ঢাকা     শনিবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১১ ১৪২৭ ||  ০৮ সফর ১৪৪২

টিকটক বিক্রি ঘিরে অনিশ্চয়তা

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:১৬, ২ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
টিকটক বিক্রি ঘিরে অনিশ্চয়তা

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প টিকটককে নিষিদ্ধ করার হুমকি দেওয়ায় জনপ্রিয় এই ভিডিও অ্যাপের আমেরিকান শাখা কেনার আলোচনা মাইক্রোসফট বন্ধ রেখেছে বলে জানা গেছে।

বিবিসির খবরে বলা হয়, টিকটক এবং মাইক্রোসফট বিক্রয় চুক্তির কাছাকাছি ছিল বলে মনে করা হয়েছিল। কিন্তু গত শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্টের সতর্ক বার্তার কারণে বিষয়টি অনিশ্চিয়তার মধ্যে পড়ে গেছে। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের তাদের প্রতিবেদনে জানায়, টিকটকের মালিক চীনা প্রতিষ্ঠান ‘বাইটড্যান্স’ হোয়াইট হাউসের সমর্থন পাওয়ার চেষ্টায় ব্যর্থ হওয়ায় মাইক্রোসফট টিকটক কেনার প্রক্রিয়া এখন বাদ দিয়েছে।

গত শুক্রবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প নির্বাহী আদেশে স্বাক্ষর করে টিকটককে নিষিদ্ধ করবেন বলে হুমকি দেন এবং যুক্তরাষ্ট্রের কাছে বিক্রি হলেও অ্যাপটি তার সমর্থন পাবে না বলে জানান। 

টিকটক নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে এমন ইঙ্গিত গত মাসেই পেয়েছিল বাইটড্যান্স। ফলে ব্যবসা বিক্রি করতে মাইক্রোসফটের সঙ্গে চালাচ্ছিল। কিন্তু টিকটক বিক্রির সেই পথ এখন অনিশ্চয়তায় ভরা।

শর্ট ভিডিও তৈরির অ্যাপ টিকটকের জনপ্রিয়তা বিশ্বব্যাপী দিনকে দিন বেড়ে চলেছে। বিশ্বজুড়ে অ্যাপটির প্রায় অর্ধ বিলিয়ন সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রেও দ্রুতহারে বাড়ছে এই অ্যাপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা। দেশটিতে মাসিক ৮০ মিলিয়ন সক্রিয় টিকটক ব্যবহারকারী রয়েছেন।

তবে অ্যাপটিকে জাতীয় সুরক্ষার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ বলে আসছেন মার্কিন রাজনীতিবিদরা। তাদের দাবি, টিকটক চীন সরকারের সঙ্গে সখ্যতা বজায় রেখে তাদের গোয়েন্দা কার্যক্রমকে সমর্থন ও সহযোগিতা করতে পারে। কিছুদিন আগে এই একই অভিযোগে ভারতে নিষিদ্ধ হয় টিকটক।

অন্যদিকে টিকটক শুরু থেকেই বলে আসছে, তারা চীন সরকারকে কোনো তথ্য সরবরাহ করে না। টিকটকের ডেটা সেন্টারগুলোর কোনোটাই চীনা আইনের অধীনে নয়। আমেরিকায় টিকটক ব্যবহারকারীদের ডেটা আমেরিকাতেই সংরক্ষণ করা হয়। শুধুমাত্র ব্যাকআপ হিসেবে ওই ডাটা সিঙ্গাপুরেও রাখে তারা।

গত শুক্রবার রাতে এয়ার ফোর্স ওয়ানে সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, ‘জাতীয় সুরক্ষার কারণে আমরা টিকটকের দিকে নজর দিচ্ছি। আমরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টিকটককে নিষিদ্ধ করতে যাচ্ছি।’  গতকাল শনিবার এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউসের একজন মুখপাত্র বলেন, ‘জাতীয় সুরক্ষার ক্ষেত্রে টিকটক নিয়ে প্রশাসনের গভীর উদ্বেগ রয়েছে।’

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘হোয়াইট হাউসকে বাইটড্যান্স উল্লেখযোগ্য ছাড় দেওয়ার চেষ্টা করেছিল, ৩ বছরের মধ্যে মার্কিন মালিকানায় টিকটকে হাজার হাজার কর্মসংস্থান তৈরির ব্যাপারটিও রয়েছে।

মার্কিন সফটওয়্যার জায়ান্ট মাইক্রোসফট টিকটকের আমেরিকা শাখা কিনতে আগ্রহী। এর মাধ্যমে সার্চ জায়ান্ট গুগল, সোশ্যাল মিডিয়া জায়ান্ট ফেসবুকসহ অন্য প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে বিনোদনের বাজারে তারা প্রতিযোগিতায় নামতে চায়। টিকটকের আমেরিকা শাখার মূল্য রাখা হয় ১৫ বিলিয়ন ডলার থেকে ৩০ বিলিয়ন ডলারের মধ্যে। ফিন্যান্সিয়াল টাইমসের মতে, বাইটড্যান্সের নির্বাহীরা বিশ্বাস করেন ট্রাম্পের হস্তক্ষেপে মাইক্রোসফট এক্ষেত্রে ভালো একটি চুক্তি করার সুবিধা পেতে পারে। 

তবে মাইক্রোসফটের সঙ্গে সম্ভাব্য চুক্তি নিয়ে টিকটক এতদিন মুখে কুলুপ এঁটে ছিল। রোববার (২ আগস্ট) এক বিবৃতিতে কোম্পানিটির একজন মুখপাত্র বলেন, ‘আমরা গুজব বা জল্পনা নিয়ে কোনো মন্তব্য করি না, আমরা টিকটকের দীর্ঘমেয়াদী সাফল্যে আত্মবিশ্বাসী।’ বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘কোম্পানিটি তাদের ব্যবহারকারীদের গোপনীয়তা এবং সুরক্ষা রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।’

টিকটককে নিষিদ্ধ করার ঘোষণা এমন এক সময় আসলো যখন ট্রাম্প প্রশাসন এবং চীন সরকারের মধ্যে বেশ কয়েকটি ইস্যু নিয়ে তীব্র উত্তেজনা চলছে।

ঢাকা/ফিরোজ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়