ঢাকা     সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৯ ১৪৩১

তিস্তার ওপর ব্রিজ নির্মাণে ব্যয় বাড়ছে 

বিশেষ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৫৯, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪   আপডেট: ১৬:০৬, ২৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
তিস্তার ওপর ব্রিজ নির্মাণে ব্যয় বাড়ছে 

কাজের পরিধি বেড়ে যাওয়ায় গাইবান্ধা জেলার পাঁচপীর বাজার-চিলমারীর তিস্তা নদীর ওপর নির্মাণাধীন ব্রিজ ও মাতারবাড়ী পোর্ট ডেভেলপমেন্ট প্রকল্পের ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ ছাড়া, চট্টগ্রাম বন্দরের কন্টেইনার স্থানান্তরের ঠিকাদার নিয়োগের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) অর্থমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভায় প্রস্তাবগুলোতে অনুমোদন দেওয়া হয়।

সভাশেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব বলেন, গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় পাঁচপীর বাজার-চিলমারী উপজেলা হেডকোয়ার্টার সংযোগ সড়কে তিস্তা নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণের ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি।

তিনি বলেন, সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভার অনুমোদনক্রমে গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় পাঁচপীর বাজার-চিলমারী উপজেলা হেডকোয়ার্টার সংযোগ সড়কে তিস্তা নদীর ওপর ১৪৯০ মিটার ব্রিজ নির্মাণের পূর্ত কাজে চায়না স্টেট কন্সট্রাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং করপোরেশনকে ঠিকাদার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। প্রকল্পে ব্যয় ধরা হয়েছিল ৩৭৬ কোটি ৯৮ লাখ ১২ হাজার ৯০৬ টাকা। চুক্তি অনুসারে কাজ চলা অবস্থায় নির্মাণ কাজে টেন্ডারভুক্ত/টেন্ডার বহির্ভূত আইটেম বৃদ্ধি হওয়ায় ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ৭২ কোটি ২৩ লাখ ২৪ হাজার ৩২৫ টাকা ব্যয় বৃদ্ধির প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। নকশা পরিবর্তনের ফলে বিভিন্ন ডাইমেনশন পরিবর্তন হয় ফলে মাটি কাটার কাজ, কাস্ট-ইন সিটু পাইল, আরসিসি কংক্রিট, এমএস রড এপ্রোচ রোড নির্মাণ ও অন্যান্য আইটেম বৃদ্ধি পায়।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের অধীন জিসিবি এলাকায় ৫ বছরের জন্য খালি কন্টেইনার স্থানান্তর কাজে ঠিকাদার নিয়োগের ক্রয় প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। দরপত্রে সর্বনিম্ন দরদাতা প্রতিষ্ঠান সাইফ পাওয়াটেক লিমিটেড কন্টেইনার স্থানান্তরের কাজে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৯৬ কোটি ৯৯ লাখ ১৪ হাজার ৮০৫ টাকা।

তিনি বলেন, মাতারবাড়ী পোর্ট ডেভেলপমেন্ট’ প্রকল্পের (চবক অংশ) আওতায় পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের অতিরিক্ত কাজের ভেরিয়েশন প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। প্রকল্পে পরামর্শক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নিপ্পন কোই কোম্পানি লিমিটেডকে নিয়োগ দেওয়া হয়। ব্যয় ধরা হয় ২৩৪ কোটি ৩ লাখ ৬ হাজার ৬১৪ টাকা। ১ম চুক্তির পর অতিরিক্ত হিসেবে ফেজ-২ এর কাজ সম্পাদনের জন্য পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের ভেরিয়েশন বাবদ অতিরিক্ত ২৪ কোটি ৫ লাখ ৩২ হাজার ৪৬৩ টাকা ব্যয় বৃদ্ধির প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা/হাসনাত/এনএইচ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়