ঢাকা     সোমবার   ২২ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ৯ ১৪৩১

ইফতেখারের অভাব পূরণ করবেন মাহমুদউল্লাহ

ক্রীড়া প্রতিবেদক || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৫০, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  
ইফতেখারের অভাব পূরণ করবেন মাহমুদউল্লাহ

এক সেঞ্চুরি, তিন হাফ সেঞ্চুরি। প্রথমবার বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) খেলতে এসে রীতিমত উড়েছেন পাকিস্তানের ইফতেখার আহমেদ। ১০ ম্যাচে ৬৯.৪০ গড়ে ৩৪৭ রান করেছেন। যা যৌথভাবে সাকিব আল হাসানের সঙ্গে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

ইনিংসের মাঝপথে কিংবা শেষে যখনই ইফতেখার ২২ গজে নেমেছেন তখনই ঝড় তুলেছেন। লোয়ার অর্ডারে কম বলে দ্রুত রান তুলতে বেশ কার্যকরী ছিলেন এ ব্যাটসম্যান। চার-ছক্কার বৃষ্টি নামাতেন প্রায় প্রতি ম্যাচেই। টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ ২৩ ছক্কা এসেছে তার ব্যাট থেকে। এছাড়া ১৯ চারও হাঁকিয়েছেন। টুর্নামেন্টে তিন’শ-এর বেশি রান করা ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ (১৬১.৩৯) স্ট্রাইক রেট তার ব্যাটেই রাঙানো।

১০ ম্যাচে ৭ জয়ে ১৪ পয়েন্ট নিয়ে বরিশাল চলে গেছে প্লে’অফে। কিন্তু টুর্নামেন্টের শেষ ম্যাচগুলোতে ইফতেখারকে ছাড়া খেলতে হবে বরিশালকে। নিজ দেশের লিগ পাকিস্তান সুপার লিগ (পিএসএল) খেলতে শুক্রবার রাতেই পাকিস্তান উড়াল দেবেন এ হার্ডহিটার। যাওয়ার আগে শুক্রবার শেষ ম্যাচে ৩১ বলে ৩টি করে চার ও ছক্কায় ৫১ রান করেছেন।

ফাইনালের লড়াইয়ে তার অভাব নিশ্চিতভাবেই অনুভব করবে বরিশাল। কে করবে তার অভাব পূরণ? জানতে চাওয়া হয়েছিল খুলনার বিপক্ষে ওপেনিংয়ে নেমে ২৯ বলে ৩৯ রান ফজলে রাব্বীর কাছে। দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসে রাব্বী বলেছেন, ‘এখন পর্যন্ত সে আমাদের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য ব্যাটসম্যান। সে গেলে আমরা একটু তো পিছিয়ে পড়বোই। আমাদের এখন যারা আছে তিনজন তো আফগানিস্তানের। সঙ্গে চাতু (চতুরঙ্গ ডি সিলভা) আছে। তিনজনের সঙ্গে রিয়াদ ভাই (মাহমুদউল্লাহ) আছেই। রিয়াদ ভাই যেহেতু সুযোগ পায়নি কতগুলো ম্যাচে, সে যেভাবে খেলে। আশা করছি রিয়াদ ভাই এটা কাভার করে দেবেন।’

মাহমুদউল্লাহ লিগে ১০ ম্যাচে কেবল ১২৯ রান করেছেন। লেট অর্ডারে নেমে খুব বেশি কার্যকরী ইনিংস তার ব্যাট থেকে আসেনি। সিলেটে শেষ ম্যাচে দলের বিপর্যয়ের সময় নেমে কেবল ২৭ বলে ৩৯ রান করেছেন। যা এবারের আসরে সর্বোচ্চ। এর আগে চট্টগ্রামে ৩১ বলে ৩৫ রানের ইনিংস খেলে ছিলেন অপরাজিত। টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ ৩টি শূন্যরানের রেকর্ডও তার দখলে। চরম অফফর্মে থাকা মাহমুদউল্লাহ ইফতেখারের অভাব পূরণ করতে পারবেন কিনা তা সময়ই বলে দেবে।

রাব্বী এর আগে দুই ম্যাচে সুযোগ পেলেও ব্যাটিংয়ে নামতে পারেননি। আজ ওপেনিংয়ে নেমে ৪ চার ও ২ ছক্কায় ২৯ বলে ৩৯ রান করেছেন। ফরচুন বরিশালের মতো বড় দলের হয়ে খেললে সুযোগ পেলে পারফর্ম করার কাজটা সহজ হয় বলে মনে করেন রাব্বী, ‘প্রথম দুই ম্যাচে সুযোগ পেয়েছিলাম কিন্তু ব্যাটিংয়ে সুযোগ হয়নি। দলের পরিকল্পনাই ছিল আজ লেফটি-রাইটি কম্বিনেশন করবে। দল থেকে ওই ফ্রিডম দিয়েছে যে তুমি তোমার মতো করে খেলবা। চেষ্টা কর পাওয়ার প্লে’ ব্যবহার করার। করতে পেরেছি। বড় দলে খেললে হয় কি নিজের ওপর চাপটা কম থাকে। দায়িত্ব নেওয়ার মানুষ অনেক থাকে। আমাদের যারাই খেলে তারা নিজের মতো করে খেলার চেষ্টা করে।’

সাকিবের অনুপ্রেরণাও খুব কাজে আসছে বলে মনে করেন রাব্বী, ‘সাকিব ভাই সব সময় আমাদের এনকারেজ করেন যারা আমরা খেলছি কিংবা খেলছি না। ইভেন উনি টিম মিটিংয়ে এটা বলেছে যে— আমি প্রত্যেককে বিশ্বাস করি, যে কেউ যে কোনো সময়ে ম্যাচ ঘুরিয়ে দিতে পারে। আমাদের ড্রেসিংরুমের পরিবেশ সব সময় হাসিখুশি থাকে। কারও উপর চাপ নেই। সবাই চেষ্টা করে নিজেদের সেরাটা দেওয়ার।’

ইয়াসিন/আমিনুল

সম্পর্কিত বিষয়:

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়