ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ০৮ ডিসেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ২৩ ১৪২৯

বিশ্বকাপকে পাখির চোখ করে রাতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ 

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:২৯, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২  
বিশ্বকাপকে পাখির চোখ করে রাতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ 

‘অবশ্যই একটা কনসার্ন থাকবে, বিশ্বকাপের সম্ভাব্য একাদশটা যেন আমরা দাঁড় করাতে পারি। তার আগে আমাদের এখানে দুইটা ম্যাচ আছে, নিউজিল্যান্ডে ম্যাচ আছে। অবশ্যই আমাদের যে সেরা কম্বিনেশন সেটা খোঁজার চেষ্টা করা হবে’-আরব আমিরাতের বিপক্ষে ম্যাচের আগের দিন এভাবেই বলেছেন অধিনায়ক নুরুল হাসান সোহান।

দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে আজ রোববার বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় স্বাগতিকদের মুখোমুখি হবে লাল সবুজের প্রতিনিধিরা। খেলা দেখা যাবে সরাসরি গাজী টিভিতে। বিশ্বকাপ ভাবনায় রেখে সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিতে মুখিয়ে আছে বাংলাদেশ। সোহানের এক কথাতেই তা পরিস্কার।

মূল অধিনায়ক সাকিব আল হাসান না থাকলেও তার পরামর্শও নিচ্ছে টিম ম্যানেজম্যান্ট। বলা যায় বিশ্বকাপের আগে নিজেদের সেরা একাদশ বাছাইয়ের জন্য এই ম্যাচগুলো ড্রেস রিহার্সাল।

এশিয়া কাপে সব শেষ ম্যাচে ওপেনিং করেছিলেন সাব্বির রহমান-মেহেদি হাসান মিরাজকে। লিটন দাস ফেরায় তার সঙ্গী হতে পারেন সাব্বির। আর তিনে সাকিব আল হাসানের জায়গায় সৌম্য সরকার। সৌম্যর বিশ্বকাপের মূল দলে জায়গা করে নেওয়ার জন্য এই ম্যাচগুলোতে হতে পারে অগ্নিপরীক্ষা।

এছাড়া মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ নেই। মুশফিক অবসরে আর মাহমুদউল্লাহর জায়গা হয়নি। তাদের জায়গায় আছেন ইয়াসির আলী রাব্বী ও নুরুল হাসান সোহান। আফিফকে চারে দেখা যেতে পারে ব্যাটিংয়ে। ইনজুরি কাটিয়ে দলে ফেরা পেসার হাসান মাহমুদকে দেখা যেতে পারে একাদশে।

তবে নির্দিষ্ট করে কারো নাম বলতে চাননি সোহান।  ‘আসলে নির্দিষ্ট করে কারও নাম নিতে চাচ্ছি না কালকে যেহেতু ম্যাচ হবে। অবশ্যই আমাদের সেরা কম্বিনেশন নিয়েই মাঠে নামার চেষ্টা করব। সামনে আমাদের নিউজিল্যান্ড ও বিশ্বকাপ আছে আমরা একটা প্রসেসের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছি। এই ম্যাচেও ওঁটাই ফলো করার চেষ্টা করব।’

প্রতিপক্ষ টিম নিয়ে সবচেয়ে বড় প্রশ্ন। আরব আমিরাত অপেক্ষাকৃত দুর্বল দল। তাদের হারালে ভুল আত্মবিশ্বাস তৈরি হবে কী না প্রশ্নে উড়িয়ে দিয়েছেন সোহান।  ‘প্রথমত আমি কোনো দল দুর্বল কিংবা ছোট এই শব্দটা কখনোই ব্যবহার করতে চাই না। তারা যেহেতু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেলছে, তারা ক্যাপাবল। টি-টোয়েন্টিতে আপনি দেখবেন যারা যেদিন ভালো খেলে ফল তাদের পক্ষে আসে।’

এই দেশটির বিপক্ষে বাংলাদেশ মাত্র ১টি ম্যাচ খেলে। ২০১৬ এশিয়া কাপে ঘরের মাঠে এই ম্যাচে বাংলাদেশ জয় পায় ৫১ রানে। এর মধ্যে দিয়ে দুবাইয়ে জয়ের খরাও কাটাতে পারে বাংলাদেশ। দুবাই আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামে বিশ্বকাপ ও এশিয়া কাপে দুই ম্যাচ খেলে দুটিতেই হেরেছে। এছাড়া আরব আমিরাতে খেলা সবশেষ ৭ ম্যাচের একটিতেও জেতেনি বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের লক্ষ্য একটাই, ম্যাচ জেতা। অধিনায়কের ভাষ্য, ‘বেস্ট ফোকাস যদি বলি অবশ্যই ম্যাচ জেতা। যেটা বললাম আন্তর্জাতিক প্রতিটি ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ।  বাংলাদেশের হয়ে খেলা প্রতিটি ম্যাচই আমার কাছে মনে হয় সমান গুরুত্বপূর্ণ। সে ক্ষেত্রে যেহেতু এটা আন্তর্জাতিক ম্যাচ যেটা বললাম শতভাগ দিয়ে বেস্ট ফোকাস হল ম্যাচটা জেতা।’

/রিয়াদ/সাইফ/

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়