ঢাকা     শনিবার   ২২ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ৮ ১৪৩১

বেসরকারি মেডিক্যালে ভর্তিতে অটোমেশন বাতিলের দাবি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ২২:৪০, ২৫ মে ২০২৪  
বেসরকারি মেডিক্যালে ভর্তিতে অটোমেশন বাতিলের দাবি

মেডিক্যাল কলেজে ভর্তিতে অটোমেশন পদ্ধতির কারণে বিপাকে পড়েছে দেশের সব বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীসহ কলেজ কর্তৃপক্ষ। চলতি ২০২০-২৪ শিক্ষাবর্ষে দেশের ৬৭টি বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের দেশি-বিদেশি শিক্ষার্থীর ৬ হাজার ২০৮টি আসনের মধ্যে প্রায় ১ হাজার থেকে ১২০০ আসন এখনো শূন্য আছে। ফলে বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তিতে অটোমেশন পদ্ধতি বাতিলের দাবি করেছে প্রাইভেট মেডিক্যালে কলেজ অ্যাসোসিয়েশন।

শনিবার (২৫ মে) রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘বেসরকারি স্বাস্থ্য শিক্ষার মান উন্নয়ন এবং ভর্তি প্রক্রিয়ায় চলমান শিক্ষার্থী সংকটের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এ দাবি করেন বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজের মালিকদের এ সংগঠন।

আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. রোকেয়া সুলতানা, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে আব্দুল মোমেন, সাবেক মুখ্য সচিব, আব্দুল করিম, সাচিপের সভাপতি অধ্যাপক জামালুদ্দিন, বিশ্ব ব্যাংকের সাউথ আফ্রিকার হেড অব এডুকেশন ড. মোখলেসুর রহমান, বিপিএমসিএ’র সভাপতি এম. এ. মুবিন খান, সাধারণ সম্পাদক ড. আনোয়ার হোসেন খান, ইস্টার্ন মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের চেয়ারম্যান ড. শাহ্ মো. সেলিম, সংগঠনের সাবেক সভাপতি ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন, সংগঠনের কোষাধ্যক্ষ হাবিবুল হক, পপুলার মেডিক্যাল কলেজের চেয়ারম্যান ড. মোস্তাফিজুর রহমান, আদ-দ্বীন উইমেন্স মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মো. আফিকুর রহমান, সিটি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. মো. রিফায়েতউল্লাহ শরীফ, মুন্নু মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের প্রতিনিধি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, ব্রাহ্মণবাড়িয়া মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের ভাইস-চেয়ারম্যান সাইমুম সাইরাস, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিলের সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডা. রওশন আরা বেগম প্রমুখ।

বেসরকারি মেডিক্যালে মানসম্মত শিক্ষা ও চিকিৎসার ওপর জোর দেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. রোকেয়া সুলতানা। তিনি বলেন, কোয়ালিটি মেনটেইন করতে হবে। কোয়ালিটি মেনটেইন না করলে কারোই কাজ করা উচিৎ না। শিক্ষা পদ্ধতি ও হাসপাতাল পরিচালনাতেও এই কোয়ালিটি চাই।

তিনি বলেন, অটোমেশন নতুন কোনো ব্যবস্থা না, এটা পাকিস্তান আমলেও ছিলো। এ পদ্ধতির কারণে অনেকে ভর্তিতে সমস্যাবোধ করছে। আমি নিজেও এটার শিকার। এই অটোমেশনের কারণে আমি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হতে পারিনি। তবে অটোমেশনের জন্য শিক্ষার্থী আসছে না, এটা মনে হয় সঠিক নয়। শিক্ষার্থী কম আসার অন্য কোনো কারণ থাকতে পারে, তা খতিয়ে দেখতে হবে।

সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বড় বড় হাসপাতালে গেছি। কম বেশি ভালো-খারাপ সব জায়গায়ই আছে। আমাদের দেশের মন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সরকারের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা হাসপাতাল পরিদর্শনে গেলে লোকজন সাথে নিয়ে পরিদর্শনে যান। তখন হাসপাতাল, ডাক্তারদের নিয়ে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। হাসপাতালে পরিদর্শনে গেলে লোকজন সঙ্গে না নেওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

তিনি বলেন, আমাদের হাসপাতালের ডাক্তারদের কোয়ালিটি ভালো। হাসপাতালের ওপর মানুষের আস্থা আনতে হবে, কম্পিটিশন বাড়াতে হবে। চিকিৎসা ক্ষেত্রে কোয়ালিটি বাড়লে মানুষ এমনিতেই প্রতিদান দিবে।

মূল প্রবন্ধে বিপিএমসিএ'র সভাপতি এম এ মুবিন খান বলেন, বিশাল জনগোষ্ঠীর এই দেশে সরকারের একার পক্ষে সবার চিকিৎসা-শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল চিকিৎসা-শিক্ষায় এগিয়ে যাচ্ছে। বেসরকারি মেডিক্যাল চালু হাওয়ার পর সব সময় ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা ভর্তিতে পছন্দমতো মেডিক্যাল কলেজে মেধার ভিত্তিতে সুযোগ পেয়ে আসছিলেন। পূর্বের ভর্তির নিয়ম অনুযায়ী সারা দেশে একসঙ্গে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতো। এতে শিক্ষার্থীরা পছন্দমতো প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হতে পারতেন। গত বছর বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজে ভর্তির ব্যাপারে বিস্ময়কর পরিবর্তন আনা হয়। মেডিক্যাল শিক্ষার মান নিয়ন্ত্রণের নামে সংশ্লিষ্টদের তীব্র বিরোধিতার মধ্যে গত বছর অটোমেশন চালু করা হয়। এই পদ্ধতি চলতি বছর অব্যাহত রাখা হয়েছে।

এ বছর বেসরকারি মেডিক্যাল কলেজগুলোতে ১ হাজার ২০০ সিট খালি রয়েছে। এমনকি মেডিকেল কলেজগুলোর অর্ধেকেরও বেশি আসনই ফাঁকা থেকে যাচ্ছে। ফলে শিক্ষাক্ষেত্রের গুরুত্বপূর্ণ এ খাতটি হুমকির মুখে বলে দাবি করেছে বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিক্যাল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন।

ঢাকা/হাসান/এনএইচ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়