Breaking News
রাজধানী সুপার মার্কেটে আগুন
X
ঢাকা, বুধবার, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২০ নভেম্বর ২০১৯
Risingbd
সর্বশেষ:

৪৪০ দিনই ইনজুরিতে নেইমার

ক্রীড়া ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০১৯-১০-১৪ ১১:৩২:১৮ এএম     ||     আপডেট: ২০১৯-১০-১৪ ১:৩৬:০০ পিএম

ব্রেকিং নিউজ দেওয়ার প্রয়োজন আছে কি? মোটেও না। এ যেন প্রতিদিনের খবর।

বিশ্ব নন্দিত ফুটবলার নেইমার মাঠে নামলেই যেমন ব্রাজিলিয়ান ফুটবল সৌন্দর্য ফুটে উঠে, ঠিক তেমনি মাঠে নামলেই ইনজুরিতে পড়েন এই মহা তারকা!

রোববার সিঙ্গারপুরের দ্য ন্যাশনাল স্টেডিয়ামে মাঠে নেমেছিলেন ব্রাজিলের জার্সিতে। নাইজেরিয়ার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে ব্রাজিল ১-১ গোলে ড্র করেছে। পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের হতাশার দিনে আবারও চোট পেয়েছেন নেইমার। নেইমারের ইনজুরির খবরে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই! কেনই বা থাকবে। এ যেন প্রতিদিনকার খবর।

এ বছরের পুরোটা সময় তো ইনজুরিতেই কাটিয়েছেন। চলতি বছরের ২৮৫ দিনের ১৭৫ দিনই নেইমার ছিলেন ইনজুরিতে।

সিঙ্গারপুরের ম্যাচটি তখন মাত্র ১২ মিনিট গড়িয়েছে, খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটতে শুরু করেন নেইমার। বোঝা যাচ্ছিল হ্যামস্ট্রিংয়ে টান পড়েছে তার। মাঠ থেকে তখনই উঠে যান পিএসজির তারকা। তার পরিবর্তে নামেন কৌতিনহো। ব্রাজিল কিংবা পিএসজি এখনও নেইমারের ইনজুরির সবশেষ অবস্থা জানাননি। তবে মার্কা বলছে, লিগ ওয়ান কাপে নিচ এর বিপক্ষে এবং চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ২২ অক্টোবরের ম্যাচ মিস করবেন নেইমার। সপ্তাহ খানেকের বেশি তাকে মাঠের বাইরে থাকতে হচ্ছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

ইনজুরিপ্রবণ নেইমারের জন্য মাঠে বাইরে থাকা বেশ বিব্রতকর। ক্যারিয়ারে তার গোলের থেকে ইনজুরিতে মাঠের বাইরে থাকার দিনই বেশি! পুরো ক্যারিয়ারে ১৬ বার ইনজুরিতে পড়েছেন। ২০১৪ সালের ১৬ জানুয়ারি থেকে রোববার পর্যন্ত কেটেছে ৫ বছর ৮ মাস ও ২৮ দিন। আরও ভেঙে বললে মোট ২ হাজার ৯৭ দিন। এ সময়ে নেইমারকে মাঠের বাইরে থাকতে হয়েছে ৪৪০ দিন। ভাবা যায়? ক্লাব ও জাতীয় দল মিলিয়ে ২৭৭ ম্যাচে ২৯১ গোল করেছেন নেইমার। আর ইনজুরির কারণে শেষ ক্যারিয়ারের ৪৪০ দিন।

২০১৪ সালের ১৬ জানুয়ারিতে অ্যাঙ্কেল ইনজুরিতে পড়েন নেইমার। মাঠের বাইরে তাকে থাকতে হয় ৩২ দিন। ওই বছরের ১৭ এপ্রিল পায়ের ইনজুরিতে ২৫ দিন মাঠের বাইরে চলে যান। জুলাইয়ে স্পাইন ইনজুরিতে মাঠের বাইরে আবারো ৩২ দিন। সুস্থ হয়ে ফিরে বেশিদিন খেলতে পারেননি। পহেলা আগস্ট স্পাইন্ড অ্যাঙ্কেলের চোটে ৭ দিন অলস সময় কাটাতে হয় তার। ২০১৪ সালে চার ইনজুরিতে নেইমারের জীবন থেকে কেটে যায় ৯৬ দিন!

২০১৫ সালের পুরো বছর ভালোই কেটেছে তার। বছরের শেষ মাসে দুবার থাই মাসল ইনজুরিতে পড়েন। মাঠের বাইরে ছিলেন ১৮ দিন। ওই ইনজুরি নিয়ে পরের বছর শুরু করেন। জানুয়ারিতে আরও ৭দিন মাঠের বাইরে এবং বছর শেষে একই কারণে সমান দিন বিশ্রামে ছিলেন ব্রাজিলিয়ান সুপারস্টার।

২০১৭ সালে মার্চে তার লেগ মাসল ইনজুরি ধরা পড়ে। ৭দিন চলে যায় সেখানেই। ওই বছরের সেপ্টেম্বরে ও নভেম্বরে শারীরিক অসুস্থতায় ১৫ দিন ছিলেন মাঠের বাইরে। শেষ দুই বছরে ক্যারিয়ারের সব থেকে বড় ধাক্কাগুলো হজম করতে হয় নেইমারের।

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে ডান পায়ের গোড়ালি মচকে যাওয়া এবং পঞ্চম ‘মেটাটারসাল’ হাড় ভেঙে যাওয়ায় ২৭ বছর বয়সি এ তারকাকে ৯০ দিন মাঠের বাইরে থাকতে হয়। ওই সময়ে অস্ত্রোপচারও করাতে হয়েছিল তাকে। ওই বছরের শেষে সংযোজক পেশীর চোটে আবার ২৫ দিন খেলতে পারেননি। চলতি বছর তার যাত্রা শুরু হয় ২৫ দিনের ইনজুরি দিয়ে। পায়ের চোটে মাঠের বাইরে ছিলেন। ৭ জুন গোড়ালির লিগামেন্ট ছিঁড়ে যায় তার। এক ঝাটকায় ৯০ দিন নেই নেইমারের। সবশেষ যুক্ত হলো হ্যামস্ট্রিং ইনজুরি।

রেকর্ড ট্রান্সফারে নেইমারকে বার্সেলোনা থেকে উড়িয়ে এনেছিল পিএসজি। পিএসজিতে যোগ দেওয়ার পর এটা তাঁর নবম চোট। প্রথম আট চোটে দুই বছরে ৪০ ম্যাচ খেলতে পারেননি বিশ্বের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড়। এবার কয় ম্যাচ হাতছাড়া হয় সেটাই দেখার।



ঢাকা/ইয়াসিন/টিপু

ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন