ঢাকা     রোববার   ১৪ জুলাই ২০২৪ ||  আষাঢ় ৩০ ১৪৩১

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চেয়েও বেশি ট্রমা সৃষ্টি করেছে করোনা

দেহঘড়ি ডেস্ক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৫:৩৯, ৬ জুলাই ২০২১   আপডেট: ১৫:৫৫, ৬ জুলাই ২০২১
দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চেয়েও বেশি ট্রমা সৃষ্টি করেছে করোনা

করোনা মহামারির ফলে মানুষজন জীবন ও জীবিকা দুটো নিয়েই উদ্বিগ্ন। মানুষের মানসিকতা, ভয় ও দুঃস্বপ্নগুলোতে জায়গা করে নিয়েছে এই ভাইরাস। প্রতিদিন করোনাভাইরাসের যে ভয়াবহ পরিস্থিতি উঠে আসছে, তা যেকোনো সুস্থ ব্যক্তির মানসিক সুস্বাস্থ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে যথেষ্ট। 

কোভিড-১৯ এর এই ভয়াবহ বিধ্বংসী প্রভাব অব্যাহত থাকায় বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাস দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চেয়ে বেশি ‘গণ ট্রমা’ সৃষ্টি করেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কর্মকর্তাদের মতে, ‘বর্তমান বিশ্বে করোনা মহামারি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের চেয়েও ব্যাপক আকারে ট্রমা সৃষ্টি করেছে। যার প্রভাব বহু বছর ধরে চলবে।’

বিশেষজ্ঞদের মতে, করোনা মহামারির পর স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যাওয়ার কাজটি কঠিন হবে। করোনা পরবর্তীতে পোস্ট-ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিসঅর্ডার (পিটিএসডি) দেখা দেওয়ার আশঙ্কা করেছেন তারা। পিটিএসডি হলো একটি ব্যাধি, যা মারাত্মক মানসিক আঘাতের ফলাফল।

পিটিএসডি শব্দটির উদ্ভাবক সাইকোথেরাপিস্ট ওভেন ওকেইন বলেন, ‘মহামারী পরবর্তীতে এই মানসিক ব্যাধিটি ব্যাপকহারে দেখা দিতে পারে। এটি দীর্ঘমেয়াদী মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে পরিচিত। যা স্বাস্থ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। পিটিএসডি’র কিছু লক্ষণ হলো- উদ্বেগ বেড়ে যাওয়া, উৎসাহ কমে যাওয়া, নিরাশ বা শক্তিহীন বোধ করা, ঘুমে সমস্যা, ক্ষুধা পরিবর্তন, মানসিকভাবে অসাড় বোধ করা, রাগ বা বিরক্তি বেড়ে যাওয়া, নেতিবাচক বা বিপর্যয়কর চিন্তাভাবনা, সামাজিক সম্পর্ক বজায় রাখতে অসুবিধা। 

পিটিএসডি মোকাবেলার জন্য আপনি চিকিৎসকের সহায়তা নিতে পারেন। যা আপনার মানসিক ব্যাপারগুলো মোকাবেলা করার উপায় খুঁজে দেবে। এছাড়া পিটিএসডি চিকিৎসা হিসেবে কগনিটিভ বেহেভিওরাল থেরাপি (সিবিটি) নেওয়া যেতে পারে। নির্দিষ্ট কিছু ওষুধ সেবন এবং শরীরচর্চাও করা যেতে পারে।

ঢাকা/ফিরোজ

সম্পর্কিত বিষয়:

সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়