ঢাকা, রবিবার, ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ০৭ জুন ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

লকডাউনের সময়ে ফেসবুক সঠিকভাবে ব্যবহারের উপায়

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৪-০৮ ৫:০৪:১৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৪-০৯ ৩:২২:৪২ পিএম

চলাফেরার উপর নিষেধাজ্ঞার তৃতীয় সপ্তাহে পা রেখেছে বাংলাদেশ যার মেয়াদ আরো বাড়তে পারে। তাই অনেকেই সহজভাবে মেলামেশার দিনগুলো মিস করছেন, অনেকেই বিচ্ছিন্ন বোধ করছেন আর বাসায় থেকে পরিবারকে সময় দেয়ার পাশাপাশি অফিস সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন। যেহেতু আমাদের দৈনন্দিন জীবনে একটা বিশাল পরিবর্তন এসেছে তাই সামনের দিনগুলো হতে যাচ্ছে কঠিন পরীক্ষার।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার এই অভ্যাস প্রিয়জন ও বন্ধু-বান্ধবের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ, অফিস মিটিং-এর ধরন, অবসরে শখ ও খেলাধুলায় আমাদের সময় দেয়ার ধরন- সবকিছুই আমূল বদলে দিয়েছে। প্রযুক্তির কল্যাণে সশরীরে কোথাও উপস্থিত থাকতে না পারলেও আমরা চাইলেই ভার্চুয়ালি সবার সাথেই সংযুক্ত থাকতে পারছি। ফেসবুকে কীভাবে সহকর্মী, বন্ধুবান্ধব ও পরিবারের সদস্যদের সাথে আরো মজার উপায়ে সংযুক্ত থাকা যায় তার কয়েকটি উপায় নিচে দেয়া হলো:

বাসা থেকে নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজ করার উপায়: বাড়ি থেকে কাজ করতে হলে মানসিক প্রস্তুতির পাশাপাশি অতিরিক্ত কিছু ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। টিমের প্রতিটি সদস্যের মানসিকতা ও প্রয়োজন বুঝে সে অনুযায়ী কাজ করার প্রস্তুতি থাকতে হবে। যখন টিমের একজন সদস্য অনুপস্থিত থাকবে তখন সে অনুযায়ী পরিকল্পনা করা, সিদ্ধান্ত লিপিবদ্ধ করা এবং স্বঃপ্রনোদিত হয়ে যোগাযোগ করা দরকার। আপনি যেখানেই কাজ করছেন না কেন আপনার সেরা কাজটি করতে সহায়তা করার জন্য ফেসবুক, মেসেঞ্জার এবং ইনস্টাগ্রামে কিছু টুলকিট রয়েছে।

ভিডিও চ্যাট: যখন শুধু টেক্সট মেসেজে কাজ চালানো যায় না তখন মেসেঞ্জারের ভিডিও চ্যাট অপশনটি কাজে লাগিয়ে যেকোনো জায়গা থেকে নির্বিঘ্নে সামনাসামনি মিটিংয়ের মতো অভিজ্ঞতা পেতে পারেন। এই অপশন ব্যবহার করে ভিডিও কলে ৮ জন পর্যন্ত অংশগ্রহণ করতে পারেন, কিন্তু যদি গ্রুপ বড় হয় তাহলেও চিন্তার কিছু নেই। কারণ অডিও কলে ৫০ জন পর্যন্ত যোগ দিতে পারেন। প্রাইভেসি রক্ষার্থে গ্রুপে এক বা একাধিক অ্যাডমিন থাকা ভালো যাতে প্রয়োজনমতো কোনো সদস্যকে যুক্ত কিংবা অপসারণ করা যায় এমনকি অ্যাডমিন-এর প্রবেশাধিকারও নিয়ন্ত্রণ করা যায়। বড় গ্রুপ চ্যাটের ক্ষেত্রে এটি খুব কাজে লাগে যেখানে ফেসবুকে সংযুক্ত নয় এমন অনেক ব্যক্তিই থাকেন। আবার গ্রুপে থাকা সহকর্মীর জন্মদিনের জন্য কোনো সারপ্রাইজ পার্টির পরিকল্পনা করতেও এটি কাজে লাগে।

ওয়ার্কআউটের জন্য সময় রাখুন: ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে কাজ করার ফলে একঘেয়েমি বা ক্লান্তি আসাটাই স্বাভাবিক। এই ক্লান্তি দূর করতে মাঝেমধ্যে একটু হাত-পা ছড়িয়ে কিংবা এক কাপ কফি খেয়ে বিরতি নেয়ার কথা ভুলবেন না। এছাড়াও ম্যাসেঞ্জারে আপনার বন্ধুদের সাথে খেলতে পারেন স্পেস ইনভেডার বা ওয়ার্ডস উইথ ফ্রেন্ডস এর মতো গেম। এই সময় আপনার ফিটনেস বজায় রাখতে ভুলবেন না। উৎসাহ পেতে চাইলে বিডি মাসল অ্যান্ড ফিটনেস-এর মতো ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামের সাথে যুক্ত থাকা কিছু ফিটনেস কমিউনিটিকে ফলো করে তাদের অভিজ্ঞতা নেয়ার পাশাপাশি কীভাবে তারা কোয়ারেন্টাইন সময় কাজে লাগাচ্ছে তা জানতে পারেন।

বন্ধুদের সাথে ওয়াচ পার্টিতে যোগ দিন: এখন যদিও আমরা বন্ধুদের সাথে সিনেমা হলে যেতে পারছি না তবুও বাড়িতে বসেই ওয়াচ পার্টির মাধ্যমে সিনেমা হলের মতো অভিজ্ঞতা চাইলেই পাওয়া সম্ভব। ফেসবুকে যেকোনো সময় যেকোনো জায়গা থেকে হোস্ট করতে পারেন আপনার নিজের ওয়াচ পার্টি। আপনার নিউজ ফিড বা টাইমলাইনে ‘মেইক পোস্ট’ বাটনে ক্লিক করার পর ‘ওয়াচ পার্টি’ অপশনে ক্লিক করে ‘অ্যাড ভিডিও’-তে খুঁজে পাবেন ক্যাটাগরি অনুযায়ী আপনার পছন্দের ভিডিও। আপনার ওয়াচ লিস্টে ভিডিও যোগ করতে ‘অ্যাড টু কিউ’-এ ক্লিক করুন। আপনার ওয়াচ পার্টিতে ক্যাপশন যোগ করে পোস্ট করুন। ‘আপনার ওয়াচ পার্টি শুরু হতে চলেছে’-এমন বার্তা পাওয়ার পর আপনার বন্ধুদের সংযুক্ত করুন এবং উপভোগ করুন ওয়াচ পার্টি।

এই ওয়াচ পার্টির মতোই একটি অপশন খুব শিগগির যুক্ত হতে যাচ্ছে ইনস্টাগ্রামে, যার নাম কো-ওয়াচিং। এই ফিচারটি আপনাকে ভিডিও চ্যাটে বন্ধুদের সাথে ইনস্টাগ্রাম পোস্টগুলো একসাথে দেখার সুযোগ করে দিবে।

ভিডিও চ্যাট করতে আপনার ইনবক্সে বা বিদ্যমান ডিরেক্ট থ্রেডে ভিডিও চ্যাট আইকনটিতে ক্লিক করুন। তারপরে আপনি চলমান ভিডিও চ্যাটের নিচে বাম পাশের ফটো আইকনটিতে ক্লিক করে সেইভ করে রাখা বা লাইক দেয়া এবং সাজেস্টেড লিস্টে থাকা ছবি কিংবা ভিডিও দেখতে পারেন। আপনি এবং আপনার সাথে ভিডিও চ্যাটে থাকা বন্ধুরা একই সাথে ছবি ও ভিডিও দেখতে পারবেন।

বিভিন্ন উপলক্ষে লাইভে যান: আপনি যদি বাড়ি থেকে নিজের ব্যবসা পরিচালনা করেন তবে ফেসবুক লাইভের মাধ্যমে আপনার গ্রাহকদের সাথে সরাসরি সংযুক্ত হতে পারেন। আপনি অতি জরুরী প্রশ্নের তাৎক্ষণিক উত্তর দিতে পারেন, তারা কী ভাবছে তা জিজ্ঞাসা করতে পারেন এবং সরাসরি তাদের প্রতিক্রিয়া দেখতে পারেন। যেহেতু ধর্মীয় গোষ্ঠী এবং সংস্থাগুলো সামাজিক দূরত্বের সময়ে একত্রিত হওয়া থেকে বিরত থাকছে, এই সময় তাদের কাছে পৌঁছানোর বিকল্প হতে পারে ফেসবুক লাইভ।

ধর্মীয় সংস্থাগুলো যেন তাদের কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে পারে সেজন্য ফেসবুক নিয়ে এসেছে ফেইথ টুলকিট নামের একটি ফিচার, এর মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা ভার্চুয়ালি প্রার্থনায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

আপনি চাইলে ফেসবুকে ‘দ্য প্ল্যাটফর্ম’ পেজের সাথে যুক্ত হতে পারেন। এই পেজ এমন একটি প্ল্যাটফর্ম যেখানে যে কেউ ভিডিও পোস্ট করার মাধ্যমে বা পোস্ট লেখার মাধ্যমে তাদের সৃজনশীলতা প্রকাশ করতে পারে। পেজের সদস্যরা গান, গল্প, নাচের ভিডিও, বিভিন্ন রান্নার রেসিপি, ভ্রমণকথা, আঁকানো ছবি ইত্যাদি পোস্ট করতে পারেন কিংবা অন্যরা কী কী শেয়ার করছেন তা দেখতে পারেন।

ইনস্টাগ্রামে স্টিকার ব্যবহার করে কোভিড-১৯ বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধি করুন: ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে নতুন স্টিকারগুলো ব্যবহার করে বন্ধু ও পরিবারের সদস্যদেরকে কোভিড-১৯ সম্পর্কে সচেতনতা এবং সঠিক তথ্য জানাতে পারেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)-এর সাথে মিলে ইনস্টাগ্রাম এসব স্টিকার নিয়ে এসেছে, যার মধ্যে রয়েছে হাত ধোয়া, সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মতো রাখার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

 

ঢাকা/ফিরোজ