ঢাকা     বৃহস্পতিবার   ২৫ এপ্রিল ২০২৪ ||  বৈশাখ ১২ ১৪৩১

দীর্ঘ ৫২ বছর পর মিলল ‘শহিদ বুদ্ধিজীবী’ স্বীকৃতি

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি || রাইজিংবিডি.কম

প্রকাশিত: ১৯:৩৯, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪   আপডেট: ২০:৩০, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
দীর্ঘ ৫২ বছর পর মিলল ‘শহিদ বুদ্ধিজীবী’ স্বীকৃতি

শহিদ বুদ্ধিজীবী শামসুদ্দীন আহমেদ। (ছবি- সংগৃহীত)

দীর্ঘ ৫২ বছর পর মুক্তিযুদ্ধে শহিদ বুদ্ধিজীবীর স্বীকৃতি পেলেন শামসুদ্দীন আহমেদ। ১৯৭১ সালে রাজশাহী সদরে ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি। সেখানে তাকে হত্যা করে পাকিস্তানি বাহিনী। তার মরদেহটিও পায়নি স্বজনরা।

৮ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার) মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের শহীদ বুদ্ধিজীবীদের তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয়েছে তার নাম (গেজেট-৪২৭ এর তৃতীয় তালিকায় তার ক্রমিক নম্বর ৯২)।

শহিদ বুদ্ধিজীবী শামসুদ্দীন আহমেদের বড় ছেলে সালাহউদ্দিন আহমেদ সেলু বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, দীর্ঘদিন পর হলেও এ খবরে স্বস্তি ফিরেছে আমাদের পরিবারে। বাবার বুদ্ধিজীবী স্বীকৃতির জন্য আমার মা সারাজীবন চেষ্টা করেছেন। কিন্তু রাষ্ট্র যখন বাবাকে স্বীকৃতি দিল তখন মা বেঁচে নেই। তিনি বেঁচে থাকলে তার মতো খুশি কেউ হতো না। আমরা সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

পরিবার সূত্রে জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলা সদরের সাচাইল গ্রামের মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলামের ছেলে শামসুদ্দীন আহমেদ। কর্মজীবনের শুরুতে তিনি তাড়াইল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ছিলেন। ১৯৬৪ সালে পূর্ব পাকিস্তান সুপিরিয়র্স সার্ভিসে কুমিল্লার ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে সরকারি চাকরিতে যোগ দেন। এরপর ঢাকায় বদলি হন। মুক্তিযুদ্ধের কিছুদিন আগে তাকে রাজশাহী জেলায় বদলি করা হয়। কর্মক্ষেত্রে তিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাঙালিদের ঐক্যবদ্ধ করার কাজে জড়িয়ে পড়েন। তরুণদেরও নানাভাবে উদ্বুদ্ধ করতে থাকেন। ১৯৭১ সালের ১৪ এপ্রিল সরকারি জিপে চড়ে তানোর থানায় যাচ্ছিলেন তিনি। উদ্দেশ্য ছিল সংগ্রাম কমিটির সভায় যোগদান করা। পথে পাকিস্তানি সেনারা তাকে আটক ও হত্যা করে। কিন্তু তার লাশটি ফেরত দেওয়া হয়নি। পাকিস্তানি বাহিনী এতটাই ক্ষিপ্ত ছিল যে রাজশাহীতে তার বাসাটি পর্যন্ত পুড়িয়ে দেয়। ওই সময় তার স্ত্রী ও সন্তানেরা কিশোরগঞ্জে ছিল বলে প্রাণে বেঁচে যায়।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে সরকারি গেজেটের মাধ্যমে শামসুদ্দীন আহমেদ শহিদ হয়েছেন বলে পরিবারের লোকজন জানতে পারে। ১৯৭২ সালের ২৭ মার্চ প্রকাশিত গেজেটে পাকিস্তানি সেনাদের গুলিতে তার মৃত্যুর সংক্ষিপ্ত বিবরণ দেওয়া হয়। এতে পরিবারের প্রতি গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করা হয়।

সালাউদ্দিন আহমেদ সেলু বলেন, সরকারিভাবে শহিদদের তালিকা প্রকাশ করা হলেও এতে বাবার নাম ছিল না। এ কারণে আমরা অর্ধশতাব্দীকাল গভীর বেদনা ও দুঃখবোধ নিয়ে বেঁচে ছিলাম। ৫২ বছর বাবার শহিদ হওয়ার স্বীকৃতি আমাদের নতুনভাবে প্রেরণা জোগাবে।

তিনি আরও বলেন, মা সিদ্দিকা বেগম ছিলেন তৎকালীন মহকুমা প্রশাসকের মেয়ে। স্বামীর মৃত্যুর পর সহকারী শিক্ষকের চাকরি করেছেন। ছেলেমেয়েদের আগলে রেখেছেন। এর মধ্যেই টানা ছয়টি বছর স্বজনদের নিয়ে স্বামীর লাশের সন্ধান করেছেন। কিন্তু কখনো হাল ছাড়েননি। স্বামীর শহিদের মর্যাদা আদায়ে আজীবন লড়ে গেছেন তিনি। বিভিন্ন দপ্তরে দিনের পর দিন ঘুরেছেন। এই দুঃখবোধ নিয়েই তিনি মারা গেছেন। আজ মা বেঁচে থাকলে তার মতো খুশি কেউ হতো না।

রুমন/ফয়সাল

আরো পড়ুন  



সর্বশেষ

পাঠকপ্রিয়