Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ১৬ মে ২০২১ ||  জ্যৈষ্ঠ ২ ১৪২৮ ||  ০২ শাওয়াল ১৪৪২

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে মরিস ঝড়ে মোস্তাফিজদের জয়

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২৩:৫৭, ১৫ এপ্রিল ২০২১   আপডেট: ০৮:৪২, ১৬ এপ্রিল ২০২১
শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে মরিস ঝড়ে মোস্তাফিজদের জয়

ঝোড়ো ব্যাটিং করে রাজস্থান রয়্যালসকে জিতিয়েছেন ক্রিস মরিস। ১৮ বলে ৩৬ রান করে রাজস্থানকে ইনিংসের শেষ ওভারে ৩ উইকেটের দারুণ এক জয় উপহার দিয়ে মাঠ ছাড়েন।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় মুম্বাইয়ের ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে খেলাটি শুরু হয়। টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে রাজস্থান ১৪৮ রানের টার্গেট দেয় দিল্লি ক্যাপিটালস। সেটা ১৯.৪ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ছুঁয়ে ফেলে রাজস্থান।

টার্গেটে খেলতে নেমে শুরুতেই ধস নামে রাজস্থানের ব্যাটিংয়ে। ৪২ রানে হারিয়ে ফেলে ৫ উইকেট। জস বাটলার, মানান ভোরা, সাঞ্জু স্যামসন, শিভাম দুবে ও রিয়ান পরাগ ফেরেন দুই অঙ্কের মুখ দেখার আগেই।

খাদের কিনারা থেকে দলকে টেনে তোলার দায়িত্ব পালন করেন ডেভিড মিলার। ৪৩ বলে ৭টি চারের মারে ৬২ রান করে ঘুরে দাঁড়ান। বাকি কাজটা সারেন ক্রিস মরিস। ৪টি ছয়ের মারে ১৮ বলে ৩৬ রান করে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন। তার সঙ্গে অপরাজিত ছিলেন জয়দেব উনাদকাট। মাঝে ১৯ রান করেন রাহুল তেওয়াতিয়া।

৪ ওভারে ৩২ রান দিয়ে সর্বচ্চ ৩ উইকেট নেন আবেশ খান। ২টি করে উইকেট নেন কাগিসো রাবাদা ও ক্রিস ওকস।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে শুরু থেকেই চাপে থাকে দিল্লি। শুরু থেকেই দিল্লিকে চাপে রাখেন জয়দেব উনাদকাট। পাওয়ার প্লে’র মধ্যেই তিনি সাজঘরে ফেরান শিখর ধাওয়ান, পৃথ্বি শ ও আজিঙ্কা রাহানেকে।

ললিত যাদবকে সঙ্গে নিয়ে মাঝে দিল্লির অধিনায়ক রিশাভ পান্ত ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেছিলেন। দুজনের জুটি থেকে আসে ৩৬ বলে ৫১ রান। ৩২ বলে ৫১ করে পান্ত সাজঘরে ফিরলে ভাঙে এই জুটি।

পান্তের পর সর্বোচ্চ ২১ রান করেন টম কারান। ১৫ রানে অপরাজিত ছিলেন ক্রিস ওকস। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেট হারিয়ে ১৪৭ রানে থামে দিল্লি।

ইনিংসের সপ্তম ওভারে মোস্তাফিজুর রহমানের হাতে বল তুলে দেন রাজস্থান রয়্যালসের অধিনায়ক সাঞ্জু স্যামসন। নিজের প্রথম ওভারেই মাত্র ১ রান দিয়ে তুলে নেন মার্কাস স্টয়নিসের উইকেট। পরের দুই ওভারে উইকেট পাওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল; কিন্তু ভাগ্য সহায় না হওয়ায় দেখা মেলেনি।

নিজের শেষ ওভারের দ্বিতীয় বলে টম কারানকে বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান। চার ওভার বোলিং করে ২৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। উনাদকাট ৪ ওভারে মাত্র ১৫ রান দিয়ে নেন সর্বোচ্চ ৩ উইকেট।

রিয়াদ/আমিনুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়