Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৭ জুলাই ২০২১ ||  শ্রাবণ ১২ ১৪২৮ ||  ১৪ জিলহজ ১৪৪২

মাশরাফির সাফল্যের রহস্য জানালেন খুলনার কোচ

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:২৩, ১৬ ডিসেম্বর ২০২০   আপডেট: ১১:২৮, ১৬ ডিসেম্বর ২০২০
মাশরাফির সাফল্যের রহস্য জানালেন খুলনার কোচ

টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে প্রথমবারের মতো পাঁচ উইকেট পেয়ে মাশরাফি বিন মুর্তজা নিজের দল খুলনাকে তুলেছেন বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপের ফাইনালে। দলটির কোচ মিজানুর রহমান বাবুল জানালেন, অভিজ্ঞতাই মাশরাফিকে এগিয়ে এনেছে এতদূর। প্রথম কোয়ালিফায়ারের মতো ফাইনালেও মাশরাফির দিকে তাকিয়ে শিরোপা প্রত্যাশি দলটি।

হ্যামস্ট্রিং চোটে টুর্নামেন্টে মাশরাফির অংশগ্রহণ নিয়ে ছিল অনিশ্চতায়। সকল বাধা পেরিয়ে মাশরাফি মাঠে ফিরেন প্রায় দশ মাস পর। গ্রুপ পর্বের লড়াইয়ে দুই ম্যাচ খেলার সুযোগ হয়েছিল তার। দুই ম্যাচে দুই উইকেট নিয়ে ছিলেন মিতব্যয়ী। লাইন ও লেন্থ ঠিক রাখার চ্যালেঞ্জ ছিল বেশি। মাশরাফি সেটি করেছিলেন সিদ্ধহস্তে। সেই ধারাবাহিকতায় পরের ম্যাচে পেয়ে যান ৫ উইকেট। তার টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে যা সর্বোচ্চ।

ঘরোয়া-আন্তর্জাতিক মিলিয়ে ১৫ বছরের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে মাশরাফি দুইবার ৪ উইকেট পেয়েছেন।ক্যারিয়ারের প্রায় পড়ন্ত বেলায় মাশরাফির পকেটে যায় ৫ উইকেট। মিজানুর রহমান বাবুল জানালেন, বৈচিত্র্যপূর্ণ বোলিংয়ে এসেছে মাশরাফির সাফল্য। তার ভাষ্য, ‘এখন বোলারদের চেঞ্জ অব পেস অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আমার মতে, সহজাত বোলিংয়ের থেকেও চেঞ্জ অব পেস অনেক বেশি কার্যকরী এবং ফলপ্রসূ। যারা এটা ব্যবহার করতে পারে তারা সফল হচ্ছে। মাশরাফি আরো বেশি অভিজ্ঞ, নতুন বলেও সে সহজাত গতির পরিবর্তন করতে পারে। লেগ কাটার, অফ কাটার মারতে পারে। এই অভিজ্ঞতা দিয়েই মাশরাফি শেষ ম্যাচে পাঁচ উইকেট নিয়ে নিয়েছে।'

২১১ রানের পুঁজি পেয়ে চট্টগ্রামের বিপক্ষে খানিকটা এগিয়ে ছিল খুলনা। মাশরাফি প্রথম দুই ওভারে দুই ইনফর্ম ওপেনার সৌম্য ও লিটনকে আউট করে খুলনাকে আরও এগিয়ে নেন। পরবর্তীতে তার শিকার মাহমুদুল হাসান জয়, শামসুর রহমান ও মোস্তাফিজুর রহমান। ৩৫ রানে মাশরাফির শিকার ৫ উইকেট। এর আগে ২০১২ সালের জুলাইয়ে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে বেলফাস্টে ১৯ রানে পেয়েছিলেন ৪ উইকেট। ২০১৮ সালের বিপিএলে রংপুর রাইডার্সের হয়ে ১১ রানে উইকেট পেয়েছিলেন ৪টি। এবার সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেলেন।

মাশরাফিকে নিয়ে কোচ আরও বলেন, ‘মাশরাফিকে নিয়ে বলার কিছু নেই। মাশরাফি ইজ মাশরাফি। এতদিন পরে এসে এরকম পারফরম্যান্স, পাঁচ উইকেট নেওয়া। তার পড়ন্ত বেলায় (ক্যারিয়ারের) এমন পারফরম্যান্স আমাদের দলের জন্য অনেক উপকার হয়েছে। আমরা তাকে লটারিতে পেয়েছি, তাকে পেয়ে আমাদের বোলিং বিভাগ আরো বেশি ভাল হয়েছে।আমরা ফাইনালেও তার ভালো পারফরম্যান্সের দিকে তাকিয়ে থাকব।’

ঢাকা/ইয়াসিন

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়