ঢাকা     রোববার   ১৬ জানুয়ারি ২০২২ ||  মাঘ ২ ১৪২৮ ||  ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

ব্যর্থতা ভুলে, ভুল না শুধরেই লড়াইয়ের মঞ্চে বাংলাদেশ

ইয়াসিন হাসান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৫৩, ১৮ নভেম্বর ২০২১  
ব্যর্থতা ভুলে, ভুল না শুধরেই লড়াইয়ের মঞ্চে বাংলাদেশ

বলা হয়ে থাকে, সফল হতে হলে ব্যর্থতা ভুলতে হবে। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সফলতার খোঁজে ছুটছেন। এজন্য অতীত ভুলতে চাইছেন। কিন্তু ভুল কি শোধরাচ্ছেন বা পারছেন?

অতীত ভোলার প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘বিশ্বকাপ নিয়ে কথা বলছে চাচ্ছি না। সত্যিই কেবল এই তিনটি ম্যাচ নিয়ে চিন্তা করছি। আমরা দলের জন্য কতটুকু ভালো অবদান রাখতে পারি, ব্যক্তিগতভাবে ওটাই মুখ্য বিষয়। যে জিনিসগুলো আগে হয়ে গেছে সেটা নিয়ে চিন্তা করলে বরং নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। তাই ইতিবাচক চিন্তা করছি।’

ব্যর্থতা ভুলে সামনে এগিয়ে যাওয়া বুদ্ধিমানের কাজ। মাহমুদউল্লাহ সেটি করছেন কিন্তু ভুল শোধরাচ্ছেন কিভাবে? পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন টি-টোয়েন্টির জন্য যে স্কোয়াড নির্বাচন করা হয়েছে সেখানে কতটা অবদান রাখতে পেরেছেন তিনি? দলে একাধিক নতুন মুখ। ঝেরে ফেলা হয়েছে বিশ্বকাপের ব্যর্থদের। সব কি মাহমুদউল্লাহর মতামত নিয়েই হয়েছে?

প্রশ্নবাণে জর্জরিত মাহমুদউল্লাহ বারবার বোঝাতে চেয়েছেন, ‘এটা (দল) টিম ম্যানেজমেন্টের কাউকে প্রশ্ন করলে সম্ভবত ভালো হবে।’ মানে দলীয় অধিনায়ক দল গোছানোর পরিকল্পনার বাইরে। পাশাপাশি নিজের দায়িত্ব চালিয়ে যেতে পারবেন কি না তাও অজানা, ‘আসলে এটা পুরোটাই টিম ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত। আমি নিজে এই মুহূর্তে আসলে এটা নিয়ে কিছু বলতে চাচ্ছি না।’

মাহমুদউল্লাহর পথ মসৃণ নয়। পাকিস্তানের বিপক্ষে তিন টি-টোয়েন্টি তার জন্য কঠিন চ্যালেঞ্জ। এখানে ভালো না করলে তার ক্যারিয়ার নিয়েও উঠবে প্রশ্ন। সেই চাপ জয় করে এগিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় তার, ‘চ্যালেঞ্জ সবসময়ই থাকবে। চাপ থাকবে। সেগুলো উতরেই খেলতে হবে। এগুলো নিয়ে বেশি মাথা না ঘামিয়ে নিজের সেরাটা দেওয়ার বিষয়ে সচেষ্ট থাকতে হবে।’

বিশ্বকাপ ব্যর্থতা ঝেরে ফেলে বাংলাদেশ এগিয়ে যেতে চায় এই ফরম্যাটে, সামনে পাকিস্তান দেয়াল। দুর্বার গতিতে এগোচ্ছে যারা। বাবর, রিজওয়ান, ফখর, আফ্রিদিরা বিশ্ব ক্রিকেটের বড় নাম। উল্টোদিকে মাহমুদউল্লাহ, মোস্তাফিজ, তাসকিনরা ‘আহত’ বাঘ। অধিনায়কের বিশ্বাস ব্যাট-বলে একটি উড়ন্ত সূচনা পাল্টে দিতে পারে বাংলাদেশের চারপাশ।    

‘বিশ্বকাপের প্রত্যাশা যে রকম ছিল আমরা পূরণ করতে পারিনি। আমি বিশ্বাস করি যে, আমাদের বাংলাদেশ দলের একটা শুরু সব সময় খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যদি ভালো শুরু করতে পারি, ছন্দ পেয়ে যাই তাহলে সামনে ভালো করতে পারব।’- বলছিলেন বাংলাদেশের অধিনায়ক।

নতুন সূর্যের আলোর রোশনাইয়ে নতুন করে পথ চলা শুরু করতে চায় বাংলাদেশ। কিন্তু এ পথ অনেকটাই কণ্টকাকীর্ণ, অনেকটাই ঝাঁঝালো। তবুও সে পথ পাড়ি দিতে চান মাহমুদউল্লাহরা। অজেয়কে জয় করতে হবে। নতুনের কেতন উড়াতে হবে। সেই কেতন উড়াতেই এবার ক্রিকেটের সবচেয়ে ছোট্ট ফরম্যাটে নতুন করে পথ চলতে চাইছে বাংলাদেশ। যার শুরুটা হচ্ছে শুক্রবার থেকে।

লড়াইটা দুর্বার পাকিস্তান বনাম নতুন মোড়কের বাংলাদেশের।

ঢাকা/ফাহিম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়