Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||  আশ্বিন ৭ ১৪২৮ ||  ১৩ সফর ১৪৪৩

দ্রাবিড়-ধাওয়ানের সঙ্গে কী কথা হলো লঙ্কান ক্রিকেটারদের?

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১১:৪৫, ৩০ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৬:৪০, ৩০ জুলাই ২০২১
দ্রাবিড়-ধাওয়ানের সঙ্গে কী কথা হলো লঙ্কান ক্রিকেটারদের?

অর্জুনা রানাতুঙ্গা ভারতের ‘দ্বিতীয় সারির দলের’ বিপক্ষে সিরিজ আয়োজনের কারণে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডকে একহাত নিয়েছিলেন। তবে শ্রীলঙ্কাও যে অভিজ্ঞতায় ঠাসা ছিল, তা কিন্তু নয়। কুশল মেন্ডিস, নিরোশান ডিকভেলা ও দানুশকা গুনাথিলাকার মতো অভিজ্ঞরা ছিলেন না। তাই তো তরুণ এই দলটি সফরকারী দলের কাছ থেকে পরামর্শ নেওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করেনি, যে দলের কোচ কিংবদন্তিতুল্য রাহুল দ্রাবিড় এবং অধিনায়ক শিখর ধাওয়ান।

মাঠের লড়াইয়ের বাইরে দুই দলের ক্রিকেটারদের মধ্যে সম্প্রীতি ছিল চোখে পড়ার মতো। সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় হার্দিক পান্ডিয়া তাদের জাতীয় সঙ্গীত গেয়ে হয়েছেন ভাইরাল। সিম বোলিং অলরাউন্ডার চামিকা করুণারত্নে তাকে আইডল বলায় একটি ব্যাটও উপহার পেয়েছেন তার কাছ থেকে। সিরিজের একটা সময় দ্রাবিড়ের সঙ্গে লঙ্কান অধিনায়ক দাসুন শানাকাকে কথা বলতে দেখা গেছে। আর বৃহস্পতিবার শেষ টি-টোয়েন্টির আগে গোটা শ্রীলঙ্কা দলের খেলোয়াড়দের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায় ধাওয়ানকে।

নখদন্তহীন ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ের পর শানাকা খোলাসা করলেন, দ্রাবিড় ও ধাওয়ানের সঙ্গে কী কথা হলো! লঙ্কান অধিনায়ক বলেছেন, ‘শিখর ১০ বছর ধরে খেলা একজন খেলোয়াড় এবং অনেক অভিজ্ঞতা আছে। তিনি বলেছেন ম্যাচ পরিকল্পনা ও পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার ব্যাপার নিয়ে, যা শোনা আমাদের সবার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ছিল- আমার জন্য যেমন অধিনায়ক হিসেবে, একইভাবে দলের বাকিদের জন্যও।’

ধাওয়ানের সঙ্গে কথা বলার সুযোগ পাওয়ায় উচ্ছ্বসিত শানাকা, ‘তিনি এমন একজন, যিনি তার শ্বাস নেওয়ার ধরনটাও রপ্ত করেছেন। আমি ভেবেছিলাম আমরা যদি তার মতো একজন খেলোয়াড়ের সঙ্গে কথা বলতে পারি, তাহলে আমাদের খেলোয়াড়রা কীভাবে খেলার উন্নতি করা যায় সেই ধারণা পাবে। আমাদের সাবেক খেলোয়াড়দের কাছ থেকেও পরামর্শ পাই, কিন্তু এটা ছিল বর্তমান একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়দের কাছ থেকে শোনার সুযোগ। এই সুযোগ পাওয়ায় আমি তার কাছে কৃতজ্ঞ।’

তবে সিরিজের শুরুতে দ্রাবিড়ের সঙ্গে কথোপকথন আরও বেশি সাদামাটা ছিল বললেন শানাকা, ‘আমি দ্রাবিড়ের সঙ্গে কথা বলেছি যে কীভাবে ভারতের খেলোয়াড়রা তাদের ইনিংস খেলে। তারা মাঠে ঢোকার মুহূর্ত থেকে ইতিবাচক থাকে। আমি তাকে অনেক প্রশ্ন করেছিলাম, শিখরকেও।’

২-১ এ টি-টোয়েন্টি সিরিজ জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন ওয়ানিন্দু হাসারাঙ্গা। এই লেগ স্পিনার সিরিজে ১২ ওভার বল করে ৫.৫৮ ইকোনমি রেটে সাত উইকেট নেন। গত সপ্তাহে বিশ্ব টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিংয়ের দ্বিতীয় স্থানে জায়গা করে নেন। এই স্পিনারকে নিয়ে শানাকার মূল্যায়ন, ‘সে এমন খেলোয়াড় যে সত্যিই দ্রুত পরিণত হয়ে উঠছে। আমি মনে করি না দুই নম্বর স্থানটি তার জন্য যথেষ্ট, তার থাকা উচিত এক নম্বরে। আমি আশা করি দ্রুত সেখানে পৌঁছে যাবে সে।’

ঢাকা/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ