Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     মঙ্গলবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২৩ ১৪২৮ ||  ০১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩

বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ

মাসকট থেকে সাইফুল ইসলাম রিয়াদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৪৯, ২১ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১৯:৫৮, ২১ অক্টোবর ২০২১
বিশ্বকাপের সবচেয়ে বড় জয়ে সুপার টুয়েলভে বাংলাদেশ

অন্যদিনের মতো লাল সবুজের সমর্থকদের ঢেউ দেখা যায়নি। ধীরে ধীরে সংখ্যাটা বাড়লেও অনেকটা ফাঁকা ছিল গ্যালারি। তবে মাঠে ক্রিকেটাররা স্বপ্নের ডানা মেলেছেন ঠিকই। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে লক্ষ্যপূরণের পথে এগিয়েছে আরো এক ধাপ। বি গ্রুপের শেষ ম্যাচে পুচকে পাপুয়া নিউ গিনিকে রেকর্ড গড়া ম্যাচে হারিয়ে হেসেখেলে সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ।

বি গ্রুপের স্কটল্যান্ড-ওমান ম্যাচ এখনো শেষ হয়নি। রান রেটে স্কটল্যান্ডের থেকে এগিয়ে থাকায় বাংলাদেশের সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত হয়েছে। বাংলাদেশের রান রেট ১.৭৩৩। এক ম্যাচ কম খেলে স্কটল্যান্ডে রান রেট ০.৫৭৫। স্কটল্যান্ড ওমানকে হারালে তারা গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে যাবে বিশ্বকাপের সুপার টুয়েলভে।

আর স্কটল্যান্ড ম্যাচ হেরে গেলে রান রেটের মারপ্যাঁচে তারা বাদও পড়তে পারে। তখন বাংলাদেশের সঙ্গী হবে ওমান। আইসিসির সহযোগী এই দুই দেশের লড়াইয়ের ওপরই নির্ভর করছে বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হবে নাকি রানার্সআপ।

উড়তে থাকা বাংলাদেশ বিশ্বকাপ খেলতে এসে হোঁচট খায় শুরুতেই। স্কটল্যান্ড হুংকার দিয়ে হারিয়ে দেয় বাংলাদেশকে। পরের ম্যাচে ওমানের বিপক্ষে জিতলেও স্কটিশ ট্র্যাজেডি বাংলাদেশ ভুলতে পারেনি। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ কিংবা সাকিব আল হাসানদের প্রাথমিক লক্ষ্য ছিল বিশ্বকাপের প্রথম পর্ব পেরোনো। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বড় জয়ে বাংলাদেশের প্রথম মিশন ফিনিশড। এবার পরের ধাপে লাল সবুজের রঙে রাঙানোর পালা।

বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) টস জিতে আগে ব্যাটিং করতে নেমে বাংলাদেশ ৭ উইকেটে ১৮১ রান করে। যা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ইনিংস। এর আগে সর্বোচ্চ ছিল ২ উইকেটে ১৮০, ওমানের বিপক্ষে। বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই কাঁপতে থাকে পাপুয়া নিউ গিনি। শেষের প্রতিরোধের পরও ৯৭ রানের বেশি করতে পারেনি পিএনজি। ৮৪ রানের জয় বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ। এর আগে ওমানকেই ৫৪ রানে হারিয়েছিল বাংলাদেশ।  

পিএনজির উইকেটের আসা যাওয়ার মিছিলে একা আলো ছড়িয়েছেন কিপিলিন ডোরিগা। মাত্র ৩৪ বলে তিনি ৪৬ রান করে অপরাজিত ছিলেন। চাদ সোপার করেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১১ রান করেন। এ ছাড়া আর কোনো ব্যাটসম্যান দুই অঙ্কের ঘরের মুখ দেখেননি।  

৪ ওভারে মাত্র ৯ রান দিয়ে সাকিব নেন ৪ উইকেট। এর মধ্যে দিয়ে সাকিব টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক শহিদ আফ্রিদিকে ছুঁয়েছেন। ৩৪ ম্যাচে ৩৯ উইকেট নিয়ে আফ্রিদি সিংহাসন দখলে রেখেছিলেন, এবার সাকিব ২৮ ম্যাচ খেলে সেখানে ভাগ বসালেন। এর প্রথম ম্যাচে স্কটিশদের বিপক্ষে ৩ উইকেট নিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক হন সাকিব। ব্যাটে-বলে দারুণ পারফরম্যান্সে আজও তার হাতে ওঠে ম্যাচসেরার পুরস্কার। ২টি করে উইকেট নিয়েছেন তাসকিন আহমেদ ও সাইফউদ্দিন।  

বাংলাদেশ রেকর্ড গড়া জয় পেলেও বাস্তবতা এত সহজ ছিল না। সূর্যের চোখ রাঙানি, তীব্র গরম আর সুপার টুয়েলভ নিশ্চিত করার চাপ। সবকিছুকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিয়েছে মাহমুদউল্লাহর দল। টস জিতে ব্যাটিং করতে নেমে ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই উইকেট হারায় বাংলাদেশ। আগের ম্যাচের টপ স্কোরার নাঈম আজ দ্বিতীয় বলে আউট হন শূন্য রানে। তবে সাকিব-লিটন দাসের ৫০ রানের জুটিতে সেই ধাক্কা সামলে ওঠে লাল সবুজের দল। 

১টি করে চার-ছয়ে লিটন ২৩ বলে ৩৯ রান করে সাজঘরে ফেরেন। তবে সাকিব থামেন ৫০ এর কাছাকাছি গিয়ে। ৩টি ছয়ের মারে ৩৭ বলে ৪৬ রান করেন বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার। ব্যাট হাতে মুশফিকের সময়টা ভালো যাচ্ছে না। পিএনজির বিপক্ষে আউট হন মাত্র ৬ রানে। তবে রানের চাকা থামেনি। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের দ্রুততম ফিফটি আর শেষ ওভারে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের ক্যামিওতে বাংলাদেশ ১৮১ রানে থামে। 

মাত্র ২৭ বলে ৩টি করে চার-চয়ে হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। যেটি এখন পর্যন্ত এই বিশ্বকাপের দ্রুততম ফিফটি। মাঝে ৩ চারে আফিফ হোসেন ধ্রুব ২১ রানের ইনিংস খেলেছেন। তবে শেষ ওভারে সাইফউদ্দিন ঝড় না তুললে এ দিন রেকর্ড হতো না। চাদ সোপারকে ইনিংসের শেষ দুই  বলে টানা দুটি ছয় হাঁকান। ম্যাচ শেষ মনে করে গ্রাউন্ডসম্যানরাও ঢুকতে যাচ্ছিলেন, কিন্তু শেষ বলটি নো হওয়ায় আরও একটি বল বাড়তি পায় বাংলাদেশ। সেই বলেও বোলারের মাথার উপর দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ষোলকলা পূর্ণ করেন সাইফউদ্দিন। 

মাহমুদউল্লাহ-সাইফরা ব্যাটে রানের ফোয়ারা ফোটালেও বাংলাদেশ ইনিংসে ০ আছে দুটি। মোহাম্মদ নাইম ও নুরুল হাসান সোহান রানের খাতাই খেলতে পারেননি। পিএনজির হয়ে দুটি করে উইকেট নেন কাবুয়া মোরেয়া, ডামেইন রাভু ও আসাদ ভালা।

মাসকট/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়