ঢাকা     শনিবার   ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||  মাঘ ২১ ১৪২৯

ব্যর্থতার ভয়কে মনের মধ্যে আনেন না তাসকিন

ক্রীড়া ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১২:৫০, ২৫ জানুয়ারি ২০২৩   আপডেট: ১২:৫৪, ২৫ জানুয়ারি ২০২৩
ব্যর্থতার ভয়কে মনের মধ্যে আনেন না তাসকিন

খেলাধুলায় শারীরিক শক্তিমত্তার সঙ্গে মনটাকেও নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরি। সেটাই হৃদয়ে ধারণ করেন তাসকিন আহমেদ। বিপিএলে ঢাকা ডমিনেটর্সের দ্বিতীয় জয়ে দুর্দান্ত অবদান রাখার পর জানালেন, ব্যর্থতার ভয়কে দূরে সরিয়ে মাঠে নামেন তিনি।

খুলনা টাইগার্সকে হারিয়ে বিপিএল শুরু করেছিল ঢাকা। এরপর হারতে হারতে শ্রান্তক্লান্ত তারা। অবশেষে ছয় ম্যাচ পর নিজেদের অষ্টম খেলায় জয়ের দেখা পেয়েছে নাসির হোসেনের দল। সেই খুলনাকেই হারালো ঢাকা, মঙ্গলবার চার উইকেট নিয়ে জয়ের নায়ক তাসকিন আহমেদ।

এই আসরে নিজের সেরা বোলিং পারফরম্যান্স করেছেন তাসকিন। মাত্র ১০৮ রান করেও তার আগুন বোলিংয়ে খুলনাকে ৮৪ রানে অলআউট করে জয় পায় ঢাকা।

এত অল্প রান ডিফেন্ড করতে গিয়ে তাসকিন হারাননি বিশ্বাস, ‘প্রত্যেক ম্যাচেই আসলে বিশ্বাস নিয়ে নামি। সত্যি কথা বলতে, আমি আমার প্রক্রিয়ায় বিশ্বাস করি। কঠোর পরিশ্রম করি। যেহেতু আমি সততা নিয়ে কাজ করি, সেহেতু আল্লাহ আমাকে যে কোনো সময় যে কোনো কাজে পুরস্কার দিতে পারে। আর আমার প্রক্রিয়ার বাইরে আমি যাই না বলে আমার বিশ্বাস হয়, ক্রিকেটে যে কোনো কিছু হতে পারে।’

দ্বিতীয়বার ২ পয়েন্ট পেয়ে চার পয়েন্ট নিয়ে টুর্নামেন্টে এখনও বেঁচে থাকলো ঢাকা। ৩.৩ ওভারে মাত্র ৯ রান দিয়ে চার উইকেট নিয়ে ম্যাচ জেতান তাসকিন। দলকে খাদের কিনারা থেকে তুলে আনতে পেরে উচ্ছ্বসিত পেসার, ‘এই ম্যাচটা অবশ্যই জিততে হতো। হারলে আমরা টুর্নামেন্ট থেকে মোটামুটি ছিটকেই যেতাম। এই ম্যাচটা জিতে এখনও আশা আছে। আমরা যদি পরের ম্যাচগুলো জিতি, কে জানে আমরা কোয়ালিফায়ার করতেও পারি। আমি আমার ভূমিকা জানি, দ্রুত ও আগ্রাসী বোলিং করা। আলহামদুলিল্লাহ ম্যাচটা জিততে পেরেছি এবং অবদান রাখতে পেরেছি, খুব ভালো লাগছে।’

নিজে ছাড়াও অন্য বোলারদের কৃতিত্ব দিতে ভোলেননি তাসকিন, ‘উইকেট ভালো ছিল। উইকেট ভালো না হলে তো দিনের প্রথম ম্যাচে (বরিশাল বনাম সিলেট) বড় সংগ্রহ হতো না। আসলে আমরা ভালো বল করেছি, ওরাও (প্রতিপক্ষ) ভালো বল করেছিল। আমরা তুলনামূলক ভালো বোলিং করেছি, সবাই শৃঙ্খল ছিল।’

ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার দিনে সৌম্য সরকার ফিফটি করেছেন। সতীর্থকে নিয়ে বাংলাদেশের পেস তারকার বক্তব্য, ‘সৌম্য ফিফটি করায় খুব খুশি। সে অনেক পরিশ্রম করছে। সতীর্থ হিসেবে আমি বলেছি তাকে প্রক্রিয়া ঠিক রাখতে হবে। সে সেটাই করেছে। আমার বিশ্বাস সে দ্রুত সেরা ফর্মে আসবে। আমারও প্রক্রিয়ার বাইরে কিছু নেই। আমি সেটাতেই আস্থা রাখি।’

মাঠে নামার সময় তাসকিন সবসময় ইতিবাচক থাকেন। ব্যর্থতার ভয়কে সরিয়ে চেষ্টা করেন নিজের সেরাটা দিতে, ‘ক্রিকেট খেলোয়াড় হিসেবে আমার মঞ্চ আর গ্ল্যামার ২২ গজে, এখানে সেরাটা দিয়ে উপভোগের চেষ্টা করি। কোনোদিন ভালো হবে, কোনোদিন হবে না। কিন্তু পরিশ্রম করা, প্রক্রিয়ায় থাকা, মাইন্ড ট্রেনিং করা- সব কিছু মিলিয়ে যাতে মাঠে ব্যর্থতার ভয় করা ছাড়া আমি খেলার চেষ্টা করি। কিছু দিন হয়তো পক্ষে থাকবে না, কিন্তু সেটাও মেনে নিতে হবে। তো এটাই, ব্যর্থতা করার ভয় ছাড়া আমি চেষ্টা করি মাঠে খেলতে। ফিল্ডিংয়েও একই কথা। আগে খারাপ ছিল। এখন উন্নতির চেষ্টা করছি, উন্নতির শেষ নেই।’ 

ঢাকা/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়