ঢাকা, বুধবার, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১১ ডিসেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

পাঁচ বছর পর সাগরিকায় টি-টোয়েন্টি, জিততে মুখিয়ে বাংলাদেশ

ইয়াসিন : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-০৯-১৮ ৯:০৭:১৯ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-০৯-১৮ ৬:০৮:২৭ পিএম

সাগর পাড়ের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সবশেষ কবে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি হয়েছিল, তা মনে করতে পারছিলেন না স্টেডিয়াম সংশ্লিষ্ট অনেকেই। নিয়মিত বিপিএলের ম্যাচ হওয়ায় আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির কথা মনেও নেই অনেকের।

তবে স্টেডিয়ামের কিউরেটর জাহিদ রেজা বাবুর মনে আছে সব, ‘২০১৪ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ সিরিজ খেলেছিল বাংলাদেশ।’ কতটা তীক্ষ্ম তার স্মৃতি, ওই ম্যাচের ফলও বলে দিলেন গড়গড় করে, ‘দু্ই রানে ও তিন‍ উইকেটে ম্যাচ হেরেছিলাম আমরা।’

ওই দুই ম্যাচের পর এখানেই হয়েছিল টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ম্যাচ। যেখানে বাংলাদেশ খেলেছিল বাছাই পর্বের দুই ম্যাচ নেপাল ও হংকংয়ের বিপক্ষে।  নেপালের বিপক্ষে ম্যাচ জিতলেও বাংলাদেশ লজ্জা পেয়েছিল হংকংয়ের বিপক্ষে হেরে। ওই বিশ্বকাপে চট্টগ্রাম পর্বের শেষ ম্যাচ খেলেছিল নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কা। এরপর পাঁচ বছর এখানে হয়নি কোনো টি-টোয়েন্টি।

 

 

দীর্ঘ সময় পর আবার টি-টোয়েন্টি ফিরছে সাগরিকায়। ওয়ানডে, টেস্টের পারফরম্যান্স ও ফলাফলের জন্য এ মাঠকে বলা হয় পয়মন্ত। তবে টি-টোয়েন্টিতে এখানে বাংলাদেশের রেকর্ড হতশ্রী। চার ম্যাচের তিনটিতেই বাংলাদেশ হেরেছে। অতীত রেকর্ড আর বর্তমান সময়ের পারফরম্যান্সের বিচারে সাগরিকায় আজ কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশ, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় আজ জিম্বাবুয়েকে আতিথেয়তা দেবে বাংলাদেশ।  প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে আয়োজিত ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচেই বাংলাদেশ পেয়েছে হারের তিক্ত স্বাদ। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে জয় দিয়ে সিরিজ শুরু করলেও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ হেরেছে সাকিবের দল।

সিরিজে টিকে থাকতে হলে দুই দলের জন্য আজকের ম্যাচটি গুরুত্বপূর্ণ। দুই ম্যাচ খেললেও কোনো জয় পায়নি জিম্বাবুয়ে। দেয়ালে পিঠ ঠেকেছে তাদের।  আজ হারলেই ফাইনালের স্বপ্ন শেষ। আর বাংলাদেশকে যদি আজ তারা হারিয়ে দিতে পারে তাহলে টিকে থাকবে ফাইনালের লড়াইয়ে।

 

 

দুই দলই ছাড় দিতে নারাজ

‘যখন ম্যাচ খেলি প্রত্যেকটা ম্যাচ জেতার জন্য খেলি। আমাদের সামনে আরো তিনটা ম্যাচ আছে, যদি ফাইনাল খেলি। ওভাবে চিন্তা করছি না। আমরা আজকের ম্যাচটা জেতার জন্যই খেলব। আমাদের এই ম্যাচটা জেতা দরকার। আমরা প্রথম ম্যাচ জিতেছি এবং একটা ম্যাচ হেরে গেছি। আজকের ম্যাচটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা জেতার জন্যই খেলব। শতভাগ আক্রমণাত্মক ক্রিকেটটাই খেলব’- ম্যাচের আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন মোসাদ্দেক হোসেন।

‘অবশ্যই এই ম্যাচ আমাদের জিততেই হবে। আসলে দুটি ম্যাচেই আমাদেরকে জিততে হবে। আগের দুটি ম্যাচেই আমরা উভয় দলকে কঠিন চ্যালেঞ্জ দিয়েছি, শেষ ওভার পর্যন্ত টেনে নিয়েছি। ছোট ভুলে আমরা ম্যাচ হেরেছি। এবার আমরা নিজেদের কাজে মনোযোগ দিতে চাই, নিজেদের কাজগুলো করতে চাই নিজেদের জন্য। আমরা জানি ওরা আমাদের আগ্রাসী খেলতে চেষ্টা করবে। দুই দলের চ্যালেঞ্জটি তাই হবে দুর্দান্ত’- বলেছেন জিম্বাবুয়ের স্পিন অলরাউন্ডার শন উইলিয়ামস।

বাংলাদেশকে আত্মবিশ্বাসী করতে পারে এ মাঠে সবশেষ সীমিত পরিসরের পারফরম্যান্স। গত বছর অক্টোবরে জিম্বাবুয়েকে আতিথেয়তা দিয়ে এ মাঠে স্রেফ উড়িয়ে দিয়েছিল বাংলাদেশ।  ত্রিদেশীয় সিরিজে স্বরূপে ফিরতে তেমনই একটি জয় চায় বাংলাদেশ। পারবে কি বাংলাদেশ? উত্তর জানা যাবে রাতেই।


চট্টগ্রাম/ইয়াসিন/পরাগ

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন