Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৮ ||  ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

সুরেশ রায়নার কলাম: ‘কোহলির জন্য ভারতের বিশ্বকাপ জেতা উচিত’

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:০৩, ১৭ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ২১:১০, ১৭ অক্টোবর ২০২১
সুরেশ রায়নার কলাম: ‘কোহলির জন্য ভারতের বিশ্বকাপ জেতা উচিত’

কোহলির অধীনে এটা শেষ টুর্নামেন্ট খেলতে যাচ্ছে ভারত। এজন্য প্রত্যেকের বিশ্বাস থাকা উচিত যে, তার জন্য ভারতের বিশ্বকাপ জিততে হবে।

ভারতীয় সমর্থকরা আইসিসি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করছে। আমাদের খেলোয়াড় আছে যারা ছন্দ ধরে রাখতে পারলে এবং মাঠে নিজেদের সেরাটা দিতে পারলে শিরোপা জিততে পারবে।  

বিশ্বকাপে যারা সুযোগ পেয়েছে তারা প্রত্যেকেই ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ খেলেছে। বিশেষ করে সংযুক্ত আরব আমিরাতেই খেলেছে। বলার অপেক্ষা রাখে না প্রত্যেকেই সেরা ফর্মে আছে। এজন্য আমার বিবেচনায় বিশ্বকাপে ভারতই ফেভারিট।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের কন্ডিশন অনেকটাই ভারতের মতো। পাকিস্তানেও এমন কন্ডিশন রয়েছে। তাই এশিয়ার দলগুলোর ভালো সুযোগ নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলার।

আমাদের মনে রাখতে হবে বিশ্বকাপে অনেক ভালো দল রয়েছে। পাকিস্তান, অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড বেশ ভালো দল। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে যে কোনো কিছুই হতে পারে।

আমার মতে, ভারতের সাফল্য অনেকটাই নির্ভর করবে ব্যাটিংয়ে। বিশেষ করে টপ অর্ডারে। রোহিত শর্মা আমাদের সেরা অস্ত্র। আইসিসি ইভেন্টে তার রেকর্ড বেশ সমাদৃত এবং আইপিএল দারুণ সময় কেটেছে তার। বড় রান করতে হলে ভিত প্রয়োজন। এজন্য লোকেশ রাহুল, রোহিত শর্মা ও বিরাট কোহলিকে ১৫ ওভার পর্যন্ত ব্যাটিং করতে হবে। তারা আমাদের ব্যাটিং ইনিংসকে ছন্দ দিতে পারে।

মধ্যভাগে আমাদের বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান রয়েছে। ঋষভ পান্তকে বড় ভূমিকা রাখতে হবে। হার্দিক পান্ডিয়ারও বিধ্বংসী ব্যাটিং করার সামর্থ্য রয়েছে। তবে আমার মতে, টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান যদি ছন্দে থাকে তাহলে আমরা যে কোনো টার্গেট তাড়া করে জিততে পারব।  

আইপিএল খেলে আমার যে অভিজ্ঞতা হয়েছে, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ওমানে বৈচিত্র্যময়ী স্পিনাররা চ্যালেঞ্জ জানাতে পারে। তার মানে, বরুণ চক্রবর্তীর বড় সুযোগ রয়েছে ভালো করার। সে উইকেটের ধরণ বুঝে গতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে।

বরুণ মাত্র একটি টি-টোয়েন্টি খেললেও আমি তার অভিজ্ঞতা নিয়ে চিন্তিত নই। দলে বাকিদের অভিজ্ঞতা দারুণ। বিশেষ করে পেসারদের ভালো সম্ভাবনা রয়েছে। ভুবনেশ্বর অবশ্যই পেস আক্রমণের নেতা। তার অভিজ্ঞতা ও জ্ঞান বড় মঞ্চে বড় ভূমিকা রাখে সব সময়। শেষ মুহূর্তে শার্দুল ঠাকুরের অন্তর্ভূক্তি বাড়তি শক্তির সঞ্চার করেছে।

এবারের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের জন্য অনেকটা সময় অপেক্ষা করা লেগেছে। শেষ দুই বছর কঠিন সময় গেছে। তবে আমি মনে করি আমরা সংযুক্ত আরব আমিরা ও ওমানে বিশেষ কিছু পাবো।

লেখক: সুরেশ রায়না, ভারতের সাবেক ক্রিকেটার

তথ্যসূত্র: আইসিসি

ঢাকা/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়