ঢাকা     রোববার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||  ফাল্গুন ১২ ১৪৩০

বাজছে বিশ্বকাপ বাজনা

ইয়াসিন হাসান || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ০১:৫৫, ১৬ অক্টোবর ২০২২   আপডেট: ১০:০২, ১৬ অক্টোবর ২০২২
বাজছে বিশ্বকাপ বাজনা

বাজি পুড়ছে, বাজনা বাজছে। রাস্তায় নেমে পড়েছে মানুষের ঢল। আনন্দ উৎসবে ভাসছে গোটা দেশ। প্রচণ্ড উল্লাসের ছন্দে বাজছে ঢোল আর আনন্দের সুর। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ চলেই এলো।

ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে বড় পরাশক্তি অস্ট্রেলিয়াতে বসেছে ষোলো দলের টি-টোয়েন্টির ধুন্ধুমার লড়াই। যে লড়াই শুরু হচ্ছে রোববার। এশিয়ার বর্তমান রাজা শ্রীলঙ্কা ও নাবিমিয়ার ম্যাচ দিয়ে বাংলাদেশ সময় ১০টায় মাঠে গড়াচ্ছে অষ্টম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। দিনের আরেক ম্যাচে হল্যান্ডের প্রতিপক্ষ সংযুক্ত আরব আমিরাত।  

উপমহাদেশের বাইরে ক্রিকেটের যে জোয়ার, যে উন্মাদনা, যে পাগলাটে মনোভাব তা পাওয়া যায় অস্ট্রেলিয়ায়। ইতিহাস আর ঐতিহ্যের কারণেই বুঝি অস্ট্রেলিয়ার এই ক্রিকেটানন্দ। ওয়ানডে বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়া জিতেছে পাঁচবার। টি-টোয়েন্টি একবার। সেটাও গত আসরেই। তাই এবারের আসরে তারা শুধু ফেবারিটই নয়। শিরোপা প্রায় তুলে নিয়েছে বলেই দাবি অস্ট্রেলিয়ানদের! 

আপাতত সুপার টুয়েলভের লড়াই হচ্ছে না। আট দলের অংশগ্রহণে শুরু হচ্ছে প্রথম রাউন্ডের খেলা। যেখানে খেলতে হচ্ছে না সাকিব আল হাসানদের। এ নিয়ম চালু হওয়ার পর প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সরাসরি সুপার টুয়েলভে খেলবে। 

২০২০ সালে অস্ট্রেলিয়ায় বসার কথা টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। কিন্তু কোভিড ধাক্কায় পিছিয়ে যায় প্রতিযোগিতা। নানা বাধা, বিপত্তি দূর করে তাসমান সাগর পাড়ে শুরু হচ্ছে কুড়ি ওভারে বিশ্বের শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের লড়াই।

টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরু হলে কিছু স্থিরচিত্র চোখের সামনে ভেসে ওঠে। ২০০৭ সালে মিসবাহ উল হকের টাইমিং গড়বড় শটে ভারতের শিরোপা জয়, সেবারই যুবরাজ সিংয়ের এক ওভারে ছয় ছক্কা, ২০০৯ সালে পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদির ফাইনালের সেই ইনিংস, অস্ট্রেলিয়াকে মাটিতে নামিয়ে জিম্বাবুয়ের ইতিহাস, ২০১৪ সালে বাংলাদেশের হংকের বিরুদ্ধে হার, ২০১৬ সালে ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের মাত্র ২ রানের পরাজয় এবং কার্লোস ব্র্যাথওয়েটের চার ছক্কায় ইংলিশদের হতাশ করে শিরোপা জয়। 

এসব ঐতিহাসিক মুহূর্ত অস্ট্রেলিয়ায় ধরা দেবে কি না বলা কঠিন।  তবে আগামী এক মাস টি-টোয়েন্টির রোমাঞ্চ, উত্তেজনায় আচ্ছন্ন থাকবে গোটা ক্রিকেট দুনিয়া। 

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট মানেই চার-ছক্কার লড়াই। সবশেষ বিশ্বকাপ ওমান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে হওয়া তেমন রান ফোয়ারা পাওয়া যায়নি। কিন্তু অস্ট্রেলিয়ার উইকেট বরাবরই রান প্রসবা। ব্যাটসম্যানদের ব্যাটে চার-ছক্কার ফুলঝুরি ছুটবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। অস্ট্রেলিয়ার মাঠগুলো তুলনামূলক বড়। তবে রান উৎসবের কথা ভেবে সীমানা কিছুটা কমিয়েও আনতে পারে আয়োজকরা। ফলে বোলারদের জন্য যে কঠিন পরীক্ষা অপেক্ষা করছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। 

৪৫ ম্যাচের এই প্রতিযোগিতা হবে সাত ভেন‌্যুতে। আজ শুরু হয়ে চলবে ১৩ নভেম্বর পর্যন্ত। অধিনায়কদের সাক্ষাতে ষোলো দলের অধিনায়কই ছিলেন প্রাণবন্ত, হাস্যোজ্জ্বল। মাঠের লড়াইয়ে কেউ কাউকে নুন্যতম ছাড় দেবে না তা বলে দ্য়ো যায় নিসংকোচে। 

ঢাকা/ইয়াসিন

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়