ঢাকা     রোববার   ২৭ নভেম্বর ২০২২ ||  অগ্রহায়ণ ১৩ ১৪২৯ ||  ০১ জমাদিউল আউয়াল ১৪১৪

চেষ্টা গড় বাড়ানোর, ফোকাস স্ট্রাইক রেটে: সৌম্য

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৩:৪৬, ৩ অক্টোবর ২০২১   আপডেট: ১৫:০৪, ৩ অক্টোবর ২০২১
চেষ্টা গড় বাড়ানোর, ফোকাস স্ট্রাইক রেটে: সৌম্য

ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত সংস্করণের জমজমাট আসর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের দামামা বাজতে যাচ্ছে কদিন বাদেই। এর মধ্যে আসছে হিন্দু ধর্মের ধর্মীয় উৎসব দূর্গাপূজা।

আবার আজ রাতে ধরতে হচ্ছে ওমানের বিমান। একদিকে বিশ্বকাপে খেলার জন্য প্রস্তুতি, ওমান যাওয়ার জন্য ব্যাগপত্র গোছানো অন্যদিকে মাথায় রাখতে হচ্ছে পূজার বিষয়টিও। পরিবার-বন্ধুদের জন্য কেনাকাটা কত কী! জাতীয় দলের বাঁহাতি ওপেনার সৌম্য সরকারের ব্যস্ততার কোনো শেষ নেই। তবে শত ব্যস্ততার ফাঁক গলে তিনি অনুশীলনটা চালিয়ে গেছেন নিবিড়ভাবেই।

ওপেনারদের ভালো শুরুর ওপর নির্ভর করে অনেক কিছু। তাই তো সৌম্যর ক্যানভাসটাও বিশাল বড়। নিউ জিল্যান্ড ও জিম্বাবুয়ের মাটিতে রান পেলেও শেষ দুটি সিরিজে দেশে তার রান খরা। তবে মিরপুরের উইকেট বিবেচনায় এনে কোনো চিন্তা গায়ে মাখছেন না এই ব্যাটসম্যান। এখন একটাই ভাবনা বিশ্বমঞ্চে নিজেকে মেলে ধরার।

শত ব্যস্ততার মধ্যে নিজের বিশ্বকাপ পরিকল্পনা নিয়ে রাইজিংবিডির মুখোমুখি হয়েছিলেন সৌম্য। মুঠোফোনে তার কথা শুনেছেন সাইফুল ইসলাম রিয়াদ। 

বিশ্বকাপের মঞ্চে মাতানোর জন্য সৌম্য সরকারের প্রস্তুতি কেমন?

সৌম্য: প্রস্তুতিতো ভালো। বেশ কয়েকদিন ছুটি ছিল। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানোর পাশাপাশি অনুশীলন করে গেলাম। মন মানসিকতাও ভালো। এখন পর্যন্ত সবিকছু পজিটিভ। সবকিছু মিলিয়ে বিশ্বকাপে খেলার জন্য আমি প্রস্তুত।

ওপেনারদের ভালো শুরুর ওপর নির্ভর করে দলের ভালোও। কিন্তু সম্প্রতি ওপেনিং জুটি থেকে রান পায়নি বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে এটি ভাবনায় আছে?

সৌম্য: একটা জিনিস কী, সবসময়তো আর খারাপ হয় না। মাঝে মাঝে চাইলেও দুর্ভাগ্যের কারণে আউট হয়ে যাই, আবার শট ভুল খেলার (শট সিলেকশন) কারণেও আউট হই। এটি যেহেতু বিশ্বকাপ, আমাদের অবশ্যই পরিকল্পনায় আছে ভালো কিছু করার, শুরুতেই ভালো পার্টনারশিপ করার। এখন অনুশীলনের মধ্যে আছি। বিশ্বকাপ শুরুর আগেও অনুশীলন করব। আশা করি ভালো কিছু হবে ওপেনিং থেকে।

নিউ জিল্যান্ড-জিম্বাবুয়ের মাটিতে দারুণ খেলেছিলেন। কিন্তু দেশের মাটিতে শেষ দুটি সিরিজে রান পাননি। বিশ্বকাপের আগে আপনার জন্য বাড়তি চাপ হবে?

সৌম্য: মিরপুরে কেউ রান পায়নি। এটা নিয়ে আমি কোনো চিন্তাই করছি না।

আপনি দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ খেলতে যাবেন। নিজের ওপর প্রত্যাশা কতটুক।

সৌম্য: দেখুন, আমি নিজের প্রসেসটা ঠিক রাখব। সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করব। এতদিন খেলার মধ্যে আছি, এখন অনুশীলন করে যাচ্ছি, বিশ্বকাপের আগে আরও অনুশীলন করব। আশা করি প্রত্যাশামতো খেলতে পারব। আর বিশ্বকাপে যে কেউই ভালো করতে চায়, যেহেতু এটি আমার দ্বিতীয় বিশ্বকাপ, কিছু অভিজ্ঞতা আছে, ভালো খেলার চেষ্টা করব। নেগেটিভ চিন্তা না করে পজিটিভলি খেলব। আসল কথা হলো আমি আমার সহজাত খেলাটাই খেলে যাওয়ার চেষ্টা করব।

বিশ্বকাপে আপনার ব্যাটিং স্ট্র্যাট্রেজিটা কেমন থাকবে?

সৌম্য: যেহেতু টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট, আমি অবশ্যই দ্রুত রান তুলতে চাইব। পাওয়ার প্লেতে দল যাতে ভালো রান পায় এটা চেষ্টা থাকবে। ডট বল না খেলে সিঙ্গেল রান নেওয়ার চেষ্টা করব। চার-ছয় মারার চেষ্টা করব। তবে সবকিছুই হবে ম্যাচের অবস্থা অনুযায়ী। যখন মনে হবে এখন দ্রুত রান তোলার দরকার তখন তুলব, আর না হলে ধরে খেলব। ম্যাচের অবস্থা অনুযায়ী খেলার চেষ্টা করে যাব।

আপনারা যারা নিয়মিত খেলছেন, তাদের সুযোগের কথা বিবেচনায় এনে ওপেনার তামিম ইকবাল নিজে থেকে বিশ্বকাপ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। এটা বাড়তি চাপ হবে ওপেনারদের জন্য, আপনার জন্য?

সৌম্য: উনি (তামিম) খেলছেন না এ জন্য আমাদের কোনো চাপ নেই। এখন এটা নিয়ে কোনো চিন্তা করে লাভ নেই। উনি একজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়, সিনিয়র খেলোয়াড়, উনি দলে থাকলে আমাদের জন্য ভালো হতো। এখন যেহেতু খেলছেন না এ জন্য আমাদের ওপর চাপেরও কিছু নেই। আমরা ভালো খেলার চেষ্টা করব। এ দিকেই মনোযোগ থাকবে। আমি নিজেও চাপ মনে করছি না।

আপনার স্ট্রাইক রেট ১২২। কিন্তু আপনার গড় বিশেরও নিচে। গড় আরও বাড়ানোর কোনো পরিকল্পনা?

সৌম্য: এটা তো সব ব্যাটসম্যানেরই থাকে। আমারও অবশ্যই আছে। তবে এটা যেহেতু টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট আমার ভাবনাটাও ভিন্ন। বড় ইনিংস খেলার চেষ্টা করব, তবে আমার ফোকাস থাকবে স্ট্রাইক রেটে। যেহেতু টি-টোয়েন্টি, তাই স্ট্রাইক রেট আরও বাড়ানোর চেষ্টা করব।

আলাদা করে ব্যাটিং নিয়ে কোনো কাজ করছেন কী না?

সৌম্য: টি-টোয়েন্টির জন্য যেভাবে প্রস্তুতি নেওয়ার দরকার সেভাবে নিচ্ছি। আলাদা করে বলতে বড় শট খেলা নিয়ে অনুশীলন করেছি। যেহেতু এখানে দ্রুত রান তোলার ব্যাপার আছে তাই বিশ্বকাপের আগে অনুশীলনে এটাই বেশি চেষ্টা করেছি। স্বাভাবিকভাবে অনুশীলন করে গেছি আর সঙ্গে বাড়তি বলতে পারেন বড় শট নিয়ে কাজ করা। এখন ম্যাচে এটি কাজে লাগানোর জন্য চেষ্টা করব।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ কতদূর যাবে বলে মনে করছেন?

সৌম্য: আসলে এরকম চিন্তা করলে তো আসলে কোনো কিছু হয় না। আর চিন্তা করলে তো অবশ্যই বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্যই যাবে। এরকম ভাবনা থাকা উচিৎ আমি মনে করি। আমরা আসলে একটা একটা ম্যাচ করে পরিকল্পনা করব, সামনের দিকে যাব। এরপর সময় বলে দেবে কতদূর যেতে পারব আমরা।

ঢাকা/ফাহিম

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়