ঢাকা     মঙ্গলবার   ২৫ জুন ২০২৪ ||  আষাঢ় ১১ ১৪৩১

উত্তাল সমুদ্রে পর্যটকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস

কক্সবাজার প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৬:৫০, ১০ জুন ২০২৩   আপডেট: ১৭:০৫, ১০ জুন ২০২৩
উত্তাল সমুদ্রে পর্যটকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে সমুদ্রে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত রয়েছে। সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে সমুদ্র বেশ উত্তাল রয়েছে। কিন্তু সবকিছু উপেক্ষা করেই দেশের দূর-দূরান্ত থেকে কক্সবাজার সৈকতে বেড়াতে আসা ভ্রমণপিপাসুরা মেতে উঠেছেন বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসে। 

শনিবার (১০ জুন) সাপ্তাহিক ছুটির দিনে সমুদ্রসৈকতের বিভিন্ন পয়েন্টে পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে। সমুদ্রের উত্তাল ঢেউয়ে গা ভাসিয়ে নিজেদের মাতিয়ে তুলেছেন পর্যটকরা। নোনাজলে আনন্দ হই-হুল্লোড়ে মেতেছেন হাজারো ভ্রমণপিপাসুরা। 

সরজমিনে দেখা যায়, সৈকতের কলাতলী, সুগন্ধ, সীগাল ও লাবণী পয়েন্টে পর্যটকরা ঘুরাঘুরি করছেন। কেউ এসেছেন পরিবার-পরিজন নিয়ে, কেউবা প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে। সব বয়সের মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে সাগর তীর। তাদের অনেককেই জেটস্কি, বিচ বাইক ও ঘোড়া রাইডে ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা গেছে। তবে বেশির ভাগই সমুদ্রস্নান ও ঢেউয়ে গা ভাসাচ্ছিলেন। 

রাজশাহী থেকে আসা পর্যটক দম্পতি মান্নান ও রেজিয়া জান্নাত বলেন, ব্যস্ততার কারণে কক্সবাজার বেড়াতে আসার সময়-সুযোগ হয়ে ওঠে না। সময় পেয়েছি তাই ঘুরতে এলাম। সাগরে সতর্কতা সংকেতের কথা জানলেও সবাই গোসল করছে। তাই আমরাও সমুদ্রে নেমে পড়েছি। 

মিরপুর থেকে আসা পর্যটক শাহরিয়ার আহমেদ বলেন, ‘ইট-পাথরের শহর আর ভালো লাগছিল না। তাই সাপ্তাহিক ছুটির দিনে সাগরের টানে কক্সবাজার ছুটে এলাম। নোনাজলে গা ভিজিয়ে শান্তি পাচ্ছি।’

চাকরিজীবী শামসুন নূর মিয়া বলেন, ‘ছুটি পেয়ে পাহাড়, সাগর ও প্রকৃতির টানে কক্সবাজার চলে আসা। ঘুরাঘুরির পর একটু গা ভেজাতে সমুদ্রে নামলাম। লাইফগার্ডের বাঁশি শুনে তীরে উঠে যাচ্ছি।’

বৈরী আবহাওয়ায় সাগর কিছুটা উত্তাল, তাই পর্যটকদের সমুদ্রস্নানে নিরাপত্তায় সতর্ক করার পাশাপাশি নিয়মিত টহল জোরদার করেছেন লাইফগার্ড কর্মীরা। পর্যটকদের পানি থেকে উঠে আসতে বাঁশি, পতাকা দেখিয়ে সচেতন করছেন তারা। 

সী সেইফ লাইফগার্ডের সদস্য ইউসুফ বলেন, সমুদ্র উত্তাল। সৈকতে পতাকা টাঙানো হয়েছে। এছাড়া ওয়াচ টাওয়ারের উপর থেকে বাঁশি দিয়ে পর্যটকদের পানি থেকে উঠে যেতে বলা হচ্ছে। কেউ মানছেন, কেউ মানছেন না। তবে স্থলে উঠে আসতে তাদেন অনুরোধ করে বলা হচ্ছে।’

উত্তাল সাগরের পানিতে নামতে পর্যটকদেন নিরুৎসাহিত করছে ট্যুরিস্ট পুলিশ ও বিচ কর্মীরা। এছাড়াও পর্যটকদের নিরাপত্তায় সার্বক্ষণিক দায়িত্ব পালনে মাঠে রয়েছে তারা।

কক্সবাজার আবহাওয়া অফিসের প্রধান আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান বলেন, ‘মেঘমালার কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরসমূহকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।’

তারেকুর/ মাসুদ

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়