ঢাকা, শুক্রবার, ১৪ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

ভারত সফর থেকেই ডমিঙ্গো-মাহমুদউল্লাহ’র বিশ্বকাপ পরিকল্পনা

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০১-২১ ৩:২৫:২৯ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০১-২১ ৬:১১:২৫ পিএম

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে এ বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের অধিনায়ক হিসেবে দেখতে চান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

নিষেধাজ্ঞার কারণে থাকবেন না সাকিব আল হাসান। টি-টোয়েন্টিতে সিনিয়র ক্রিকেটার হিসেবে আছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম ও তামিম ইকবাল। এই তিন ক্রিকেটারের মধ্যে মাহমুদউল্লাহকে আগামী টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে অধিনায়ক হিসেবে চাইছেন প্রধান কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। শুধু অভিজ্ঞতার বিবেচনায় নয়, মাহমুদউল্লাহর দল পরিচালনায় মুগ্ধ হয়ে তার কাঁধে দলের দায়িত্ব দিতে চান দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ।

টি-টোয়েন্টিতে সাকিবের পর স্থায়ী অধিনায়ক পায়নি বাংলাদেশ। ভারত সফরে মাহমুদউল্লাহ ছিলেন কাণ্ডারী। এবার পাকিস্তান সফরেও তাই। দীর্ঘ মেয়াদে কিংবা বিশ্বকাপে অধিনায়কত্ব করা নিয়ে কী ভাবছেন জাতীয় দলের এ তারকা ক্রিকেটার?

‘আমি এখনো জানি না। আমাকে এ (পাকিস্তান) সিরিজের জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আমি আমার দায়িত্বটা পুরোপুরি পালন করার চেষ্টা করব। যেহেতু সিরিজ বাই সিরিজ অধিনায়কের দায়িত্বটা আসছে…ডমিঙ্গোর যদি আমার উপর আস্থা রাখেন তাহলে অবশ্যই তাকে অনেক ধন্যবাদ।’

তবে দীর্ঘমেয়াদে অধিনায়কত্বের পক্ষে মাহমুদউল্লাহও। তার মতে, ‘পূর্ণ মেয়াদে অধিনায়কত্ব পাওয়া গেলে পরিকল্পনা সাজাতে অনেক সুবিধা হয়। যদিও এটা সম্পূর্ণ বোর্ডের সিদ্ধান্ত। ’

এর আগে গত রোববার মিরপুরে সংবাদমাধ্যমকে ডমিঙ্গো বলেন, ‘আমি আশা করছি মাহমুদউল্লাহ আমাদেরকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নেতৃত্ব দেবে। আমার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে তার প্রতি। আমি মনে করি মাহমুদউল্লাহ ভারতে দারুণ কাজ করেছে। তার সঙ্গে কাজ করাটা আমি উপভোগ করেছি। দারুণ পেশাদার। ড্রেসিংরুমে তাকে সবাই শ্রদ্ধা করে এবং তার ব্যক্তিত্ব সবাই পছন্দ করে। বলার অপেক্ষা রাখে না বিশ্বমানের একজন খেলোয়াড়ও সে। আমার অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।’

মাহমুদউল্লাহ আজ জানালেন ভারত সফর থেকে ডমিঙ্গোর সঙ্গে বিশ্বকাপ পরিকল্পনা করে আসছেন তিনি। পাকিস্তান সফরের দল নিয়েও বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ও ডমিঙ্গো সঙ্গে তার আলাপ-আলোচনা হয়েছে।

‘আমার মনে হয় রাসেল খুবই অভিজ্ঞ কোচ এবং সে খুব ভালোভাবে জানে যে কিভাবে দলের প্রত্যেকের সঙ্গে কাজ করতে হয়। আমার মনে হয় সবাই ওই জিনিসটা বুঝে এবং তার পরামর্শ অনুযায়ী কাজ করার চেষ্টা করছে। ’

‘দল নিয়ে কম বেশি সবার সঙ্গে কথা হয়েছে। ভারত সিরিজ চলাকালিন আমার রাসেলের সঙ্গে কথা হয়েছে। সামনের বিশ্বকাপের জন্য কিভাবে টি-টোয়েন্টি দল সাজানো যায় ওই জিনিসগুলো নিয়ে কথা হয়েছে কোচের সঙ্গে। সবার জন্য সুযোগ আছে। কে কখন সুযোগগুলো কাজে লাগিয়ে নিজেদের জায়গা পাকাপাকি করতে পারবে সেই জিনিসটাই এখন গুরুত্বপূর্ণ। ’

বিশেষ সময়ে মাহমুদউল্লাহ অধিনায়কত্ব করেছেন জাতীয় দলের। তার অধীনে ৮ ম্যাচে দল জিতেছে ২টিতে। তবে আপদকালিন সময়ে তার দলকে পরিচালনা করার সাহস ও দক্ষতা সর্বমহলে প্রশংসিত। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনিয়মিত হলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে নিয়মিত অধিনায়কত্ব করে আসছেন মাহমুদউল্লাহ।


ঢাকা/ইয়াসিন/আমিনুল

     
 
রাইজিংবিডি স্পেশাল ভিডিও