ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৮ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৪ ১৪৩১

বিএসএমএমইউয়ে তৃতীয় বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন সম্পন্ন

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:৩১, ৩ এপ্রিল ২০২৪  
বিএসএমএমইউয়ে তৃতীয় বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন সম্পন্ন

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে তৃতীয় বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টেশন (অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন) সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। রোগী বর্তমানে সুস্থ হয়ে ওঠেছেন বলে জানিয়েছেন কর্তব্যরত চিকিৎসকরা।

বুধবার (৩ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের এফ ব্লকে বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন অ্যান্ড স্টেম সেল থেরাপি সেন্টার আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান হেমাটোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. সালাহউদ্দীন শাহ।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্প্রতি মোহাম্মদ শামসুদ্দিন খান (৫৬) নামে এক মাল্টিপল মায়েলোমার রোগীর বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন সম্পন্ন করেছি। তিনি রাজবাড়ী জেলা থেকে এসেছেন। চিকিৎসা শেষ রোগী এখন সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন। আমরা তাকে আগামীকাল ডিসচার্জ করে দেব।

সালাহউদ্দীন শাহ বলেন, বর্তমান সময়ে বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন রক্ত রোগের আধুনিকতম চিকিৎসাসমূহের মধ্যে অন্যতম। সারা পৃথিবীতে লিউকেমিয়া, লিম্ফোমা, মায়েলোমাসহ রক্তের ক্যাল্লার আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। লিউকেমিয়াসহ রক্তের ক্যান্সার চিকিৎসার ক্ষেত্রে বোনম্যারো ট্রান্সপ্ল্যান্টেশনের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। থ্যালাসেমিয়া রোগীদের ক্ষেত্রেও স্থায়ী চিকিৎসা পদ্ধতি হচ্ছে হেমাটোপয়েটিক স্টেম সেল, বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন।

তিনি আরও বলেন, ট্রান্সপ্লান্টেশন প্রক্রিয়া চলাকালে চিকিৎসা-সংক্রান্ত জটিলতা হতে পারে। জটিলতাসমূহের চিকিৎসা করার পরেও যদি তা নিয়ন্ত্রণে না আসে তবে তা থেকে রোগীর মৃত্যুও হতে পারে। চিকিৎসা সম্পন্ন করার পরে প্রয়োজনীয় পরীক্ষা নিরীক্ষার মধ্য দিয়ে রোগীকে প্রথম ১০০ দিন নিয়মিত ফলো আপে রাখতে হবে এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী কেমোথেরাপি বা অন্যান্য চিকিৎসার প্রয়োজন হতে পারে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দীন মো. নূরুল হক। 

এ সময় তিনি বলেন, সিএমএইচ, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন সেবা চালু আছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সীমিত সুযোগ সুবিধার মধ্যেও উন্নতমানের বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন সেবা দেওয়া হচ্ছে। মাত্র তিন লাখ টাকার মধ্যে অত্যন্ত ব্যয়বহুল এই চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে।

উপাচার্য বলেন, দেশের গরিব মানুষের পাশে দাঁড়ানোই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য উপযুক্ত কাজ হবে। দেশের রোগীরা এখানে এসে যাতে বিশ্বের সর্ব উৎকৃষ্ট চিকিৎসাসেবা পায় তা নিশ্চিত করা হবে। বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন অ্যান্ড স্টেম সেল থেরাপি সেন্টারে প্রত্যেক মাসে যাতে কমপক্ষে ৫ জন রোগীকে এই সেবা দেওয়া যায় তাও নিশ্চিত করা হবে।

দীন মোহাম্মদ বলেন, দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বড় ট্রান্সপ্ল্যান্ট সেন্টার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়াই এই সেন্টারের রূপকল্প। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের হেমাটোলজি বিভাগকে বিশ্বমানের হেমাটোলজি চিকিৎসা কেন্দ্রে পরিণত করতে এবং এই বিশ্ববিদ্যালয়কে সেন্টার অফ এক্সিলেন্সে পরিণত করতে নবনির্মিত বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশন কেন্দ্র গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আশা করা যায়।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো। মনিরুজ্জামান খান, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মো. হাবিবুর রহমান দুলাল, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগে. জেনা. ডা. মো. রেজাউর রহমান প্রমুখ।

মেয়া/এনএইচ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়