ঢাকা     শুক্রবার   ১৯ জুলাই ২০২৪ ||  শ্রাবণ ৪ ১৪৩১

আইডব্লিউপিজি’র আয়োজনে ‘টেকসই শান্তির জন্য নারীর ভূমিকা’ শীর্ষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ইবনুল কাইয়্যুম সনি, দক্ষিণ কোরিয়া থেকে || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:১৪, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩   আপডেট: ১৬:১৪, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২৩
আইডব্লিউপিজি’র আয়োজনে ‘টেকসই শান্তির জন্য নারীর ভূমিকা’ শীর্ষক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

ইন্টারন্যাশনাল উইমেনস পিস গ্রুপ (আইডব্লিউপিজি) আয়োজিত চলতি বছরের আন্তর্জাতিক নারী শান্তি সম্মেলন ‘টেকসই শান্তির জন্য নারীর ভূমিকা’ থিমের উপর অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ সেপ্টেম্বর) গ্র্যান্ড হায়াত ইনচিয়নের পশ্চিম গ্যালারিতে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনটি একই সাথে কোরিয়ান, ইংরেজি, ফরাসি, স্প্যানিশ, আরবি, জার্মান, মঙ্গোলিয়া এবং ইউক্রেনসহ ৮টি ভাষায় সম্প্রচার করা হয়।

এই ইভেন্টের উদ্দেশ্য ছিল এখন পর্যন্ত আইডব্লিউপিজি’র অর্জনগুলো তুলে ধরা এবং নারীরা তাদের প্রতিটি পদে শান্তির জন্য কী করতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করা। এটি ১৮ সেপ্টেম্বর বিশ্ব শান্তি সম্মেলনের ৯ম বার্ষিকীর অংশ ছিল, যা আইডব্লিউপিজি’র সমবায় সংস্থা এইচডব্লিউপিএল’র উদ্যোগে শুরু হয়। 

আলোচনার শুরুতে মারিয়া দে ফাতিমা আফনসো ভিলা নোভা (ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অফ সাও টোমে এবং প্রিন্সিপের ফার্স্ট লেডি) তার অভিনন্দন বক্তব্য প্রদান করেন। পরে বিশেষ বক্তা দক্ষিণ সুদানের লিঙ্গ, শিশু ও সমাজকল্যাণ মন্ত্রী আয়া বেঞ্জামিন লিবো ওয়ারিলে তার আলোচনায় টেকসই শান্তির প্রয়োজনীয়তা এবং জরুরিতার ওপর জোর দেন।

অনুষ্ঠানটি ৩টি ছোট সেশনে বিভক্ত ছিল: শান্তি শিক্ষা, শান্তির সংস্কৃতি, শান্তির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ। প্রথম সেশনে ইউনেস্কো এবং ইসলামিক এডুকেশনাল, সায়েন্টিফিক অ্যান্ড কালচারাল অর্গানাইজেশন (ISESCO)-এর মালিয়ান ন্যাশনাল কমিশনের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. কাদিয়া মাইগা ডায়ালো নারীর শান্তি শিক্ষার গুরুত্ব এবং সুযোগ সম্পর্কে কথা বলেন।

এরপর নেজিহা লাবিদি, আফ্রিকার জন্য জাতিসংঘের সিভিল সোসাইটি আঞ্চলিক রেফারেন্স গ্রুপের বর্তমান কো-চেয়ার ‘ভবিষ্যতের ক্ষমতায়ন: পরিবর্তনশীল বিশ্বে নারীর শান্তি শিক্ষা’ শিরোনামে একটি বক্তৃতা দেন। খ্রিস্টান সোসাইটি সার্ভিস কমিশনের জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ, লিলিয়ান বেনেডিক্ট মাসাকি PLTE দ্বারা আনা তানজানিয়ার পরিবর্তন ব্যাখ্যা করেন।

দ্বিতীয় অধিবেশনে আইডব্লিউপিজি সদর দপ্তরের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সমন্বয়কারী ফিলিপাইনের মিন্দানাওতে, কীভাবে নারীদের জীবন শান্তিপূর্ণভাবে পরিবর্তিত হয়েছে সে বিষয়ে ৩ জন ফিলিপিনো নারীর সাথে আলোচনা পরিচালনা করেন। বক্তারা ছিলেন ড. মারিয়া থেরেসা রায়ো-টিম্বল, কাপলংয়ের পৌর মেয়র, দাভাও দেল নর্তে; এলিজাবেথ মাঙ্গুদাদাতু, মাগুইন্দানাও; এবং মিসেস রুবি ব্যানারেস-ভিক্টোরিনো, জোনটা ক্লাব অফ মেট্রোপলিটন পাসিং এর সাবেক সভাপতি।

তৃতীয় অধিবেশনের বিষয় ছিল বিদ্যমান আন্তর্জাতিক আইনের সীমাবদ্ধতা এবং শান্তি ও যুদ্ধ বন্ধের ঘোষণার অর্থ (ডিপিসিডব্লিউ)। ড. আহলাম বেদুন, আইন অনুষদের প্রাক্তন অধ্যাপক, রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক বিজ্ঞান, লেবানিজ ইউনিভার্সিটি, বৈরুত, বর্তমান আন্তর্জাতিক বিষয়গুলির দ্বারা উদ্ভূত আন্তর্জাতিক আইনের সীমাবদ্ধতার মূল্যায়ন করেন।

এরপর লি কিউ-সান, আইডব্লিউপিজি সদর দপ্তরের শান্তি শিক্ষার মহাপরিচালক ডিপিসিডব্লিউ’র অর্থ ও মূল বিষয়গুলো উপস্থাপন করেন। সবশেষে IWPG উপদেষ্টা এবং প্রাক্তন মঙ্গোলিয়ান সংসদ সদস্য, মিসেস বুদি মুনখতুয়া, যিনি বিখ্যাত মায়ের অর্ডার উইথ অ্যাসোসিয়েশন অফ মাদারস-এর সভাপতিও; তিনি টেকসই শান্তির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের জন্য মহিলাদের ভূমিকার বিষয়ে কথা বলেন।

আইডব্লিউপিজির চেয়ারম্যান হিউন সুক বলেন, আমরা কখনোই যুদ্ধ থেকে মুক্ত হতে পারব না যদি না সারা বিশ্বে টেকসই শান্তি প্রতিষ্ঠার ব্যবস্থা না থাকে। আমাদের সত্যিকার অর্থে যে শান্তি দরকার তা নিয়ে আমাদের ভাবা উচিত। এ ছাড়াও, IWPG বিশ্বের প্রয়োজনীয় শান্তি অর্জনের জন্য বহুমুখী পদ্ধতিতে বিশ্বব্যাপী নারীদের সাথে একত্রিত হয়েছে। আমি এই সম্মেলনের অংশগ্রহণকারীদের যুগান্তকারী পরিকল্পনা এবং সক্রিয় বাস্তবায়নের জন্য অপেক্ষা করছি।

সবশেষে, আইডব্লিউপিজি উপদেষ্টা এবং প্রচার দূতদের নিয়োগ এবং আইডব্লিউপিজি শান্তি অর্জন পুরস্কার প্রদান করা হয়। আয়া বেঞ্জামিন লিবো ওয়ারিলে (দক্ষিণ সুদান), পাসকাল এশো ওয়ার্দা (ইরাক)-কে আইডব্লিউপিজি উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও ওয়ারদা সাদা (ইসরিয়াল) প্রচার দূত, লালজি বালঘিস (ভারত), ভিনুথাপুট ফোফেট (থাইল্যান্ড) এবং ওয়ানজা চেওন (প্রজাতন্ত্র) হিসাবে নিযুক্ত হন। এছাড়া কোরিয়ার আইডব্লিউপিজি পিস অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ডে ভূষিত হয়েছে।

এর আগে, সকালে বাংলাদেশের উত্তরা মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল মমিন, শামসুল হক কলেজের অধ্যক্ষ ডি. মাহবুবুর রহমান, অধ্যাপক ওবায়দুল্লাহ নয়ন এবং অনলাইন নিউজ পোর্টাল রাইজিংবিডি ডটকম-এর জ্যেষ্ঠ সহ সম্পাদক ইবনুল কাইয়্যুম সনি বাংলাদেশি অধিবেশনে অংশ নেন।

এসময় বাংলাদেশের জাতীয় পাঠ্যসূচীতে কীভাবে শান্তি শিক্ষাকে অন্তর্ভুক্ত করা যায় সে বিষয়ে আলোচনা হয়। এ ছাড়া, শান্তির প্রাতিষ্ঠানিকীকরণ বিষয়ে প্রত্যেকেই নিজ নিজ বক্তব্য দেন। অবশেষে, HWPL এর সাথে শান্তির জন্য কাজ করার একটি অঙ্গীকার স্বাক্ষরিত হয়। অধিবেশন পরিচালনা করেন অ্যালেক্স কিম।

ঢাকা/এনএইচ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়