ঢাকা, রবিবার, ১৪ চৈত্র ১৪২৬, ২৯ মার্চ ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

প্রশ্ন শুনেই ‘বিরক্ত’ তাইজুল!

ক্রীড়া প্রতিবেদক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০২-১৮ ৪:৪৭:২০ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০২-১৮ ৯:১৫:৩০ পিএম

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অস্ত্র বাঁহাতি স্পিন।

দীর্ঘকাল ধরেই বাংলাদেশের বাঁহাতি স্পিনে নীল হয় জিম্বাবুয়ে। অতীত রেকর্ড আর বর্তমান সাফল্যের পরিসংখ্যান বলছে বাঁহাতি স্পিনে একেবারেই নড়বড়ে জিম্বাবুয়ে।

এনামুল হক জুনিয়রের কথা তো ভুলবার নয়। তার হাত ধরেই টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম জয় বাংলাদেশের, প্রতিপক্ষ জিম্বাবুয়ে। ২০০৫ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৩ টেস্ট খেলেছেন এনামুল। ২২.৭৬ গড়ে উইকেট পেয়েছেন ২১টি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের দীর্ঘদিন পর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে পথ চলা শুরু সাকিব আল হাসানের। ২০১১ সালে প্রথম জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলেন প্রথম টেস্ট। ২০১৪ পর্যন্ত জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার টেস্ট খেলেছেন ৬টি। তার বোলিং সাফল্যও অসাধারণ। ২৩.২৬ গড়ে ৬ টেস্টে সাকিবের শিকার ২৬ উইকেট।

তবে সবাইকে ছাড়িয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে নিজেকে ভিন্নগ্রহে নিয়ে গেছেন তাইজুল ইসলাম। রয়েছেন সাফল্যর চূড়ায়। ২৮ টেস্টে ১০৮ উইকেট পাওয়া তাইজুল জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৫ টেস্টেই পেয়েছেন ৩৫ উইকেট। বোলিং গড়ও সবার ওপরে। ২১.১১! জিম্বাবুয়ের মতো-ই ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষেও তাইজুল খেলেছেন ৫ টেস্ট। ক্যারিবিয়ানের বিপক্ষে তার উইকেট ২১টি।

স্বভাবতই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে আরেকটি টেস্টের আগে তাইজুলকে নিয়ে আগ্রহ বেশি। তাইতো গণমাধ্যমের জানতে চাওয়া, সাফল্যর হার যাদের বিপক্ষে বেশি তাদেরকে আবার প্রতিপক্ষ হিসেবে পেয়ে কেমন লাগছে? এমন প্রশ্নে বেশ বিরক্ত হয়ে উঠেন তাইজুল।

অনুশীলনের ফাঁকে গণমাধ্যমে কথা বলতে এসে তাইজুল বলেন, ‘এ কথাটা আসলে ভালো লাগল না। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শুধু উইকেট পেয়েছি তেমনটা তো না। আরও অনেক দলের সঙ্গে খেলে উইকেট পেয়েছি।’

প্রতিটি সাফল্যের জন্য অক্লান্ত পরিশ্রম করতে হয়। প্রতিটি উইকেটের জন্য তৈরি করতে হয় সুযোগ। দীর্ঘ পরিকল্পনা আর নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে আসে সাফল্য। প্রতিপক্ষ আর ব্যাটসম্যান বিবেচনা করে সাফল্য পাওয়া যায় না মোটেও। সাফ জানিয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার।

‘আপনি যাদের বিপক্ষে-ই খেলেন…ভালো জায়গায় বল না করলে কখনোই সফল হবেন না। জিম্বাবুয়ে একেবারে খারাপ দল তাও কিন্তু না। ভালো জায়গায় বল না করলে ব্যাটসম্যানরা শাসন করবেই। ভালো জায়গায় বোলিং করলে অনেক সুযোগ আসবে, উইকেটও আসবে। যেটা দলের জন্য ভালো।’ – বলেছেন তাইজুল।


ঢাকা/ইয়াসিন/কামরুল