ঢাকা, বুধবার, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭, ২৭ মে ২০২০
Risingbd
সর্বশেষ:

ব্যতিক্রমী এক মজার খেলা ‘স্লিপারি স্টেয়ার্স’ (ভিডিও)

ক্রীড়া ডেস্ক : রাইজিংবিডি ডট কম
     
প্রকাশ: ২০২০-০৫-২৩ ১২:২৯:২৫ পিএম     ||     আপডেট: ২০২০-০৫-২৩ ১:০৮:২৪ পিএম

বিশ্বজুড়ে জাপানিদের আলাদা সংস্কৃতি ও বিনোদনের মাধ্যমের জন্য দারুণ খ্যাতি আছে। এরমধ্যে জাপানিজদের পপ সংস্কৃতির নাম উঠে আসে। তবে ধারণা করা হয়, জাপানিজদের অন্য সব আকর্ষণীয় কীর্তির মতো যদি তাদের অদ্ভুত সব খেলাধুলা বিশ্বজুড়ে প্রচার করা হতো। তবে সবকিছু ছাড়িয়ে জাপানিজদের খেলাগুলো দর্শকপ্রিয়তা পেত সবচেয়ে বেশি।

জাপানিজদের তেমনই এক অদ্ভুত রকমের মজার খেলার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিবো আজ। এর জাপানিজ নাম সম্বন্ধে জানা না গেলেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই খেলা ‘স্লিপারি স্টেয়ার্স’ নামে পরিচিত।

২০১৬ সালে প্রথমবারের মতো এর একটা ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইউটিউব এর কল্যাণে ছড়িয়ে পড়ে। যেখানে দেখা যায় ৬ জন জাপানিজ তারকা একটা লুব্রিকেন্টে পূর্ণ সিড়ি বেয়ে বেয়ে অতিক্রমের চেষ্টা করছেন। আর অধিক লুব্রিকেন্টের কারণে সিড়িতে ভারসাম্য রাখতে না পেরে পিছলিয়ে পড়ে যাচ্ছেন। এই খেলা মূলত জাপানিজদের প্রতি বছরে আয়োজিত ‘অল স্টার কানশাই’ নামক প্রোগ্রামে খেলা হয়ে থাকে।

তবে তখনও বিশ্বজুড়ে এর ব্যাপক পরিচিতি আসেনি। ২০১৭ সালের দিকে এর একটা ছোট ক্লিপ ভাইরাল হয়ে পড়ে বিশ্বজুড়ে, তখন ইন্টারনেটের হট টপিক হয়ে ওঠে ‘স্লিপারি স্টেয়ার্স’।

এই খেলায় সাধারণত ছয়জন প্রতিযোগী থাকে। যাদের শরীরে প্লাস্টিক জাতীয় এক ধরনের পোষাকে জড়ানো থাকে। যা লুব্রিকেন্টের ছোঁয়ায় অনেক বেশি পরিমাণে পিচ্ছিল হয়ে ওঠে। এছাড়া যে সিড়ি দিয়ে ওঠা হয়, সেই সিড়ি সম্পূর্ণ প্লাস্টিকে মোড়ানো থাকে। আর এতে অনবরত লুব্রিকেন্ট দেওয়া হয়। ফলে প্রচুর পিচ্ছিলতার মাঝে ভারসাম্য ধরে রেখে এর মাঝে অ্যাথলেটদের সিড়ি বেয়ে একদম উপরে উঠতে হয়। যে সবার আগে সব সিড়ি বেয়ে উপরে উঠতে পারেন তিনি হন বিজয়ী। এই খেলায় অ্যাথলেটরা চাইলে তার সহযোদ্ধাকে ধাক্কা দিয়েও ফেলে দিতে পারেন।

এই খেলা দর্শকদের জন্য চরম বিনোদনের খোরাক দেয়। কারণ, প্রতিযোগীরা প্রতি মুহূর্তে লুব্রিকেন্টের কারণে পিছলিয়ে পড়তে থাকে। দেখা যায়, কোনো প্রতিযোগী শেষ সিড়িতে উঠে পিছলিয়ে পড়তে শুরু করে। আর তখন নিচে থাকা সব প্রতিযোগী তার সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে পথভ্রষ্ট হয়। তবে এই খেলায় প্রতিযোগীদের সুরক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে করা হয়। ফলে কোনো প্রতিযোগী বারবার পিছলিয়ে পড়লেও আঘাত পাওয়ার ভয় থাকে না।

 

ঢাকা/কামরুল