ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১০ ১৪৩১

ত্রয়োদশ আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াডে পুরস্কৃত দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:০৫, ৩ মার্চ ২০২৪   আপডেট: ১৭:০৫, ৩ মার্চ ২০২৪
ত্রয়োদশ আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াডে পুরস্কৃত দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী

দেড় শতাধিক শিক্ষার্থীকে পুরস্কার প্রদানের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে ‘ত্রয়োদশ আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড-২০২৪’। রচনা, আবৃত্তি, সঙ্গীত, চিত্রাঙ্কন, তাৎক্ষণিক বক্তৃতা, নৃত্য এবং বাংলা কুইজ মোট ৭টি বিভাগে কয়েকটি ক্যাটাগরিতে এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

এতে সারা দেশের ইংরেজি মাধ্যম ও ইংরেজি ভার্সনের ১০৫টি স্কুল থেকে ১৬২৮ জন শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ করে। তাদের মধ্যে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পেয়েছে ১৫৪ শিক্ষার্থী। এবার এই আয়োজনের সহযোগী হিসেবে ছিল আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট।

শনিবার (২ মার্চ) রাজধানীর উত্তরায় ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল মিলনায়তনে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. হাকিম আরিফ। স্বাগত বক্তব্য দেন ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশের চেয়ারম্যান আব্দিল আজিজ যলদোশভ এবং প্রিন্সিপাল রোকসানা জারিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন একুশে পদক জয়ী বিশিষ্ট আবৃত্তি শিল্পী শিমুল মুস্তাফা।

অনুষ্ঠানে পুরস্কার বিতরণের পাশাপাশি ছিল আবৃত্তি, সঙ্গীত ও নৃ্ত্য প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। আবৃত্তি শোনান আবৃত্তি প্রতিযোগিতায় এ বিভাগে প্রথম স্থান অর্জনকারী সানিডেল স্কুলের শিক্ষার্থী সোমা অদ্বিতীয়া, বি বিভাগে প্রথম নরসিংদীর আব্দুল কাদের মোল্লা কলেজের তাজকিয়া হুমায়রা আদ্রা এবং সি বিভাগে প্রথম বি এফ শাহীন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের শিক্ষার্থী শামায়েলা চৌধুরী। সঙ্গীত পরিবেশন করে সঙ্গীত প্রতিযোগিতায় বিদেশি শিক্ষার্থী ক্যাটাগরিতে বিজয়ী অস্ট্রেলিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের ভারতীয় শিক্ষার্থী সেময়ুতা ধেরাম, ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশের গুলশান শাখার শ্রীলঙ্কার শিক্ষার্থী এইচ পি এন এইচ নানায়াক্কারা। এছাড়াও সঙ্গীত পরিবেশন করে খ বিভাগের প্রথম স্থান অধিকারী বি এফ শাহীন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের শিক্ষার্থী সিফাত রিজওয়ান নাফি, ক গ্রুপের প্রথম সামারফিল্ড ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের শিক্ষার্থী আরিবা শামস, গ গ্রুপের প্রথম মাস্টারমাইন্ড স্কুলের সুমাত সাকলাইন প্রত্যাশা। দলীয় নৃত্য পরিবেশন করে নৃত্য প্রতিযোগিতায় ক গ্রুপে যৌথভাবে প্রথম স্থান অর্জনকারী ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল এবং প্লে পেন স্কুল। এছাড়াও দলীয় নাচ পরিবেশন করে খ গ্রুপের প্রথম নেভি অ্যাঙ্করেজ স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীবৃন্দ।

বাংলা কুইজ প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জন করে এ গ্রুপে বি এফ শাহীন ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলের আরাভ আরিজ হক, বি গ্রুপে সেন্ট জোসেফ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের লামি নাজুম, সি গ্রুপে হালিশহর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের ফাবিহা তাসনিম। অঙ্কনে এ বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করে অস্ট্রেলিয়ান ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সেহরিশ রহমান, বি বিভাগে প্রথম মাস্টারমাইন্ড ইংলিশ স্কুলের রণবিজয় ধর এবং সি বিভাগে প্রথম নেভি অ্যাঙ্করেজ স্কুলের মাইশা বিনতে রশিদ। রচনা প্রতিযোগিতায় এ বিভাগে যৌথভাবে প্রথম হয়েছে সাউথ পয়েন্ট স্কুল অ্যান্ড কলেজের নূর নবী এবং প্লে পেন স্কুলের ফাহমিয়াহ ফাহরিন, বি বিভাগে যৌথভাবে প্রথম কার্ডিফ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের আবিয়ান আয়দিন এবং আলোর ধারা স্কুলের উজায়ের ফারাজ মনসুর।এছাড়া তাৎক্ষণিক বক্তৃতায় প্রথম স্থান পেয়েছে নেভি অ্যাঙ্করেজ স্কুলের রাইসা রহমান।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. হাকিম আরিফ বলেন, বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতি নিয়ে বাংলা অলিম্পিয়াড এ দেশের একটি সেরা আয়োজন। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট গত বছর থেকে এই গৌরবময় আয়োজনের সাথে যুক্ত হয়েছে। ছাত্র-ছাত্রীদের অসাধারণ পরিবেশনা দেখে আমি মুগ্ধ। এই শিক্ষার্থীরাই ভবিষ্যতে দেশে-বিদেশে আমাদের মুখ উজ্জ্বল করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুলের প্রিন্সিপাল রোকসানা জারিন বলেন, প্রতি বছরের ধারাবাহিকতায় এ বছরও বাংলা ভাষা চর্চার এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে পেরে ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ আনন্দিত ও গর্বিত। এরই মধ্যে বাংলা অলিম্পিয়াড ইংরেজি স্কুলগুলোর একটি জাতীয় প্রতিযোগিতায় পরিণত হয়েছে। শুধু জাতীয় নয়, আমি বলব, বাংলা অলিম্পিয়াড ছড়িয়ে পড়ছে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও। প্রতি বছরই দেশি শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি বিভিন্ন স্কুলের বিদেশি শিক্ষার্থীরাও বাংলা অলিম্পিয়াডে যোগ দিচ্ছে। বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিচর্চায় ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীরাও এখন অনেক অগ্রসর, বাংলা অলিম্পিয়াড এটাই প্রমাণ করে।

ভাষার মাসে দেশের ইংরেজি মাধ্যম এবং ইংরেজি ভার্শন স্কুলগুলোর অংশগ্রহণে বাংলা ভাষা বিষয়ক সর্ববৃহৎ প্রতিযোগিতা রাজধানীর উত্তরায় অবস্থিত ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ আয়োজিত আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড।বার্ষিক এই প্রতিযোগিতার ধারাবাহিকতা এরই মধ্যে সাফল্যের সাথে এক যুগ অতিক্রম করেছে।

প্রতিযোগিতার বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত আবৃত্তি শিল্পী শিমুল মুস্তাফা, রূপা চক্রবর্তী, অভিনেতা ও আবৃত্তি শিল্পী জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়, ডালিয়া আহমেদ, মাহিদুল ইসলাম, মাসকুর-এ-সাত্তার কল্লোল, একুশে পদক জয়ী নৃত্যশিল্পী শিবলী মোহাম্মদ, শামীম আরা নীপা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃত্যকলা বিভাগের চেয়ারপারসন মনিরা পারভীন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের শিক্ষক ড. সৈয়দ রেজাউল করীম, নারায়ণগঞ্জ আর্ট কলেজের অধ্যক্ষ জনাব শামসুল আলম আজাদ এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের শিল্পী তন্ময় শেখ, বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের পরিচালক মো. নেয়ামত উল্লাহ এবং নায়েমের সাবেক পরিচালক ড. মো. আতিকুল ইসলাম পাঠান, শিল্পী এবং সঙ্গীত শিক্ষক পদ্মিনী ইমন, প্রীতি ঘোষ, দেবাশিস দেব প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, ইন্টারন্যাশনাল হোপ স্কুল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৯৬ সালে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে পড়াশোনার পাশাপাশি এই স্কুলটি সাংস্কৃতিক ও বুদ্ধিভিত্তিক চর্চায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। দেশীয় সংস্কৃতির সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সংশ্লিষ্টতা বাড়াতে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা এবং অনুষ্ঠানের আয়োজন করে আসছে। খেলাধুলা, বিজ্ঞানসহ নানা বিষয়ে নানা আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে স্কুলের শিক্ষার্থীরা দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনছে। এরই অংশ হিসেবে গত ১৩ বছর ধরে স্কুলের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে আন্তঃস্কুল বাংলা অলিম্পিয়াড।

ঢাকা/হাসান/এনএইচ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়