ঢাকা     শনিবার   ২০ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৫ ১৪৩১

৬ ঘণ্টায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় প্রস্তুত ডিএনসিসি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:১১, ১৬ জুন ২০২৪  
৬ ঘণ্টায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় প্রস্তুত ডিএনসিসি

ফাইল ছবি

গত বছর কোরবানির ঈদের বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সম্পন্ন করতে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সময় লেগেছে ৮ ঘণ্টা। এবারের ঈদে ৬ ঘণ্টার মধ্যে বর্জ্য ব্যবস্থাপনা সম্পন্ন করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম রাইজিংবিডিকে বলেন, ঈদের দিন দুপুর ২টায় আনুষ্ঠানিকভাবে বর্জ্য অপসারণ কার্যক্রম শুরু করা হবে। রাত ৮ টার মধ্যে সব বর্জ্য অপসারণ করা হবে।

ছয় ঘণ্টায় কী করে ডিএনসিসি এলাকার বর্জ্য  ব্যবস্থাপনা সম্ভব? এমন প্রশ্নে মেয়র বলেন, এবার বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় নতুন ৩২টি ডাম্প ট্রাক এবং ৮টি আধুনিক কম্প্যাক্টর ট্রাকের সংযোজন করা হয়েছে। এবার ৪০টি ট্রাক যুক্ত হওয়ায় এই বছর বর্জ্য অপসারণে আরও গতি বাড়বে। যে ৮টি আধুনিক কম্প্যাক্টর ট্রাক যুক্ত হলো-এগুলো সাধারণ ট্রাকের চেয়ে ১০ গুণ বেশি বর্জ্য অপসারণে সক্ষম। এর মাধ্যমে কর্পোরেশন প্রতিদিন অতিরিক্ত প্রায় ৩৫০ টন বর্জ্য অপসারণ করতে পারবে।

৬ ঘণ্টায় কোরবানির বর্জ্য অপসারণের সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে মেয়র বলেন, ঈদে বর্জ্য অপসারণের জন্য ১০ হাজারের অধিক পরিচ্ছন্নতাকর্মী কাজ করবেন। ১০ লাখ ৪০ হাজার পলিব্যাগ বিতরণ করা হচ্ছে। এছাড়া পর্যাপ্ত ব্লিচিং পাউডার, স্যাভলন, টুকরি, ফিনাইল দেওয়া হয়েছে। কাউন্সিলররা ও ডিএনসিসির কর্মীরা মাঠে সার্বক্ষণিক কাজ করবেন।

মেয়র নিজে মাঠে থাকবেন জানিয়ে বলেন, আমি ডিএনসিসি এলাকার জনগণকে অনুরোধ করছি, আপনারা যত্রতত্র কোরবানির বর্জ্য ফেলবেন না। নির্দিষ্ট স্থানে রেখে দেবেন। আপনাদের সহযোগিতা না পেলে নির্ধারিত ৬ ঘণ্টায় কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করা কষ্টকর হবে।

পশুর হাটের বর্জ্য পরিষ্কারের জন্য এবার ইজারাদারদের ওপর ভরসা করবেন না জানিয়ে মেয়র বলেন, ইজারাদাররা নিজেদের সময়-সুযোগ মতো পশুর হাটের বর্জ্য পরিষ্কার করবেন। এই গরমে, গন্ধে ততক্ষণ নগরবাসীর অবস্থা খারাপ হবে। তাই, আমরা নিজেরা এবার বর্জ্য অপসারণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

৬ ঘণ্টায় বর্জ্য অপসারণ তরান্বিত করতে আরও কিছু উদ্যোগের কথা জানান মেয়র আতিকুল ইসলাম। তিনি জানান, এবারই প্রথমবার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৩ নম্বর ওয়ার্ডে প্যারিস রোড সংলগ্ন মাঠে একসাথে অন্তত ৫০০ গরু কোরবানির আয়োজন করা হয়েছে। যেসব নাগরিক এখানে গরু কোরবানি দেবেন, তাদেরকে প্রত্যেক গরুর জন্য প্রণোদনা হিসেবে ডিএনসিসির পক্ষ থেকে এক হাজার টাকা করে দেওয়া হবে।

পশুর হাটের গোবর এবার যথাযথ ব্যবহার করা হবে জানিয়ে মেয়র বলেন, ডিএনসিসি থেকে ইতোমধ্যে বৃক্ষরোপণ কার্যক্রম শুরু করেছি। ডিএনসিসির ৯টি কোরবানির পশুর হাটের গোবর সংগ্রহ করে বৃক্ষরোপণের কাজে ব্যবহার করা হবে।

/এমএ/এসবি/

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়