Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     সোমবার   ০১ মার্চ ২০২১ ||  ফাল্গুন ১৬ ১৪২৭ ||  ১৫ রজব ১৪৪২

সৌম্যর ঠিকানা সাতে

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৪৭, ১৮ জানুয়ারি ২০২১  
সৌম্যর ঠিকানা সাতে

পারফরম্যান্সের মতো সৌম্য সরকারের ব্যাটিং পজিশন ‘মিউজিক্যাল চেয়ারের’ মতো ঘুরছে! কখনও তার ব্যাট হাসে, কখনও থাকে নিষ্প্রভ। একইভাবে কখনও তিনি ব্যাটিং করেন ওপরে। কখনও আবার নিচে। পারফরম্যান্স কিংবা দলের প্রয়োজনের তার ব্যাটিং পজিশনে আসে পরিবর্তন। নতুন পজিশনে সৌম্য কখনও মানাতে পারেন, কখনও পারেন না। স্থির হতে না পারায় তার সেরা পারফরম্যান্সও বের হয় না, এমন ভাবনা অনেকেরই। এবার সৌম্যর জন্য আদর্শ পজিশন নির্ধারণ করলেন বাংলাদেশের কোচ রাসেল ডমিঙ্গো।

দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ জানালেন, সৌম্য ব্যাটিং করবেন সাত নম্বরে। আজ রোববার দলের অনুশীলন শুরুর আগে বাংলাদেশের কোচ এই ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং পজিশন নিয়ে তিনি বলেন, ‘এ মুহূর্তে টপ অর্ডার প্রতিষ্ঠিত। তামিম ও লিটন ওপেনিং পজিশনে থিতু হয়ে আছে। আমরা সৌম্যকে মধ্যভাগে দেখতে চাই। আমরা এমন কাউকে চাই যে কিনা ইনিংসের শেষ ভাগে ঝড় তুলতে পারে।’

নতুন ভূমিকায় সৌম্যকে নিয়ে আশাবাদী ডমিঙ্গো, ‘আমি জানি সৌম্য সব সময় ইনিংসের শুরুতে ব্যাটিং করেছে। আমরা এখন এমন খেলোয়াড় চাই যে কিনা নতুন ভূমিকায় দ্রুত মানিয়ে নিতে পারবে। এ সময়ের মধ্যে বিশ্বকাপ চলে আসবে এবং আশা করছি তখন সব পজিশনের জন্য ভালোমানের খেলোয়াড় তৈরি করা যাবে।’

সৌম্য ও মাহমুদউল্লাহকে ফিনিশার হিসেবে দেখতে চান দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ, ‘এ মুহূর্তে সৌম্য ও মাহমুদউল্লাহর ব্যাটে ইনিংসের শেষ দেখতে চাই। সৌম্য অভিজ্ঞ ও বল উড়াতে সক্ষম। আমার আস্থা অর্জন করেছে সে। আশা করছি তারা দুইজন ভালো পারফরম্যান্স দিতে পারবে। এটাও সত্যি যে ৬ ও ৭ নম্বর পজিশনে ব্যাটিং করা কঠিন। এ সময়ে কখনও কখনও ওভারপ্রতি ১০ রান করে প্রয়োজন হয় এবং ভালো বলও শাসন করতে হয়। কঠিন পজিশন বলেই সবার উচিত ধৈর্য ধরা এবং তাকে সাচ্ছন্দ্যে ব্যাটিং করতে দেওয়া।’

২০২৩ বিশ্বকাপের ভাবনা ও পরিকল্পনা থাকলেও এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন না ডমিঙ্গো। শিষ্যদের বিভিন্ন পরীক্ষায় ফেলে বাজিয়ে দেখতে চান তিনি। বিশ্বকাপের ছয় থেকে আট মাস আগে ছেলেদের নির্দিষ্ট জায়গায় থিতু করার পরিকল্পনা ডমিঙ্গোর, ‘বিশ্বকাপ এখনও তিন বছর দূরে। তবে সময়টা চোখের পলকে কেটে যাবে। এ সময়ে আমরা বিভিন্ন পজিশনে খেলোয়াড়দের পরীক্ষা নেবো। এমন পজিশনে, যেখানে হয়তো তারা আগে কখনও খেলেনি। তবে বিশ্বকাপের ছয় থেকে আট মাস আগে আমরা তাদের জায়গা চূড়ান্ত করে দেবো। বিশ্বকাপের আগ পর্যন্ত অন্তত ২০টি ওয়ানডে খেলার সুযোগ পাবো। ওই ম্যাচগুলো হবে ভালো করার আদর্শ জায়গা।’

ঢাকা/ইয়াসিন/ফাহিম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়