ঢাকা     শনিবার   ২৮ মে ২০২২ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪২৯ ||  ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩

নাসুমে তছনছ ঢাকা, প্রথম জয় চট্টগ্রামের 

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২১:১৪, ২২ জানুয়ারি ২০২২   আপডেট: ২১:৩৫, ২২ জানুয়ারি ২০২২
নাসুমে তছনছ ঢাকা, প্রথম জয় চট্টগ্রামের 

শের-ই বাংলায় নাসুম আহমেদের যাদুকরি বোলিংয়ে অসহায় আত্মসমর্পণ করেছেন মিনিস্টার ঢাকার তারকা ব্যাটসম্যানরা। মায়াবী ঘূর্ণিতে একে একে কাটা পড়েছেন মোহাম্মদ নাঈম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং আন্দ্রে রাসেল। শরিফুল ইসলামের আক্রমণের সঙ্গে নাসুমে দিশেহারা হয়ে তামিম ইকবালের হাফ সেঞ্চুরির পরও চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের রান টপকাতে পারেনি ঢাকা। হারতে হয়েছে ৩০ রানে।

হার দিয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ শুরু করা ঢাকা থাকলো হারের বৃত্তেই। হার দিয়ে বিপিএল শুরুর পর ব্যাটে-বলে দারুণ খেলে দ্বিতীয় ম্যাচেই তারকায় ঠাসা ঢাকাকে হারিয়ে সাগরিকা পাড়ের দলটি পেয়েছে প্রথম জয়ের দেখা।

শনিবার (২২ জানুয়ারি) বিপিএলের দ্বিতীয় দিন টস হেরে আগে ব্যাটিং করে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৬১ রান করে চট্টগ্রাম। টার্গেটে খেলতে নেমে ১ বল বাকি থাকতে ১৩১ রানে অলআউট হয় ঢাকা।

এক তামিম ছাড়া ঢাকার ব্যাটসম্যানরা ছিলেন ছায়া হয়ে। মুকিদুল ইসলামের শিকার হয়ে মোহাম্মদ শাহজাদ (৯) ফেরেন শুরুতে। শাহজাদ ফিরলেও তামিমের ব্যাটে সেই চাপ সামলে ওঠার চেষ্টা ছিল ঢাকার। শরিফুলের করা পঞ্চম ওভারে দুই চার এক ছয়ে ১৫ রান নিয়ে সেই বার্তায় দিয়েছিলেন দেশসেরা ওপেনার। তবে আগের দিনের মতো থেমে যান ফিফটির পরেই। ৪২ বলে ৬ চার ও ২ ছয়ে ফিফটির দেখা পেয়েছিলেন। আউট হয়েছেন ৫২ রানে।

শরিফুলের শিকার হয়ে জহুরুল ইসলাম (১০) ফেরেন দুই অঙ্কের ঘর স্পর্শ করেই। এক ওভার পরেই নাসুমের জোড়া আঘাতে চাপে পড়ে যায় ঢাকা। ফেরেন মোহাম্মদ নাঈম (৪) ও মাহমুদউল্লাহ(৫)। ভরসা ছিলেন ক্যারিবীয়ান সুপারস্টার রাসেল। এক ছয় এক চার মেরে সেই আভাসও দিয়েছিলেন। কিন্তু আবারও নাসুমে ভঙ্গ হলো ঢাকার স্বপ্ন। ক্যারিবীয়ান সুপারস্টারকে যখন মিডউইকেটে শামীম হোসেন পাটোয়ারির ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে ফেরালেন, তখনই লেখা হয়ে যায় চট্টগ্রামের জয়ের চিত্রনাট্য। রাসেলের ব্যাট থেকে আসে ১০ বলে ১২ রান। এরপর শুভাগত হোম (১২) ও ইসিরু উদানা (১৬) শুধু জয়ের ব্যবধানটাই কমিয়েছেন।

বল হাতে নাসুম ৪ ওভারে মাত্র ৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ৩ উইকেট। কৃপণ বোলিংয়ের সঙ্গে গুরুত্বপুর্ণ সময়ে মাহমুদউল্লাহ-রাসেলদের ফিরিয়ে যেন আসল কাজটাই করেছেন এই বাঁহাতি স্পিনার। এ জন্য তার হাতে ওঠে ম্যাচসেরার পুরষ্কারও। সর্বোচ্চ ৪ উইকেট নিয়েছেন শরিফুল। রান দিয়েছেন ৩৪টি। তবে তা চাপা পড়ে যায় নাসুমের কীর্তির কাছে।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে সম্মিলিত প্রয়াসে চ্যালেঞ্জিং স্কোর ছুড়ে দিয়েছিল চট্টগ্রাম। জ্যাকসের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে চট্টগ্রাম ভুলে যায় শুরুতে কেনার লুইসকে হারানোর ব্যথা। রাসেলকে এলোমেলো করে ৬ চার ও ২ ছয়ে জ্যাকস করেছেন ২৪ বলে ৪১ রান। রাসেল-তামিমের হাতে দুই জীবন পেয়েও আফিফ খেলতে পারেননি লম্বা ইনিংস। থেমেছেন ১২ বলে ১২ করে।

জ্যাকসরা ফিরলেও চট্টগ্রামের রানের চাকা সচল রেখেছেন দেশি মেহেদি হাসান মিরাজ ও সাব্বির রহমান। দুজনের জুটি থেকে আসে ৪৪ রান। ৪ চারে ২৫ বলে ২৫ করেন মিরাজ। তবে সাব্বিরকে শুরুতে জড়সড় দেখালেও ধীরে ধীরে তার বাড়ান স্ট্রাইকরেট। তার ব্যাট থেকে আসে ১৭ বলে ২৯ রান। দারুণ এক ডেলিভারিতে তার স্ট্যাম্প ভেঙে দিয়েছেন রুবেল। একই ওভারে ফেরান শামীম হোসেনকেও (১)।

রুবেলের করা ১৬তম ওভারে জোড়া উইকেট হারলেও সাগরিকার পাড়ের দলটির রানের চাকা থামেনি। হাওয়েলের ঝড়ে শেষ চার ওভারে তারা তোলে ৪১ রান। যাতে হাওয়েল একাই করেন ২৬! ইনিংসের শেষ বলে তিনি রানআউট হয়েছেন মাত্র ১৯ বলে ৩৭ রান করে। 

দিনটা নিজের করে নিতে পারতেন রুবেল। প্রথম ৩ ওভারে মাত্র ১২ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেওয়া এই বোলার নিজের শেষ ওভারে দেন ১৪ রান। ৪ ওভারে দেন ২৬ রান। এ ছাড়া ১টি করে উইকেট নেন আরাফাত সানি, ইসিরু উদানা, শুভাগত ও মাহমুদউল্লাহ। 

সংক্ষিপ্ত স্কোর

চট্টগ্রাম : ২০ ওভারে ১৬১/৮ (জ্যাক ৪১, আফিফ ১২, সাব্বির ২৯, মিরাজ ২৫, শামীম ১, হাওয়েল ৩৭, নাসুম ৮*; রুবেল ৩/২৬, সানি ১/২৩, ইসুরু ১/৩৯, শুভাগত ১/১৫, মাহমুদউল্লাহ ১/১২)

ঢাকা : ১৯.৫ ওভারে ১৩১ (শাহজাদ ১০, তামিম ৫২, জহুরুল ১০, নাইম ৪, মাহমুদউল্লাহ ৫, রাসেল ১২, শুভাগত ১৩, ইসুরু ১৬; নাসুম ৩/৯, শরিফুল ৪/৩৪, মুকিদুল ১/২২, নাঈম ১/৭)

ফল : ৩০ রানে জয়ী চট্টগ্রাম

ম্যাচসেরা : নাসুম আহমেদ

ঢাকা/রিয়াদ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়