ঢাকা     মঙ্গলবার   ০৫ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ২১ ১৪২৯ ||  ০৫ জিলহজ ১৪৪৩

মুমিনুল-লিটনদের সাফল্যে অনুপ্রাণিত রাকিবুলরাও

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:২৯, ১২ জানুয়ারি ২০২২  
মুমিনুল-লিটনদের সাফল্যে অনুপ্রাণিত রাকিবুলরাও

ওয়েস্ট ইন্ডিজে অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের পথ চলা শুরু হবে আগামী ১৬ জানুয়ারি। বিশ্বকাপের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ প্রথম ম্যাচ খেলবে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে। মূল মঞ্চে মাঠে নামার আগে বাংলাদেশ জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রস্তুতি ম্যাচে দারুণ জয় পেয়েছে। 

তবে যুবারা মাঠে নামার আগে বড় অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন মুমিনুল হক, লিটন দাশদের থেকে। নিউ জিল্যান্ডে বাংলাদেশ যে ঐতিহাসিক জয় পেয়েছে সেখান থেকে প্রেরণা খুঁজছেন রাকিবুল হাসান, আইচ মোল্লারা। নিজেদের ভেতরে আলোচনায় তারা জেদ করেছেন, ‘সিনিয়ররা কঠিন কন্ডিশনে ভালো করলে আমরা কেন পারবো না…।’  

মাঠে নামার আগে যুব অধিনায়ক রাকিবুল হাসান বুধবার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন। তার কথা শুনেছে রাইজিংবিডি।  

যুব বিশ্বকাপে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। শিরোপা ধরে রাখতে কতটা আত্মবিশ্বাসী আপনারা? 

রাকিবুল: দেখেন সব দলই তো বিশ্বকাপ জেতার জন্য আসে। সবার পরিকল্পনা থাকে চ্যাম্পিয়ন হওয়া। শেষ বিশ্বকাপে আমাদের সেই লক্ষ্য ছিল এবং আমাদের প্রস্তুতি, প্রক্রিয়া ও পরিকল্পনা সফল হওয়ায় শিরোপা জিতেছিলাম। এবার কোভিডের কারণে সেভাবে প্রস্তুতি নিতে পারিনি। একই ভাবে সব দলগুলোও কিন্তু একই কারণে প্রস্তুতির ঘাটতিতে আছে। আমরা যে প্রস্তুতি নিয়েছি সেটা সেরা সম্ভাব্য প্রস্তুতি। সামনে যে ম্যাচগুলো আসছে সেসবে আমরা যদি আমাদের পরিকল্পনার সঠিক প্রতিফলন করতে পারি তবে অবশ্যই ভালো কিছু করতে পারব।

বিশ্বকাপের আগে আপনারা শক্ত প্রতিপক্ষের সঙ্গে খেলেননি। এটা কি সাফল্যের পথে বাধা হতে পারে? 

রাকিবুল:  না এতে কোন সমস্যা হবে না। কারণ বিশ্বকাপে আসার আগে আমরা ভারতের সঙ্গে তাদের মাঠে খেলে জিতেছি। শ্রীলঙ্কা ও আফগানিস্তানের সঙ্গে ঘরের মাঠে খেলেছি এবং জিতেছি। আমরা নিজেদের খেলা নিয়ে ভাবছি, নিজেদের প্রক্রিয়া নিয়ে ভাবছি। আর প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের সঙ্গে ভালো করার জন্যই এখন নজর দিচ্ছি।

শেষ বিশ্বকাপে আপনি খেলেছেন। জিতেছেন। নতুনদের সামনে বিশ্বকাপ জয়ের অভিজ্ঞতা বা শিক্ষা তুলে ধরার কাজটা কতটুকু করছেন?

রাকিবুল: আমি গতবার যে চ্যাম্পিয়ন দলে ছিলাম সেটা অবশ্যই দারুণ অনুভূতি। এবার আমরা যারা গতবারের দল থেকে আছি সবাই চেষ্টা করছি বাকিদের দলগত হয়ে খেলার বিষয়টা বোঝাতে চাচ্ছি। আমরা ওদের বোঝাচ্ছি যে দল হয়ে খেললে যে কোন ম্যাচে ফল আসবে। এক এক ম্যাচে যেন প্রয়োজনে এক এক জন দাঁড়িয়ে যায়, যার দাঁড়ানোর দরকার সে যেন দলের জন্য তার দায়িত্বটা পালন করে সেটা বোঝানোর চেষ্টা করছি। এটা শেষ পর্যন্ত দারুণ কাজে দেয়।

বিশ্বকাপ জয়ী হিসেবে এখন অধিনায়ক হয়ে যে চাপ তার মুখোমুখি হওয়া…

রাকিবুল: চাপ তো থাকেই। এটা নিয়ে ভাবলে চাপ আরো বাড়বে। আমরা এখন নিজেদের প্রথম ম্যাচটায় কিভাবে সফল হবো সেটায় ফোকাস করছি। হাতে তিনদিনের মতো সময় আছে। আর ওভাবে কোন চাপ নেই।  

সেন্ট কিটসের কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেয়ার কাজটা কতটা চ্যালেঞ্জিং?

রাকিবুল: এখানকার কন্ডিশন খুব কঠিন না। এখানে আমরা দুই সপ্তাহের মতো আছি, দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলেছি যা ভালো প্রস্তুতি আমাদের জন্য। আমরা এখন ভালভাবেই কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছি। আশা করি ইংল্যান্ডের সঙ্গে আমরা সেরা ক্রিকেটটা খেলতে পারবো।

নিজের দলটা নিয়ে বলতেন…

রাকিবুল: গতবারের মতো এবারও ভালো দল। এবার দলে অনেক অলরাউন্ডার আছে যেটা গতবার আমাদের একটু ল্যাকিং ছিল। তাও আমরা ভালো করেছিলাম। তো এবার আমাদের দলটা অনেক ভালো এবং ব্যালান্সড। তো আমাদের প্রসেসিং ও পরিকল্পনা মতো খেলা ও ছোট ভুল গুলো যদি কম করি তো অবশ্যই ভাল করবো।

জাতীয় দলের সাফল্য নিয়ে আপনাদের আলোচনা?

রাকিবুল: এটা তো আমাদের সবার জন্য এবং পুরো বাংলাদেশের মানুষের জন্যই খুব অনুপ্রেরণাদায়ক। বাংলাদেশ ক্রিকেটের স্মরনীয় জয়। তো আমাদের মধ্যে অনেক কথা হয়েছে এ ব্যাপারে, আমরা বিশ্বাস করেছি, সিনিয়ররা যখন ভালো করেছে আমাদেরও উচিত কঠিন কন্ডিশনে ভালো করা। তো সেখান থেকেই আমরা বিশ্বাস করি ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকেও ভালো কিছু করতে পারব।

ঢাকা/ইয়াসিন

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়