ঢাকা     মঙ্গলবার   ২১ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪৩১

কোভিড থেকে সুস্থ হলেও উপসর্গ থেকে যায় ১ বছর

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৭:১১, ১১ আগস্ট ২০২৩   আপডেট: ১৭:১৯, ১১ আগস্ট ২০২৩
কোভিড থেকে সুস্থ হলেও উপসর্গ থেকে যায় ১ বছর

গুরুতর অসুস্থতা কেটে যাওয়ার পরেও কোভিড-১৯ এর দীর্ঘমেয়াদী উপসর্গগুলো কমপক্ষে এক বছর ধরে চলতে পারে বা কয়েক মাস পরে উপসর্গগুলো ফিরে আসতে পারে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে পরিচালিত একটি সমীক্ষায় এ তথ্য উঠে এসেছে।

সম্প্রতি মরবিডিটি অ্যান্ড মর্ট্যালিটি উইকলি রিপোর্টে এই গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়েছে। এক বছরের মধ্যে কীভাবে উপসর্গগুলি দেখা যায় তার সবচেয়ে বিস্তৃত বর্ণনা রয়েছে এতে। প্রতিবেদনটি কোভিড-১৯ পরবর্তী অবস্থার তথ্যকে প্রশস্ত করেছে এবং পূর্ববর্তী গবেষণার তুলনায় উপসর্গগুলো আরও বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করেছে।

সমীক্ষায় দেখা গেছে, প্রায় ১৬ শতাংশ কোভিড পজিটিভ মানুষের মধ্যে উপসর্গগুলো কমপক্ষে এক বছর স্থায়ী হয়েছিল। তবে অন্যদের ক্ষেত্রে উপসর্গগুলো স্বল্পমেয়াদী হয়েছিল।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া, সান ফ্রান্সিসকো (ইউসিএসএফ), ইউএস সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)  প্রতি তিন মাসে উপসর্গগুলো মূল্যায়ন করেছে।

ইউসিএসএফ-এর সহযোগী অধ্যাপক এবং প্রতিবেদনের প্রধান লেখক জুয়ান কার্লোস মন্টয় বলেছেন, "‘উপসর্গগুলো থেকে সুস্থ হওয়া এবং কয়েক মাস পরে পুনরায় আবির্ভূত হওয়া সাধারণ ছিল। আগের অনেক গবেষণায় এক বা দুটি পয়েন্টে লক্ষণগুলোর উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু আমরা আরও স্পষ্ট এবং বিস্তৃতির সাথে উপসর্গের গতিপথ বর্ণনা করতে সক্ষম হয়েছি।’

কোভিড-এর দীর্ঘমেয়াদী উপসর্গগুলো প্রাথমিক সংক্রমণের প্রায় এক মাস পরে স্থায়ী হয় বা বিকাশ লাভ করে। এই লক্ষণগুলি উল্লেখযোগ্য অসুস্থতা বা জীবনের মান হ্রাসের সাথে যুক্ত।

সমীক্ষায় অংশ নেওয়া তিন-চতুর্থাংশের করোনা পজিটিভ ছিল। বাকীদের নেগেটিভ হলেও তাদের ভিন্ন ধরণের সংক্রমণ থাকতে পারে। কারণ তাদেরও উপসর্গ ছিল, যার মধ্যে রয়েছে ক্লান্তি, সর্দি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্ট, বুকে ব্যথা, ডায়রিয়া, ভুলে যাওয়া এবং চিন্তা করতে বা মনোযোগ দিতে অসুবিধা।

যাদের করোনা পজিটিভ ছিল তাদের প্রতিটি উপসর্গ বিভাগে উপসর্গ থাকার সম্ভাবনা বেশি ছিল। কিন্তু বছরের শেষ নাগাদ করোনা পজিটিভ এবং করোনা নেগেটিভ আসা ব্যক্তিদের উপসর্গের মধ্যে কোনো পার্থক্য ছিল না।

ঢাকা/শাহেদ

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়