ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ১১ আগস্ট ২০২২ ||  শ্রাবণ ২৭ ১৪২৯ ||  ১২ মহরম ১৪৪৪

ছন্দ হারিয়ে পথ ভুলল বাংলাদেশ

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৪:৩৬, ২৫ জুন ২০২২  
ছন্দ হারিয়ে পথ ভুলল বাংলাদেশ

ব্যাটিংয়ে দুর্দান্ত শুরু করলেও বেশি দূর এগোতে পারেননি তামিম ইকবাল

দিনের শুরুটা যতটা রঙিণ ছিল, দিনের শেষটা ততটাই ধূসর। প্রভাবের সূর্য দিনের পূর্ভাবাস দেয় ঠিকই। কিন্তু সব সময় সেই মোতাবেক দিন শেষ হয় না। পড়ন্ত বিকেল কখনো হয় আক্ষেপের। কখনো সুখের। সেন্ট লুসিয়ায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ দিনের শুরুতে হাসতে না পারলেও শেষটা রঙিণ করেছে। আর বাংলাদেশ ছন্দ হারিয়ে পথ ভুলেছে। 
দ্বিতীয় টেস্টের প্রথম দিনটি ক্যারিবিয়দের নামেই লিখা হলো। বাংলাদেশ ২৩৪ রানে অলআউট করে ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথম দিন শেষ করেছে বিনা উইকেটে ৬৭ রানে। ১৬৭ রানে পিছিয়ে থেকে দিন শেষ করেছে স্বাগতিকরা। 

উইকেটে ঘাস ছিল। শুরুর সুবিধা কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশকে ব্যাকফুটে ঠেলে দেবে এমন ভাবনাতে টস জিতে অতিথিদের ব্যাটিংয়ে পাঠান ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট। তবে তার শুরুর পরিকল্পনা সফল হতে দেননি তামিম ও জয়। শুরু ঘণ্টায় বাংলাদেশ হারায়নি কোনো উইকেট। সাবলীল ব্যাটিংয়ে সামনে নেয় আক্রমণ। তবে রোচের বলে দুবার আউট হয়েও রিভিউ নিয়ে বেঁচে যান জয়। তবে এ ওপেনার দ্বিতীয় ঘণ্টায় নিজেকে আর আটকে রাখতে পারেননি। অভিষিক্ত অ্যান্ডারসন ফিলিপ নিজের দ্বিতীয় বলে পেয়ে যান জয়ের উইকেট।

একটু ভেতরে ঢোকানো বল মিস করে জয় বোল্ড হন ১০ রানে। তামিম প্রতি আক্রমণে রান তুলছিলেন অনায়েসে। দলের রান যখন পঞ্চাশ পেরিয়ে যায় তখন তামিমের একার রানই ৩৮। দলকে ভালো শুরু এনে দিলেও বাঁহাতি ওপেনার ফিফটি ছুঁতে পারেননি। খেলতে পারেননি লম্বা ইনিংস। আলজারি জোসেফের শর্ট বলে আগে ব্যাট চালিয়ে ৯ বাউন্ডারিতে ৪৬ রান করা তামিম ক্যাচ দেন পয়েন্টে।

দুই ওপেনারকে হারালেও প্রথম সেশনটা ছিল বাংলাদেশেরই। তবে চার উইকেট তুলে নিয়ে দ্বিতীয় সেশনটা নিজেদের করে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। সেখানেই বাংলাদেশ হারায় ছন্দ। পিছিয়ে যায় দিনের লড়াইয়ে। শান্তু ও মুমিনুলের জায়গায় দলে ফেরা এনামুল দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে দলকে এগিয়ে নেন। বিরতির আগে-পরে দুই ব্যাটসম্যানের আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিংয়ে মনে হচ্ছিল বড় কিছুই করবেন তারা। কিন্তু ক্যারিবিয়ানদের নিখুঁত বোলিংয়ের সঙ্গে আম্পায়ারদের আম্পায়ার্স কলে শেষ তাদের লড়াই। 

৮ বছর পর দলে ফিরে ফেরার ইনিংসে এনামুল ২৩ রানে সেই ফিলিপের বলে এলবিডব্লিউ হন। একটু নিচু হওয়া বল মিডল স্টাম্পের বেলসকে ছুঁয়ে বেরিয়ে যাচ্ছিল। স্বাগতিকদের আবদনে আঙুল তোলায় আম্পায়ার্স কলে সাজঘরে ফিরতে হয় এনামুলকে। 

পরের ওভারে শান্তর আউটও একই ভঙ্গিমায়। আম্পায়ার মাঠে নট আউট কল করলে শান্ত ২৬ রানের ইনিংসটি বড় করার সুযোগ পেত। পরপর দুই ওভারে আম্পায়ার্স কলে দুটি আউটে অসন্তুষ্ট দেখায় বাংলাদেশ দলের সদস্যদের। লিটন দাসের সঙ্গে জুটিতে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে ফেলেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু অযথা শট খেলতে গিয়ে সাকিব আলজারি জোসেফের বল উইকেটে টেনে বোল্ড হন। 

টিকতে পারেননি সোহানও। দারুণ কাটে চার রানে রানের খাতা খোলা এ ব্যাটসম্যান জোসেফের বাউন্সার সামলাতে না পেরে কিপারকে ক্যাচ দেন। মিরাজকে নিয়ে আবার দেয়াল হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন লিটন। দারুণ সব শটে মুগ্ধ করছিলেন সবাইকে। কিন্তু সঙ্গীর অভাবে হাফ সেঞ্চুরির পর আগ্রাসন দেখাতে গিয়ে আউট হতে হয় তাকে। এর আগে মিরাজ পয়েন্টে থমাসের দারুণ ক্যাচে পরিণত হন। লিটন দলীয় সর্বোচ্চ ৫৩ রান করে মিড অনে ক্যাচ দেন। 

ক্যারিবিয়দের এরপর হতাশ করেন শরিফুল ইসলাম ও ইবাদত হোসেন। ১৭ বলে ৫ চারে ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ২৬ রান করেন শরিফুল। ইবাদতের ব্যাট থেকে আসে ৩৫ বলে ২১ রান। যা তারও ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের সিলস ও আলজারি জোসেফ নেন ৩টি করে উইকেট, ২টি করে নিয়েছেন কাইল মায়ার্স ও অ্যান্ডারসন ফিলিপ। ২৫০তম উইকেটের অপেক্ষা আরেকটু বেড়েছে কেমার রোচের। সব মিলিয়ে বাংলাদেশ এ ইনিংসে মেরেছে ৩৯টি চার। আক্রমণাত্মক এ ব্যাটিংই কাল হয়েছে বাংলাদেশের জন্য। নয়তো ইনিংস বড় করার সুযোগ ছিল ব্যাটসম্যানদের। তবে কিভাবে এমন উইকেটে খেলতে হয় দেখিয়ে দিয়েছেন দুই স্বাগতিক অধিনায়ক ব্র্যাথওয়েট ও ক্যাম্পবেল। 

প্রায় ওয়ানডে স্টাইলে খেলে ১৬ ওভারে ৬৭ রান তুলেছেন তারা। দুজন বাউন্ডারি মেরেছেন ৯টি। তাদের ব্যাটিংই বলে দেয় বোলাররা ছিলেন কতটা নির্বিষ, কতটা বাজে। ব্যাটিংয়ের পর বোলিংয়েও খারাপ সময় কেটেছে শরিফুল, ইবাদত, সাকিব, মিরাজদের। 

শনিবার দ্বিতীয় দিনের খেলায় ঘুরে দাঁড়াতে পারবে তো বাংলাদেশ? নাকি প্রথম ইনিংসের ব্যাটিং ব্যর্থতায় আরেকবার ডুবতে হবে দলকে। 

ঢাকা/ইয়াসিন/ মাসুদ

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়