ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ১৩ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৯ ১৪২৭ ||  ২২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

ক্রিকেট মাঠে বাবা-ছেলের অনন্য নজির

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৬:১১, ১৬ জুলাই ২০২০  
ক্রিকেট মাঠে বাবা-ছেলের অনন্য নজির

ক্রিকেট মাঠে ঘটল অনন্য এক ঘটনা। প্রথমবারের মতো টেস্টে ম্যাচ রেফারি বাবার সামনে খেলছেন ক্রিকেটার সন্তান। ঘটনাটি ঘটেছে ওল্ড ট্রাফোর্ডে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের দ্বিতীয় টেস্টে। যেখানে ম্যাচ রেফারি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ক্রিস ব্রড। তারই একমাত্র সন্তান স্টুয়ার্ট ব্রড ইংলিশদের প্রতিনিধিত্ব করছেন। ব্রড পরিবারের জন্য নিশ্চয়ই দিনটি বেশ স্পেশাল।

ইংল্যান্ড ক্রিকেট ইতিহাসে টেস্টে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি বোলার স্টুয়ার্ট ব্রড। বর্তমানে দলের সবচেয়ে পুরনো সদস্যদের একজনও। করোনা সঙ্কট কাটিয়ে ক্রিকেট ফেরার ম্যাচে সাউদাম্পটন টেস্টে সুযোগ পাননি তিনি। যার কারণে দীর্ঘ আট বছর পর ঘরের মাঠে কোনো টেস্ট মিস করেছেন এই ডানহাতি পেসার। তবে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে আবার ফিরছেন দলের পেস আক্রমণের নেতৃত্ব দিতে। আর এই ম্যাচে মাঠে নামার মধ্য দিয়ে এই অনন্য অর্জনের সাক্ষী হলেন তিনি।

এদিকে ব্রডের বাবা ক্রিসও ইংলিশ ক্রিকেটের জার্সি গায়ে খেলেছেন। তবে চার বছরের বেশি স্থায়ী হয়নি সেটি। মাঠ ছাড়লেও ক্রিকেট ছাড়েননি ক্রিস ব্রড। ক্রিকেটে ফেরেন ম্যাচ রেফারি হয়ে। বর্তমানে আইসিসির এলিট প্যানেলের সাত ম্যাচ রেফারির একজন তিনি। সাউদাম্পটনের পর ওল্ড ট্র্যাফোর্ডেও ম্যাচ রেফারির দায়িত্ব পালন করছেন ক্রিস। আর এর মাধ্যমে ব্রড পরিবার ক্রিকেট মাঠে গড়লেন অনন্য নজির।

ইতিপূর্বে এমন ঘটনার সাক্ষী হয়নি ক্রিকেট। বলা চলে, হওয়ার সুযোগও মেলেনি। ১৯৯৪ সাল থেকে ক্রিকেট মাঠে ম্যাচ রেফারির দায়িত্ব পালনের শুরু হয়। তবে আইসিসি এলিট প্যানেল চালু করে ২০০২ সালে প্রথম। তখনই নিয়ম করা হয়, ম্যাচের রেফারি সবসময় নিরপেক্ষ হতে হবে। এজন্য ১৯৮৯ সালে ক্রিকেট ছাড়া ক্রিস ব্রড ম্যাচ রেফারি হিসেবে ২০০৩ সালে পথচলা শুরু করেও ইংল্যান্ডের ম্যাচের রেফারির দায়িত্ব পালনের সুযোগ পাননি।

তবে সে চিত্র বদলে দেয় করোনাভাইরাস। প্রাণঘাতি এই মহামারির কারণে নিজ দেশের বাইরে ম্যাচ পরিচালনার জন্য ভ্রমণ করা ঝুঁকিপূর্ণ। যার কারণে আইসিসি নিরপেক্ষ ম্যাচ রেফারির ধারণা থেকে সরে আসে। এ কারণে ৯৭ টেস্টে রেফারির দায়িত্ব পালন করা ক্রিস সাউদাম্পটনে ম্যাচে রেফারির সুযোগ পান। অবশ্য ক্রিস ছাড়া সুযোগও ছিল না আইসিসির সামনে। আইসিসির এলিট প্যানেলের সাত ম্যাচ রেফারির মধ্যে একমাত্র ইংলিশ তিনি।

দ্বিতীয় টেস্টেও দায়িত্ব পেয়েছেন ক্রিস। এবার টেস্টে খেলার সুযোগ পেয়েছেন স্টুয়ার্ট। তাইতো বাবা-ছেলে নাম তুললেন রেকর্ড বুকে। ১৩৮ টেস্টে ৪৮৫ উইকেট পাওয়া স্টুয়ার্ট খেলতে নামলেন বাবার সামনে। অন্যদিকে ৯৯ ম্যাচে এসে ছেলেকে কড়া নজরদাড়ির সুযোগ পেলেন ক্রিস।

উইজডেন ট্রফি খ্যাত ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের প্রথম ম্যাচে জিতে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে আছে সফরকারীরা। এখন দেখার বিষয় অনন্য নজির গড়া এই ম্যাচে বাবা-ছেলের জুটি কি সৌভাগ্য বয়ে আনতে পারবে ইংল্যান্ডের জন্য!


ঢাকা/কামরুল

রাইজিংবিডি.কম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়