ঢাকা     বুধবার   ২৯ মে ২০২৪ ||  জ্যৈষ্ঠ ১৫ ১৪৩১

নেতাদের কাতার ত্যাগের খবর নাকচ করলো হামাস

আন্তর্জাতিক ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৪:০১, ২৪ এপ্রিল ২০২৪  
নেতাদের কাতার ত্যাগের খবর নাকচ করলো হামাস

হামাসের রাজনৈতিক শাখার প্রধান ইসমাইল হানিয়া

ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের রাজনৈতিক কার্যালয় কাতার থেকে অন্য কোনো দেশে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে বলে পশ্চিমা গণমাধ্যম যে খবর প্রকাশিত হয়েছে, তা প্রত্যাখ্যান করেছে হামাস।

বুধবার (২৪ এপ্রিল) এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে রেডিও তেহরানের অনলাইন সংস্করণ পার্স টুডে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, হামাসের গণমাধ্যমবিষয়ক মুখপাত্র ওয়ালিদ আল-কিলানি গতকাল মঙ্গলবার আল-আরাবিয়া নেটওয়ার্ককে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, হামাসের শীর্ষ নেতারা কাতারে অবস্থান করছেন এবং দেশটি ত্যাগ করার কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই। হামাস কাতার থেকে তাদের কার্যালয় সরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়নি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল গত শনিবার এক প্রতিবেদনে দাবি করে, কাতারের রাজধানী দোহা থেকে নিজের রাজনৈতিক কার্যালয় সরিয়ে নেয়ার জন্য হামাস অন্তত দুটি দেশের সঙ্গে আলোচনা করেছে।

কথিত কূটনৈতিক সূত্রের বরাত দিয়ে দৈনিকটি জানায়, ইসরায়েলের সঙ্গে যুদ্ধবিরতির আলোচনায় হামাসকে নমনীয় হওয়ার জন্য কাতার ও মিশর চাপ সৃষ্টি করার পর সংগঠনটি দোহা ত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল দাবি করে, হামাস যদি কাতার ত্যাগ করে তাহলে গাজায় যুদ্ধবিরতি প্রতিষ্ঠা কিংবা হামাসের হাতে আটক ইসরায়েলি জিম্মিদের মুক্তির আলোচনা ভেঙে যেতে পারে।

আল-কিলানির বক্তব্যের আগে মঙ্গলবার কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মাজিদ মোহাম্মাদ আল-আনসারি বলেছিলেন, কাতার যতদিন গাজা পরিস্থিতিতে মধ্যস্থতা করছে ততদিন হামাসের দোহা ত্যাগ করার প্রশ্ন উঠছে না। তিনি বলেন, হামাস নেতারা দোহায় অবস্থান করছেন এবং তাদের কাতার ত্যাগ করা ও ফিরে আসার ওপর কোনো বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়নি।

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানও মঙ্গলবার একই কথা বলেছিলেন। তিনি গতকাল ইরাক সফর থেকে ফেরার সময় ফ্লাইটে থাকা সাংবাদিকরা ‘হামাসকে কাতারে তাদের ঘাঁটি ত্যাগ করতে বা দোহা থেকে চলে যেতে বলা হতে পারে’ সংবাদমাধ্যমের এমন প্রতিবেদন সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করেছিলেন। 

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট জানান, হামাস নেতারা কাতার ছেড়ে যাচ্ছেন এমন কোনো লক্ষণ তিনি দেখেননি। এরদোয়ান বলেন, ‘তাদের (হামাস) প্রতি তাদের (কাতার) যে আন্তরিকতা, তা পরিবারের সদস্যদের মতোই। আমি একেবারেই মনে করি না যে, আগামীতেও তাদের পক্ষে এই অবস্থান পরিবর্তন করা সম্ভব।’

গাজাভিত্তিক ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাসের রাজনৈতিক কার্যালয় কাতারের দোহায় অবস্থিত। সংগঠনটির পলিটব্যুরো প্রধান ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইসমাইল হানিয়া এবং হামাসের পররাষ্ট্রবিষয়ক প্রধান ও সাবেক পলিটব্যুরো নেতা খালেদ মিশালসহ আরো কয়েকজন কর্মকর্তা দোহায় অবস্থান করছেন।

/ফিরোজ/

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়