ঢাকা     শুক্রবার   ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||  আশ্বিন ১৫ ১৪২৯ ||  ০৩ রবিউল আউয়াল ১৪১৪

আস্থার প্রতিদান দিতে পারবেন মাহমুদউল্লাহ?

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৫২, ১৪ আগস্ট ২০২২  
আস্থার প্রতিদান দিতে পারবেন মাহমুদউল্লাহ?

বিশ্রামে পাঠিয়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের থেকে কেড়ে নেওয়া হয়েছিল টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব৷ হুট করেই সতীর্থের ইনজুরিতে আবার দলে ফেরেন তিনি। কিন্তু সেই সুযোগটি কাজে লাগাতে না পারার সঙ্গে বিশ্রামে পাঠানোর সিদ্ধান্ত যে সঠিক ছিল সেই প্রমাণ দিয়ে দেন।

তার ব্যাটে কেবল রান খরাই নয়, ব্যাটিং অ্যাপ্রোচ রীতিমতো প্রশ্নবিদ্ধ, একেবারে বেমানান। অথচ এই খেলোয়াড়কে নিয়েই এশিয়া কাপে অংশ নিতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। কেবল অভিজ্ঞতা দিয়েই মাহমুদউল্লাহ টিকে গেছেন এশিয়া কাপের স্কোয়াডে।

তবে এই টুর্নামেন্ট তার ক্যারিয়ারের ভাগ্য নির্ধারণ করে দেবে তা মনে করছেন কেউ কেউ। তাকে দলে রাখার পেছনে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন যুক্তি দিয়েছিলেন এভাবে, ‘এশিয়া কাপ অনেক বড় টুর্নামেন্ট। অভিজ্ঞতা এখানে বড় ব্যাপার। এই জায়গায় অভিজ্ঞ ক্রিকেটার প্রয়োজন বলে আমরা চিন্তা-ভাবনা করেছি।’

সাকিব আল হাসান ২০১৯ সালে নিষিদ্ধ হওয়ার পর মাহমুদউল্লাহকে টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক করা হয়। প্রথম অ্যাসাইনমেন্টে মাহমুদউল্লাহ সফল। তার নেতৃত্বে দল জেতে ভারতের দিল্লিতে। সিরিজ হারলেও বাংলাদেশের পারফরম্যান্স ছিল প্রশংসিত। তবে মাহমুদউল্লাহকে স্থায়ী অধিনায়ক করেনি বোর্ড। সিরিজ বাই সিরিজ ছিল তার মেয়াদ। এভাবেই কেটে যায় দুই বছর। সাকিব ফিরলেও মাহমুদউল্লাহর হাতেই থাকে আর্মব্যান্ড। কিন্তু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে পরে রান খরায় তাকে ঘিরে তৈরি হয় প্রবল সমালোচনা। গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের মূলপর্ব থেকে এখন পর্যন্ত ১৪ টি-টোয়েন্টি ইনিংসে স্রেফ ১৭.৪১ গড়ে তার রান ২০৯, স্ট্রাইক রেট মাত্র ১০০.৪৮।

অথচ তিনি এমন জায়গায় ব্যাট করেন, যেখানে দলের দাবি থাকে দ্রুত রান। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ টি-টোয়েন্টিতে তাকে যুক্ত করা হয় সোহানের ইনজুরিতে। মূল একাদশে জায়গা পেয়েও মাহমুদউল্লাহ ২৭ বলে ২৭ রান করে এ ফরম্যাটে দাড়ি প্রায় টেনে ফেলেছিলেন। তবে জানা গেছে, অধিনায়ক সাকিবের চাওয়াতেই মাহমুদউল্লাহ টিকে গেছেন এশিয়া কাপের স্কোয়াডে।

মিনহাজুল আবেদীন সেই কথাও বলেছেন গণমাধ্যমে, ‘অধিনায়কের সঙ্গে অনেক বিষয় নিয়েই আলোচনা হয়েছে। যেহেতু আমরা টি-টোয়েন্টিতে ভালো অবস্থানে নেই। সেসব বিবেচনায় নিয়েই দল তৈরি করেছি।’

টেস্ট থেকে অবসরে যাওয়া মাহমুদউল্লাহ সীমিত ওভারের ক্রিকেট খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু টি-টোয়েন্টিতে তার অবস্থান নড়বড়ে। ওয়ানডেতেও ভালো অবস্থানে নেই তিনি। হারারেতে তৃতীয় ওয়ানডেতে তার ৬৯ বলে ৩৯ রানের মন্থর ইনিংসে রীতিমত বিরক্ত অনেকে। যেখানে তরুণ ক্রিকেটাররা স্বাচ্ছন্দ্যে খেলে রান করেছেন বিপরীতে মাহমুদউল্লাহর মন্থর ব্যাটিং প্রশ্ন তুলেছে।

গতকাল বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে সাকিব আল হাসানের বৈঠকেও মাহমুদউল্লাহর ধীর গতির ব্যাটিং নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে সাকিব সতীর্থদের ওপর পূর্ণ আস্থা দেখিয়েছেন বলেই জানা গেছে।

এদিকে আসন্ন এশিয়া কাপ মাহমুদউল্লাহর ক্যারিয়ারের নির্ধারণ করে দেবে বলে মনে করছেন কেউ কেউ। বিসিবির এক পরিচালক বলেছেন, ‘মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে অনেক দিন ধরেই আলোচনা হচ্ছিল। কিন্তু আমাদের হাতে রিপ্লেসমেন্ট ছিল না বলে কিছু করা যাচ্ছিল না। এখন সোহান, ইয়াসিররা আছে। ওরা আবার এখন ইনজুরিতে। মাহমুদউল্লাহকে নিজের জায়গা টিকিয়ে রাখতে অবশ্যই অভাবনীয় কিছু করতেই হবে।’

মাহমুদউল্লাহর ক্যারিয়ারের শুরু থেকে গাইড করে আসছেন খালেদ মাহমুদ। বর্তমানে টিম ডিরেক্টর হিসেবে কাজ করা সাবেক অধিনায়কও মনে করছেন, মাহমুদউল্লাহ কঠিন অবস্থায় আছেন। তবে এখান থেকে বেরিয়ে শক্ত অবস্থানে যাওয়ার সব পথ তার জানা আছে।

তার ভাষ্য, ‘মাহমুদউল্লাহ নিশ্চিতভাবেই আমাদের জন্য বড় শক্তি। কোনোভাবেই এটাকে অস্বীকার করা যাবে না। হ্যাঁ, রান না পাওয়ায় হয়তো চাপে আছে। তবে এসব খেলোয়াড়রা বড় মঞ্চে সব সময় রান করে। নিজের খেলাটা বের করে আনতে পারে। এশিয়া কাপ অবশ্যই তার জন্য বড় টুর্নামেন্ট হতে যাচ্ছে। আমরা আগে দেখেছি নিহাদাস ট্রফি, বিশ্বকাপ বা চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে সে কেমন করেছে। আমাদের আস্থা আছে আমাদের ছেলের প্রতি। আমি নিশ্চিত সে ভালোভাবেই ফিরে আসবে। রান করবে। আমাদের ম্যাচ জেতাবে।’

ইয়াসিন/আমিনুল

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়