাদক মাওলানা মহিউদ্দীন রব্বানী মসজিদ মিশন কেন্দ্রিক কার্যক্রমে জড়িত এবং ইসলামী ব্যাংকের শরিয়া বোর্ডের সদস্য।

সম্প্রতি সহিংসতাসহ নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের কারণে মামুনুল হক, হারুন এজহারসহ হেফাজত নেতাদের বাদ দেওয়া হয়েছে। অথচ, তাদের আত্মীয়-স্বজনকে এ কমিটিতে ঠাঁই দেওয়া হয়েছে। কমিটিতে শীর্ষ নেতাদের আত্মীয়-স্বজনকেও রাখা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কওমি ঘরানার একজন আলেম বলেন, ‘হেফাজতের নতুন কমিটি কওমি অঙ্গনে গ্রহণযোগ্য হবে না। আলেম-ওলামারা এই কমিটি ঘোষণার পর থেকে ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। নতুন কমিটিতে স্বজনপ্রীতি করে শীর্ষ নেতাদের আত্মীয়-স্বজনদের পদ দেওয়া হয়েছে। কমিটির নতুন আমির মাওলানা জুনায়েদ বাবুনগরী ও মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী আপন মামা-ভাগ্নে। কমিটির নায়েবে আমির মাওলানা সালাউদ্দিন নানুপুরীর ভাই মুহিবুল্লাহ বাবুনগরীর জামাতা। নতুন কমিটির নায়েবে আমির আতাউল্লাহ হাফেজ্জি ও অর্থ সম্পাদক মুফতি হাবিবুর রহমান কাসেমীর জামাতা হলেন হেফাজত থেকে বাদ পড়া বিতর্কিত হারুন ইজহার ও মুসা ইজহার। নতুন কমিটির নায়েবে আমির সালাহউদ্দিন নানুপুরীর ঘনিষ্ট আত্মীয় হলেন খাস কমিটির মাওলানা মুহিবুল্লাহ বাবুনগরী।

স্বাধীনতার রজতজয়ন্তী এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠানের দিন ঢাকাসহ সারা দেশে অরাজনৈতিক কর্মসূচির নামে প্রকাশ্য সহিংসতা ও তাণ্ডব চালায় কওমি সমর্থিত বৃহত্তর অরাজনৈতিক সংগঠন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ। কিছুদিন পর সোনারগাঁওয়ে হেফাজত নেতা মামুনুল হকের রিসোর্টকাণ্ডে আরও বিতর্কিত হয়ে পড়ে সংগঠনটি। এসব ঘটনায় সরকার কঠোর অবস্থান নিলে জড়িতদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা হয়। পরবর্তী সময়ে মামুনুলসহ হেফাজতের অনেক নেতাকে গ্রেপ্তার করা হয়। একপর্যায়ে মামলা ও ধরপাকড় থেকে বাঁচতে হেফাজতের কমিটি বিলুপ্ত করে দিয়ে বাবুনগরী নিজেকে আহ্বায়ক ও নুরুল ইসলাম জিহাদীকে সদস্য সচিব করে পাঁচ সদস্যের একটি আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেন। দীর্ঘদিন পর হেফাজতের বিলুপ্ত কমিটির অধিকাংশ নেতাকে বাদ দিয়ে সোমবার ৩৩ সদস্যের নতুন কমিটি ঘোষণা করে হেফাজত। এই কমিটি নিয়েও এখন বিতর্ক দেখা দিয়েছে। চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

নঈমুদ্দীন/রফিক

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়