ঢাকা     শুক্রবার   ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ ||  আশ্বিন ১০ ১৪২৭ ||  ০৭ সফর ১৪৪২

করোনায় খাদ্য সংকট মোকাবিলায় ভাইবারের উদ্যোগ

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৩৬, ৫ আগস্ট ২০২০   আপডেট: ১০:৩৯, ২৫ আগস্ট ২০২০
করোনায় খাদ্য সংকট মোকাবিলায় ভাইবারের উদ্যোগ

মানুষের টিকে থাকতে প্রয়োজনীয় খাবারের সরবরাহ ব্যবস্থাসহ প্রত্যেক প্রতিষ্ঠান ও সংস্থাকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে কোভিড-১৯ এর বৈশ্বিক মহামারি। গত এপ্রিলে প্রকাশিত ইউএন ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামের এক তথ্য অনুযায়ী, এ বছর বিশ্বজুড়ে অন্তত ২৫.৬ কোটি মানুষ অনাহারে থাকার ঝুঁকিতে রয়েছে, যা গত বছরের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ।

তাই করোনাভাইরাস প্রাক্কালে খাদ্য সংকটের প্রেক্ষিতে বৈশ্বিকভাবে ক্ষুধা মোকাবিলায় যেসব সংস্থা কাজ করছে তাদের সহযোগিতায় নতুন উদ্যোগের ঘোষণা দিয়েছে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ ভাইবার।

এ উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে ইংরেজি ও রুশ ভাষায় ভাইবারের স্টিকার প্যাক এবং ভাইবারের নিজস্ব শিক্ষামূলক ‘ফাইট ওয়ার্ল্ড হাঙ্গার টুগেদার’ কমিউনিটি। প্রথমবারের মতো করা ভাইবারের এ কমিউনিটি ব্যবহারকারীদের অভ্যাসে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে প্রয়োজনীয় নানা বিষয় সম্পর্কে অবহিত করবে, যার মধ্যে রয়েছে খাবার খাওয়া, কেনা-কাটা, রান্না ও খাবারের অপচয় হ্রাস। পাশাপাশি, খাদ্য সংকট সম্পর্কে অবগত হয়ে বিপন্ন জনগোষ্ঠীর খাদ্যপ্রাপ্তিতে সহায়তা করবে এ কমিউনিটি। ভাইবারের মানবিক অংশীদাররা (যাদের প্ল্যাটফর্মটিতে চ্যানেল রয়েছে) এ সংক্রান্ত কনটেন্টগুলোর পরিচালনা করবে।

নির্দিষ্ট ক্যাম্পেইন স্টিকার প্যাক ডাউনলোডের মাধ্যমে ব্যবহারকারীরা আর্থিকভাবে এ উদ্যোগে ভূমিকা রাখতে পারে। খাদ্য সংকট মোকাবিলায় এ মুনাফা দাতব্য তহবিলে দেয়া হবে। এছাড়াও, যেসব মানুষের বর্তমানে অর্থ অনুদানের সুযোগ নেই, সহযোগিতার ক্ষেত্রে তাদের জন্য বিকল্প সুযোগ নিয়ে এসেছে ভাইবার। কমিউনিটিতে যুক্ত হয়ে এ উদ্যোগকে সমর্থন দেয়া এবং পরিবার ও বন্ধুদের আমন্ত্রণ জানানোর মাধ্যমে তারা এ উদ্যোগের অবদান রাখতে পারবেন। সবাইকে এগিয়ে আসতে উৎসাহিত করার জন্য, যখন এ কমিউনিটি ১ মিলিয়ন ব্যবহারকারীতে পৌঁছাবে, ভাইবার এ কার্যক্রমে অনুদান হিসেবে ১০ হাজার মার্কিন ডলার দিবে।

এ নিয়ে ভাইবারে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) জামেল আগাওয়া বলেন, ‘আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে দ্রুতগতিতে বদলে যাচ্ছে বিশ্ব; এবং কোভিড-১৯ বিপন্ন জনগোষ্ঠীকে আরো বিপন্ন করে তুলেছে। খাবারের স্বল্পতা ও ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাওয়া ক্ষুধাজনিত সমস্যা মোকাবিলা করাই এ মুহূর্তে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। এখন অলস বসে থাকার সময় নয়, তাই আমরা এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছি।’

ঢাকা/ফিরোজ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়