ঢাকা     শুক্রবার   ০১ জুলাই ২০২২ ||  আষাঢ় ১৭ ১৪২৯ ||  ০১ জিলহজ ১৪৪৩

সমালোচনায় কান না দিয়ে যেভাবে নিজেকে বদলেছেন লিটন

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৫৫, ২৪ মে ২০২২   আপডেট: ২০:০০, ২৪ মে ২০২২
সমালোচনায় কান না দিয়ে যেভাবে নিজেকে বদলেছেন লিটন

মাস ছয়েক আগের কথা। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে নিজের ছায়া হয়ে ছিলেন লিটন দাস। চারদিকে সমালোচনার ডালপালা গজায়। বিভিন্ন অনলাইন শপ ‘লিটন যত রান করবেন তত পার্সেন্টের ডিসকাউন্ট’ দেওয়ার প্রচারণা চালিয়ে ব্যঙ্গ করেছিল। মাত্রাছাড়া সমালোচনার মধ্যে পাকিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি দল থেকে বাদ পড়েন লিটন। ফেরার মঞ্চ হিসেবে বেছে নিলেন টেস্টকে, প্রতিপক্ষ পাকিস্তান। সেটাই লিটনের শুরু, এখন পর্যন্ত সব ফরম্যাটেই রানের ফোয়ারা ছুটছে। 

ধারাবাহিকভাবে রান করে যাওয়া লিটন চলতি শ্রীলঙ্কা সিরিজেও ছুটছেন। চট্টগ্রাম টেস্টে ১২ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছিলেন। আর দ্বিতীয় টেস্টে এসেই খেলেন ক্যারিয়ার সেরা ১৪১ রানের ইনিংস। নিজেকে কীভাবে বদলেছেন লিটন? মঙ্গলবার (২৪ মে) দ্বিতীয় দিন শেষে সংবাদ সম্মেলনে লিটনের দিকে ছুটে যায় এমন প্রশ্ন। 

স্বল্পভাষী লিটন এখানেও নিজেকে আটকে রাখেন। বদলে যাওয়ার কারণ বললেও প্রক্রিয়া বলতে নারাজ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। ‘আপনারা এটা ভালো বলতে পারবেন। আমার কাছে মনে হয় আমার অনুশীলনের ধরন পরিবর্তন হয়েছে।’ 

সেই প্রক্রিয়াটা কী, এমন ফিরতি প্রশ্নে লিটন বলেন, ‘খুবই কঠিন এ জিনিসটা (বলা), কী কী করি না বা কী কী পরিবর্তন হয়েছে। আমার কাছে মনে হয় আমার প্র্যাকটিস মেথড পরিবর্তন হয়েছে এটা আমি বলতে পারি, কিন্তু কী কী পরিবর্তন হয়েছে সেটা আমি বলতে পারব না। কীভাবে সফল হচ্ছি বা কেন হচ্ছি এ জিনিসটা আমার ভেতরে থাক।’

লিটন অনুশীলনের ধরন পরিবর্তন করেই তার সেরা সময় কাটাচ্ছেন। পরিসংখ্যানে সেটি আর পরিষ্কার হবে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর ৮ টেস্টে ৩টি করে সেঞ্চুরি ও হাফ সেঞ্চুরিতে ৭৩০ রান, ৬ ওয়ানডেতে ১ সেঞ্চুরি ও দুই ফিফটিতে ৩৩৬ এবং ২ টি-টোয়েন্টিতে ১ হাফ সেঞ্চুরিতে করেন ৭৩ রান। 

শুধু অনুশীলনের ধরন নয়, লিটনের মানসিকতাতেও এসেছে পরিবর্তন। আগের মতো সমালোচনায় এখন আর কানে নেন না। অবলীলায় বলে দিয়েছেন, ক্রিকেটার যেহেতু হয়েছেন, এসব হবেই। 

ডানহাতি ব্যাটসম্যান বলেছেন, ‘সমালোচনা, এই জিনিসটা হবে। আমার যেহেতু জীবনটা ক্রিকেটের সাথে জড়িয়ে গেছে, ভালো খেললে আপনারা বা জনগণ বাহবা দেবেন। খারাপ খেললেও একই জিনিসটাই করবেন। কারণ তারা চায়, আমি পারফর্ম করি। এই জিনিসটা (সমালোচনা) এখন আর আমাকে বিব্রত করে না।’

‘চেষ্টা করি আমি কতটুকু মনোযোগী অনুশীলনে। আমি অনুশীলন পদ্ধতি অনুসরণ করছি কী না, আমি যদি আমার অনুশীলন প্রক্রিয়া অনুসরণ না করি তাহলে আমি নিজের কাছে দোষী হয়ে যাই। আমি শুধু আমার প্রক্রিয়া অনুসরণ করার চেষ্টা করি, ফলাফল উপরওয়ালার হাতে।’- বললেন লিটন। 

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভরাডুবি হলেও এর আগে লিটন টেস্টে ছিলেন ধারাবাহিক। যদিও বড় ইনিংস পাচ্ছিলেন না। ওয়ানডেতে ছিলেন গড়পড়তা। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একটি সেঞ্চুরি ছাড়া ২০২১ সালে বড় কোনো ইনিংস ছিল না, ছিল না কোনো ফিফটিও। বিশ্বকাপের পরেই যেন বদলে যান লিটন, পরিবর্তন আনেন অনুশীলনে, মানসিকভাবে হন শক্তিশালী। তাতেই পাচ্ছেন ফল। 

লিটন বলেন, ‘চেষ্টা তো সব সময় করি। কিন্তু কোনো সময় ব্যর্থ হই, কোনো সময় সফল হই। তো এটাই ক্রিকেট, এভাবেই চলতে থাকবে। আজকে ভালো করছি, কালকে আবার খারাপ হলে হতেই পারে। তো এটা মেনেই জীবন আর কী। এসব নিয়েই চলতে থাকবে।’ 

তো লিটন চলতে থাকুক এভাবেই!

ঢাকা/রিয়াদ/ফাহিম

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়