Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২০ অক্টোবর ২০২১ ||  কার্তিক ৪ ১৪২৮ ||  ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

আরও একবার ওয়ালটনের ব্যানারে গিনেস রেকর্ড গড়লেন কনক

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১৮, ১৮ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৬:৩৬, ১৮ জুলাই ২০২১
আরও একবার ওয়ালটনের ব্যানারে গিনেস রেকর্ড গড়লেন কনক

ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ারের সঙ্গে কনক

ওয়ালটন গ্রুপের ব্যানারে নতুন গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়েছেন নোয়াখালীর কনক কর্মকার। এর আগেও ১৫ বার রেকর্ড গড়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন তিনি। এর মধ্যে দিয়ে কনক বনে গেলেন দেশের সর্বোচ্চ গিনেস রেকর্ডধারী ব্যক্তি।

এবারের রেকর্ডটি হলো পা দিয়ে সবচেয়ে বেশি বল স্পর্শ করার রেকর্ড। এক মিনিটে ১৯৮ বার পা দিয়ে বল স্পর্শ করেছেন কনক। এতদিন এই রেকর্ডটি ছিল ভারতের এক ফুটবলারের। তিনি মিনিটে ১৭১ বার বল স্পর্শ করে গিনেস বুকে জায়গা করে নিয়েছিলেন। এবার এই রেকর্ড গড়ে নিলেন বাংলাদেশি এই শিক্ষার্থী।

গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর এই রেকর্ডের স্বীকৃতি দিয়েছিল গিনেস বুক কর্তৃপক্ষ। কিন্তু গত ৩ জুলাই তার হাতে কাগজপত্র আসে। ওয়ালটনের পৃষ্ঠপোষকতায় এমন রেকর্ডটি গড়ে উচ্ছ্বসিত কনক।

কনক ওয়ালটন গ্রুপকে পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ জানান। রাইজিংবিডিকে মুঠোফোনে তিনি বলেন, '২০১৯ সাল থেকে আমার পাশে আছে ওয়ালটন। আমি এজন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি তাদের প্রতি। ওয়ালটনের সহযোগিতা না পেলে আমি এতগুলো রেকর্ড গড়তে পারতাম না। আমি অনেক খুশি আমাদের প্রতি তাদের ব্যবহারে।'

এর আগে ২০১৯ সালে আগস্ট মাসে কনক ওয়ালটন গ্রুপের মিডিয়া অফিসে সবচেয়ে বেশি সময় (৩ মিনিট ২৪.৭৫ সেকেন্ড) হাঁটুর উপরে বল রেখে গিনেস বুক রেকর্ড গড়েন কনক।

সেবার এমন কৃতিত্বের জন্য কনককে ৫০ হাজার টাকা সম্মাননা ও গৃহস্থলী জিনিসপত্র দিয়েছিল ওয়ালটন। এবারও উপহার দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক এফএম ইকবাল বিন আনোয়ার (ডন)। তিনি জানান, করোনাভাইরাসের পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে কনকের হাতে পুরস্কারের টাকা তুলে দেওয়া হবে। 

কনকের জন্ম নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার গণিপুর গ্রামে। তার বাবা প্রবাসী। মা গৃহিণী। এক ভাই এক বোনের মধ্যে কনক বড়। ফেনী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে পাওয়ার টেকনোলজি নিয়ে ডিপ্লোমা করার পর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি করছেন কনক।

ঢাকা/রিয়াদ/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়