ঢাকা     শনিবার   ০৮ আগস্ট ২০২০ ||  শ্রাবণ ২৪ ১৪২৭ ||  ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

হাতিয়ায় ছাত্রদলের ওপর ছাত্রলীগের হামলা: আহত ৬

|| রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৮:৪৮, ১৮ নভেম্বর ২০১২  

নোয়াখালী: নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক মো. ফাহিম উদ্দিনের ওপর ছাত্রলীগ কর্মীরা রোববার দুপুরে হামলা চালিয়েছে। এসময় ফাহিমসহ ছাত্রদলের ৬ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

আহতরা হলেন- মো. ফাহিম উদ্দিন (২৬), মো. ফারুক (২৫), মো. রাশেদ (২৬), মো. রুবেল (২৫), রিপন চন্দ্র দাস (২৪) ও রাফুল (২৫)।

ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বাংলানিউজকে জানান, সারাদেশে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার অংশ হিসেবে এ হামলা চালানো হয়েছে। এলাকায় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গত ৬-৭ মাস আগে ছাত্রলীগের ক্যাডাররা স্বতন্ত্র প্রার্থী আজিম সমর্থিত ছাত্রদল কর্মীদের সহায়তায় উপজেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক মো. ফাহিমকে হত্যার উদ্দেশে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে প্রায় ২২টি কোপ দিয়েছিল।

রোববার উপজেলা সদরের উছাখালী বাজারে মসজিদ মার্কেটে আড্ডা দেওয়ার সময় উপজেলা ছাত্রলীগ ক্যাডার রাজু, হাফিজ, দিদার, বাপ্পি, ইয়াসিন, হাসিব, জাহঙ্গীর, তানিম ও হাসানসহ ১৫ থেকে ২০ জন ছাত্রদলের আজিম সমর্থিত বাক্কু, রতন, এরফানের সহায়তায় দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ফাহিমের ওপর হামলা চালায়।

ছাত্রলীগ ক্যাডাররা ফাহিমকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। এসময় তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে ছাত্রলীগ নেতাদের হামলায় অন্তত ৫ ছাত্রদল কর্মী আহত হয়।

ফাহিম ও ছাত্রদল কর্মীদের আহতের খবরে ছাত্রদল নেতাকর্মীরা উপজেলায় আসলে ছাত্রলীগ কর্মীরা পালিয়ে যায়। পরে আহত অবস্থায় তাদের হাতিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

হামলায় আহত ছাত্রদলের আহ্বায়ক ফাহিম অভিযোগ করে বাংলানিউজকে বলেন, “স্থানীয় এমপি ফজলুল আজিম সমর্থিত ছাত্রদল নেতা বাক্কু, জাহাঙ্গীর, এরফানসহ ছাত্রদল কর্মীরা ছাত্রলীগের ক্যাডারদেরকে ভাড়া করে মেরে ফেলার জন্য এনেছে।”

তিনি আরও জানান, “এর আগেও আধিপত্য বিস্তার ও কমিটি ঘোষণা নিয়ে ছাত্রদল সভাপতি মো. ফাহিমকে প্রায় ৬ থেকে ৭ মাস আগে ছাত্রদলের আজিম সমর্থিত শামীম ও রাশেদ গ্রুপ উপজেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে আমাকে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে প্রায় ২২টি কোপ দিয়েছিল।”

উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাকায়েত হোসেন সৈকত বাংলানিউজকে জানান, পূর্ব পরিকল্পিতভাবে বিএনপি থেকে বহিস্কৃত স্থানীয় এমপি আজিম সমর্থিত ছাত্রদলের ক্যাডারদের সহায়তায় ছাত্রলীগ কর্মীরা তাকে হত্যার উদ্দেশে হামলা চালিয়েছে।

যে সব ছাত্রদল নেতা সক্রিয় রাজনীতি করে তাদের নিষ্কৃয় করার জন্য এ হামলা করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্ততি চলছে বলেও তিনি জানান।

হাতিয়া উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক শাহ মেহরাজ হামলার ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বাংলানিউজকে জানান, আধিপত্য বিস্তার নিয়ে ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা ফাহিমকে মারধর করেছে। তবে, বিষয়টি আপোষ-মীমাংসার চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

হাতিয়া থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোক্তার হোসেন বাংলানিউজকে জানান, ছাত্রদলের আহ্বায়কের ওপর হামলার বিষয় শুনে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তবে, লিখিত অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রাইজিংবিডি.কম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়