ঢাকা     বুধবার   ১০ আগস্ট ২০২২ ||  শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯ ||  ১১ মহরম ১৪৪৪

পাকিস্তানের কাছে হারে শুরু বাংলাদেশের

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৯:৪৯, ৩০ নভেম্বর ২০২১   আপডেট: ১১:৫৮, ৩০ নভেম্বর ২০২১
পাকিস্তানের কাছে হারে শুরু বাংলাদেশের

বাংলাদেশ: প্রথম ইনিংসে ৩৩০/১০

পাকিস্তান: প্রথম ইনিংসে ২৮৬/১০ 

বাংলাদেশ: দ্বিতীয় ইনিংসে ১৫৭/১০ (বাংলাদেশের লিড ২০১)

পাকিস্তান: দ্বিতীয় ইনিংসে ২০৩/২ (বাবর ১৩*, আজহার ২৪*)  

ফল: পাকিস্তান ৮ উইকেটে জয়ী। 

ম্যান অব দ্য ম্যাচ: আবিদ আলী  

 

৫৯তম ওভারে মেহেদী হাসান মিরাজকে টানা দুটি চার মেরে দলের জয় নিশ্চিত করলেন আজহার আলী। ৮ উইকেটে জিতে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ শুরু করল পাকিস্তান। আর বাংলাদেশের বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের যাত্রা শুরু হলো হার দিয়ে।

২০২ রানের লক্ষ্যে চতুর্থ দিন দ্বিতীয় সেশনের মাঝে ব্যাটিং করতে নামে পাকিস্তান। দুই ওপেনারের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে এদিন আর কোনো উইকেটই হারায়নি সফরকারী দল। স্কোরবোর্ডে জমা হয় ১০৯ রান। আবিদ আলী ও আব্দুল্লাহ শফিক হাফসেঞ্চুরি করে অপরাজিত থাকেন। দুজনে পঞ্চম ও শেষ দিন শুরু করেন জয় থেকে ৯৩ রান দূরে। ৭৩ রানে আব্দুল্লাহ শফিকের আউটে ভাঙে ১৫১ রানের ওপেনিং জুটি। আরেক ওপেনার আবিদ আউট হন সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ৯ রান দূরে থেকে। দুজন ফিরলেও জয় পেতে বেগ পেতে হয়নি অতিথিদের। আজহার আলী ২৪ ও বাবর আজম ১৩ রানে অপরাজিত থাকেন। মেহেদি হাসান ও তাইজুল ইসলাম ১টি করে উইকেট নেন। 

আবিদকে সেঞ্চুরি করতে দেননি তাইজুল

প্রথম ইনিংসে সেঞ্চুরির পর দ্বিতীয় ইনিংসেও সেঞ্চুরির পথে ছিলেন আবিদ আলী। কিন্তু নব্বইয়ের ঘরে তাকে আটকে দেন তাইজুল ইসলাম। ৯১ রানে এলবিডব্লিউ হন। রিভিউ নিয়েও কোনো লাভ হয়নি। ১৪৮ বলে ১২টি চারের মারে তিনি এই রান করেছিলেন।

অবশেষে শফিককে ফেরালেন মিরাজ

অবশেষে আব্দুল্লাহ শফিককে ফেরালেন মেহেদি হাসান মিরাজ। ব্যাক্তিগত ৭৩ রানে এলবিডব্লিউ হলে শফিক রিভিউ নেন। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। শফিকের আউটে ভাঙে ১৫১ রানের জুটি।  ১২৯ বলে ৮টি চার ও ১টি ছয়ের মারে এই রান করেন। শফিকের আউটেও খুব একটা স্বস্তিতে নেই বাংলাদেশের শিবির, পাকিস্তানের জয়ের জন্য মাত্র ৫১ রান প্রয়োজন আর।

আবিদ-শফিকের বিরুদ্ধে কোনো মন্ত্রই কাজে আসছে না  

প্রথম ইনিংসেও পাকিস্তানের ইনিংসের ভিত গড়ে দিয়েছিলেন দুই ওপেনার আবিদ আলী ও আব্দুল্লাহ শফিক। আবিদ করেছিলেন সেঞ্চুরি আর শফিক হাফসেঞ্চুরি। দ্বিতীয় ইনিংসে ২০২ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে দারুণ শুরু করেন তারা। তুলে নেন হাফসেঞ্চুরি। ইতিমধ্যে বড় জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছেন। এই দুজনকে ফেরানোর কোনো মন্ত্রই কাজ করছে না। একপাশে এক নাগাড়ে বোলিং করে যাচ্ছেন তাইজুল ইসলাম। আরেক পাশে দুই পেসার আবু জায়েদ-এবাদত হোসেন আর স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ বোলিং করছেন নিয়মিত বিরতিতে। কিন্তু আবিদ-শফিকের কাছে হার মানতে হচ্ছে তাদের।

পাকিস্তানের প্রয়োজন ৯৩ রান, বাংলাদেশের ১০ উইকেট

জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ২০২। পাকিস্তান চতুর্থ দিন দেড় সেশন ব্যাটিং করেই তুলে ফেলে ১০৯ রান। তাও শেষ সেশনে আলোক স্বল্পতার কারণে খেলা হয়েছে মাত্র ২১ ওভার। মঙ্গলবার পঞ্চম দিন খেলা শুরু হয়েছে আগে।  জয়ের জন্য সফরকারীদের প্রয়োজন মাত্র ৯৩ রান। হাফসেঞ্চুরিয়ান দুই ওপেনার আবিদ আলী ও আব্দুল্লাহ শফিক দিন শুরু করেন।

নির্বিষ বোলিং 

চতুর্থ দিন টাইগারদের নির্বিষ বোলিং পাকিস্তানের ওপেনিং জুটিতে কোনো চিড় ধরাতে পারেনি। পঞ্চম ও শেষ দিন  মুমিনুল হকদের হারের প্রহর গোণা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। যদি না অতিমানবীয় কোনো কিছু না ঘটে। হাফসেঞ্চুরি করেছেন ওপেনার আবিদ আলী। ৯২ বলে ৬টি চারের মারে ফিফটির দেখা পান এই ওপেনার ব্যাটসম্যান। প্রথম ইনিংসে তিনি সেঞ্চুরি করেছিলেন। আরেক ওপেনার আব্দুল্লাহ শফিক যেভাবে খেলেছেন, যেভাবে শাসন করছেন টাইগার বোলারদের, বোঝার কোনো উপায় নেই যে এটা তার অভিষেক টেস্ট। প্রথম ইনিংসে হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন, এবার মেহেদি হাসান মিরাজকে লং অনে ছক্কা মেরে ৮৮ বলে দ্বিতীয় ইনিংসেও হাফসেঞ্চুরির দেখা পান। নিজের ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্ট খেলতে নেমে দুই ইনিংসেই তুলে নেন হাফসেঞ্চুরি।

ঢাকা/রিয়াদ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়