Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ১৩ এপ্রিল ২০২১ ||  চৈত্র ৩০ ১৪২৭ ||  ২৯ শা'বান ১৪৪২

‘শূন্যের রেকর্ডে’ ধোনির পাশে কোহলি

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৫৮, ৫ মার্চ ২০২১   আপডেট: ১৪:৫০, ৫ মার্চ ২০২১
‘শূন্যের রেকর্ডে’ ধোনির পাশে কোহলি

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের শেষ ম্যাচে টস করতে নেমেই মহেন্দ্র সিং ধোনির পাশে বসেন বিরাট কোহলি। ৬০তম টেস্ট নেতৃত্ব দিতে নেমে তিনি ছুঁয়েছেন ভারতকে দুটি বিশ্বকাপ এনে দেওয়া অধিনায়ককে। দ্বিতীয় দিন অধিনায়ক হিসেবে শূন্যের রেকর্ডে ধোনি ও কোহলি পাশাপাশি।

ব্যাট হাতে ভারতীয় অধিনায়ক কোহলির ফর্ম একেবারেই ধারাবাহিক নয়। চতুর্থ টেস্টের প্রথম ইনিংসে অষ্টম বলে অলরাউন্ডার বেন স্টোকসের শিকার হলেন রানের খাতা না খুলে। ইংলিশ পেসারের শর্ট বল বেশ উঁচুতে উঠেছিল। কোহলি তা বুঝতেও পেরেছিলেন, কিন্তু ততক্ষণে বল লেগেছে ব্যাটে এবং সোজা চলে যায় উইকেটকিপার বেন ফোকসের গ্লাভসে। তাতেই অযাচিত রেকর্ডে ধোনি আর কোহলি একবিন্দুতে।

ভারতের টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে এটি ছিল কোহলির অষ্টম ডাক। সমান সংখ্যক ডাক মেরেছেন ধোনিও, যা টেস্টে কোনও ভারতীয় অধিনায়কের রেকর্ড। চলতি সিরিজে দ্বিতীয়বার শূন্য রানে ফিরলেন কোহলি। দ্বিতীয় টেস্টে স্পিনার মঈন আলীর বলে ডাক মারেন তিনি। অধিনায়ক হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সবচেয়ে বেশি ‍শূন্যের তালিকায় বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গাঙ্গুলির পাশে এখন কোহলি, দুজনেরই ডাক ১৩টি।

২০১৪ সালের পর প্রথমবার এক সিরিজে দুইবার রানের খাতা খুলতে ব্যর্থ কোহলি। সাত বছর আগে এই লজ্জার মুখে পড়েছিলেন স্বাগতিক ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাতৌদি ট্রফিতে। টেস্ট ক্যারিয়ারে ডানহাতি ব্যাটসম্যানের এটি ১২তম ডাক এবং ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পঞ্চম। তাকে পাঁচবার ফিরিয়ে প্যাট কামিন্স, মঈন আলী, স্টুয়ার্ট ব্রড ও জেমস অ্যান্ডারসনের পাশে বসলেন স্টোকস।

ঢাকা/ফাহিম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়

শিরোনাম

Bulletলকডাউন: ১৪-২১ এপ্রিল। যা যা চলবে: ১. বিমান, সমুদ্র, নৌ ও স্থল বন্দর এবং তৎসংশ্লিষ্ট অফিস। ২. পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা ও জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না ৩. শিল্প-কারখানা ৪. আইনশৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিসেবা, যেমন, কৃষি উপকরণ (সার, বীজ, কীটনাশক, কৃষি যন্ত্রপাতি ইত্যাদি), খাদ্যশস্য ও খাদ্যদ্রব্য পরিবহন, ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্যসেবা, কোভিড-১৯ টিকা প্রদান, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরগুলোর (স্থল, নদী ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট (সরকারি-বেসরকারি), গণমাধ্যম (প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া), বেসরকারি নিরাপত্তা ব্যবস্থা, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বর্হিভূত থাকবে। ৫. ওষুধ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ৬. খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং রাত ১২টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ করা যাবে। ৭. কাঁচাবাজার এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে || যা যা বন্ধ থাকবে: ১. সব সরকারি, আধাসরকারি, সায়ত্ত্বশাসিত ও বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে ২. সব ধরনের পরিবহন (সড়ক, নৌ, অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে ৩. শপিংমলসহ অন্যান্য দোকান বন্ধ থাকবে