Risingbd Online Bangla News Portal

ঢাকা     রোববার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২১ ||  অগ্রহায়ণ ২১ ১৪২৮ ||  ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

বাংলাদেশের দুই ভুল, লিটনের দুই ক্যাচ: মুশফিক

ক্রীড়া প্রতিবেদক, শারজাহ থেকে || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:২৫, ২৪ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ২২:৪২, ২৪ অক্টোবর ২০২১
বাংলাদেশের দুই ভুল, লিটনের দুই ক্যাচ: মুশফিক

এক ওভারে জোড়া আঘাত হেনে বাংলাদেশকে ম্যাচে ফিরিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। পরের ওভারে সাইফউদ্দিন আবার উইকেট নিয়ে রাস্তা আরও পরিস্কার করেন। কিন্তু সব এলোমেলো হয়ে যায় লিটনের শিশুতোষ ভুলে। ভানুকা রাজাপাকসে তখনো খোলস ছড়িয়ে বের হতে পারেননি, কিন্তু লিটনের হাতে জীবন পেয়ে তিনি যেন দানব হয়ে ওঠেন। 

একের পর এক বাউন্ডারি- ওভার বাউন্ডারি মেরে বিপর্যস্ত করে ফেলেন বোলারদের। যেখানেই, যেদিকে, যেভাবেই বল দেওয়া হোক না কেন, রাজাপাকসে খেলবেনই। ১৪ রানে জীবন পাওয়া এই ব্যাটসম্যান থামেন ৩১ বলে ৫৩ রান করে। এমন বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ের পর দল কী আর না জিতে পারে? 

ইনিংসের ১৩তম ওভারে আফিফ হোসেনকে নিয়ে আসেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। প্রথম বলেই এক্সট্রা কাভারে দারুণ ছয় হাঁকান রাজাপাকসে। পরের বল থেকে নেন ২ রান। তৃতীয় বলে উড়িয়ে মেরেছেন স্কয়ার লেগে, ওখানে দাঁড়ানো ফিল্ডার লিটন তালুবন্দি করতে পারেননি, উল্টো বাউন্ডারি হজম করতে হয়। এক জীবনেই যেন রাজাপাকসে আলাদিনের চেরাগ পান। 

ম্যাচ শেষে দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন মুশফিকুর রহিম। নিজের রানে ফেরার দিনে মুশফিকের কথা বলতে হলো সতীর্থ লিটনকে নিয়ে। সতীর্থর ওপর নিজের আস্থা রেখে মুশফিক বলেছেন,‘যত রানই করি না কেন, ছোটখাট কিছু ভুল থাকেই আবার কিছু ইতিবাচক দিকও থাকে। আমাদের আজ যে ভুল হয়েছে সেটা হল লিটনের দুটো ক্যাচ। সে কিন্তু খুব ভালো মানের ফিল্ডার। ব্যাপারটা আমার কাছ থেকে হলে হয়ত এত আশা হতো না। কিন্তু সে ভালো ফিল্ডার । আর ওই সময়টাও খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ওদের দুই বাঁহাতি দারুণ ব্যাট করছিল। ওই সময় আমাদের দুটো উইকেট পড়ে গেলে ম্যাচ ঘুরেও যেতে পারত।’ 

লিটন শুধু রাজাপাকসে নন, ক্যাচ মিস করেছেন চারিথ আসালাঙ্কারও। মোস্তাফিজুর রহমানের করা ১৫তম ওভারে ৬৩ রানে ডিপ কভারে ক্যাচ ছাড়েন লিটন। সেই আসালাঙ্কাকে শেষ পর্যন্ত আউটই করতে পারেনি বাংলাদেশ। ৮০ রান নিয়ে অপরাজিত ছিলেন। আসালাঙ্কার ক্যাচটি নিতে পারলেও সম্ভাবনা তৈরি হতো।   

বাংলাদেশ স্কোরবোর্ডে জমা করেছিল ১৭১ রান। জমাট ফিল্ডিং ও ভালো বোলিংয়ে এমন ম্যাচে জয় পাওয়া সম্ভব। বোলিংয়ে আঁটোসাঁটো হলেও ফিল্ডিংয়ে খেসারত দিয়েছে। 

জয়ের জন্য এই রান যথেষ্ট না জানিয়ে মুশফিক বলেন, 'এই উইকেটে রান কম দেখেছি কিন্তু আজ খুব ভালো ছিল। আমরা জানতাম যে ১৭০ হয়ত জয়ের স্কোর না কিন্তু আমরা যদি সুযোগ কাজে লাগাতে পারি তাহলে জয় সম্ভব। ওরা ৬ ওভার খুবই ভালো পাওয়ার প্লে নিয়েছে। সাকিব আমাদের মোমেন্টাম এনে দিয়েছে। কিন্তু ওদের দুই সেট ব্যাটসম্যান সব বদলে দেয়।' 

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ফিল্ডিং সব সময় বড় পার্থক্য গড়ে দেয়। নিশ্চিত চার-ছয় বাঁচিয়ে রানের গতি কমাতে হয়। প্রতিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের রক্ষণাত্মক খেলতে বাধ্য করতে হয়। এমন ম্যাচে যদি ক্যাচ ফসকে পড়ে যায় তাহলে কী ম্যাচ জেতা যাবে?

শারজাহ/রিয়াদ/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়