ঢাকা     রোববার   ২৯ জানুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ১৬ ১৪২৯

মেসির পায়ে বিজয়ের নিশানা

ইয়াসিন হাসান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০৪:৩৪, ৪ ডিসেম্বর ২০২২   আপডেট: ১২:১৭, ৫ ডিসেম্বর ২০২২
মেসির পায়ে বিজয়ের নিশানা

এমন একটি দিনের জন‌্য যদি লিওনেল মেসিকে ষোলো বছর অপেক্ষা করতে হয় তাহলে সেই অপেক্ষাতেও আপত্তি নেই। প্রথম নয়, দ্বিতীয় নয়, তৃতীয় বা চতুর্থতেও নয়, নিজের পঞ্চম ও শেষ বিশ্বকাপ খেলতে এসে মেসি বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে প্রথম গোল পাবেন তা বিধাতা লিখে রেখেছিলেন বহু আগেই। 

হয়তো চেয়েছিলেন বড় মঞ্চে মেসির জাদুকরী পা ছুঁয়ে এমন কিছু হবে যেদিন বিশ্ব আড়ম্বরে তার কীর্তিকে মনে রাখবে। সেদিন ইতিহাসের অক্ষয় কালিতে লিখা হবে মেসির নাম, মেসির অর্জন, মেসির বীরত্বগাথা। শনিবার রাতে কাতারের আহমেদ বিন আলী স্টেডিয়ামে চসে আসে সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। যেখানে সমর্থক-অসমর্থক উপস্থিত প্রায় ৪৫ হাজার দর্শক একবার হলেও বলেছেন,‘মোহনীয় মেসি।’

পেশাদার ফুটবল ক‌্যারিয়ারে নিজের হাজারতম ম‌্যাচ খেলতে নেমে মেসি পেয়েছেন নক আউট পর্বে প্রথম গোল। তার গোলে প্রি কোয়ার্টারে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে লিড পাওয়ার পর ২১ বছরের সতীর্থ জুলিয়ান আলভারেস ব‌্যবধান দ্বিগুন করে। অস্ট্রেলিয়া ষোলো বছর পর দ্বিতীয় রাউন্ড খেলতে এসে এক গোল শোধ দিলে স্কোরলাইন ২-১ দাঁড়ায়। শেষ মুহুর্তে অস্ট্রেলিয়া চেষ্টা চালালেও ওই স্কোরলাইনে শেষ হয় তাদের বিশ্বকাপ যাত্রা। তাতে অধরা শিরোপার মিশনে মেসি এগিয়ে যায় আরো একধাপ। শেষ ষোলো থেকে শেষ আট।

বিশ্বকাপের ওই সোনালী ট্রফির কাছে মেসি যত এগিয়ে যাচ্ছেন তত তার পারফরম‌্যান্স ক্ষুরধার হচ্ছে। মেসি করছেন মুগ্ধ। প্রতিপক্ষ হচ্ছে দগ্ধ। অস্ট্রেলিয়ার জালে ম‌্যাচের ৩৫ মিনিটে গোল করেন মেসি। গোলের এক মিনিট আগে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড় তার জার্সি টেনে তেতিয়ে দিয়েছিলেন। ক্ষুদ্ধ মেসি প্রতিক্রিয়াও দেখিয়েছেন। কিন্তু তার মাথায় কি চলছিল বোঝার উপায় ছিল না।

এক মিনিট পর ডি বক্সের কাছে ফ্রি কিক পেয়েছিল আর্জেন্টিনা। মেসির নেওয়া শট ফিরিয়ে দেন অস্ট্রেলিয়ার সাউটার। কিন্তু বল নাগালেই ছিল। মেসি ফিরতি পাসে বল দেন ডি পলকে। তার থেকে আবার বল পেয়ে বক্সে ঢুকে বাঁ পায়ের মাটি ঘেঁষা শটে গোল করেন। এমন পজিশনে মেসির অসংখ‌্য গোল করেছেন। শটটা তার মুখস্থই ছিল। গোলরক্ষক রায়ান বলের লাইনে গিয়ে চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু মেসির জাদুময় রাতে হার মানতে হয় সবচেষ্টাকেই।

দেশের জার্সিতে মেসি নেমেছিলেন ১৬৯ তম ম‌্যাচ খেলতে। দুই ক্লাব বার্সেলোনার হয়ে ৭৭৮ ও পিএসজির হয়ে ৫৩ ম‌্যাচ খেলেছেন। সব মিলিয়ে হয় হাজারতম ম‌্যাচ। যেখানে তার গোলসংখ‌্যা ৭৮৯। অ‌্যাসিস্ট ৩৪৮। ফুটবলের জাদুকর হতে আর কী লাগে মেসির!

সাতটি ব‌্যালন ডি অর জেতা মেসির শোকেসে সব থাকলেও নেই শুধু বিশ্বকাপের ট্রফি। সেই অধরা ট্রফি জেতার জেদ নিয়েই কাতার গিয়েছেন। এজন‌্য যে ব্রিগেড পেয়েছেন তাতে রয়েছে একঝাঁক উদ্দীপ্ত সৈনিক। যারা শুধু মেসির হাতে শিরোপা দেখতে চায়। জুলিয়ান আলভারেস তালিকার অন‌্যতম। পোল‌্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম‌্যাচে গোল করার পর আজও গোল করেছেন  আলভারেস। অস্ট্রেলিয়ার গোলরক্ষক রায়ানের ভুলে ডি বক্সের ভেতরে ফাঁকায় বল পেয়ে লক্ষ‌্যভেদ করেন আলভারেস।

মনে হচ্ছিল ২-০ ব‌্যবধানেই আর্জেন্টিনা শেষ আটে পা রাখবে। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া শেষ ২৫ মিনিটে যেভাবে আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসেছিল তাতে আর্জেন্টিনা একাধিক গোল হজম করলেও অবাক করার কিছু থাকত না। ৭৭ মিনিটে ক্রেইগ গুডউইনের দূরপাল্লার শট এনজো ফার্নান্দেজের মুখে রিফ্লেক্ট করে আর্জেন্টিনার জালে জড়ায়। মিনিট পাঁচেক পর অস্ট্রেলিয়া আরেকটি সুযোগ তৈরি করেছিল। কিন্তু রক্ষণের খেলোয়াড় মার্টিনেজ পা বাড়িয়ে বল ক্লিয়ার করায় বেঁচে যায় আর্জেন্টিনা।

ঠিক একই পরিস্থিতি তৈরি হয় ম‌্যাচের যোগ করা সময়ে। ডি বক্সের ভেতরে পোষ্টের ছয় গজ দূর থেকে কউলের নেওয়া শট গোলরক্ষক মার্টিনেজ লাফিয়ে তালুবন্দি করে ফেলেন। মার্টিনেজ বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আর্জেন্টিনার লাখো কোটি সমর্থকদের হৃদস্পনন্দন ফিরিয়ে দেন। এর আগ পর্যন্ত যেভাবে ম‌্যাচের রং বদলাচ্ছিল তাতে মেসির কপালেও চিন্তার ভাঁজ পড়েছিল।

তাইতো প্রতি আক্রমণে গোল করতে মুখিয়ে ছিলেন মেসি। সুযোগও তৈরি করেছিলেন একাধিকবার। কিন্তু তার নেওয়া শট রায়ান ফিরিয়ে দেন। রক্ষণেও মেসি আটকে গিয়েছেন। তাকে রুখতে অস্ট্রেলিয়ার তিন-চার ডিফেন্ডার ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। আবার তার বাঁ পায়ের বাঁকানো শট পোস্টের খুব কাছ ঘেঁষেও চলে গেছে একাধিকবার। রক্ষণে দুই মার্টিনেজ আর্জেন্টিনাকে গোল হজমের থেকে বাঁচিয়েছেন। কিন্তু ফরোয়ার্ডে লাউতারো মার্টিনেজ গোল করার একাধিক সুযোগ যেভাবে নষ্ট করেছেন তাতে মনে হয়েছে ২০১৪ বিশ্বকাপের হিগুয়েন ‘ভূত’ চড়া দিয়েছে আর্জেন্টিনার স্কোয়াডে! সেসব কাটিয়েই আর্জেন্টিনা বিজয়ের হাসি হেসেছে। চলে গেছে শেষ আটে।

 

নিজের হাজারতম ম‌্যাচে গোল করে, নক আউট পর্বে গোলের গেরো ছুটিয়ে মেসি বিশ্বকাপের ট্রফির দৌড়ে আরেকধানিজের ষোলো বছরের অপেক্ষা ফুরানোর বিশ্বকাপে আলবিসেলেস্তেদের ছত্রিশ বছরের অপেক্ষা দূর করতে পারেন কিনা সেটাই দেখা। যদি পারেন মেসি পেয়ে যাবেন অমরত্বের স্বীকৃতি।প এগিয়ে গেলেন।

ঢাকা/ইয়াসিন

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়